আবাহনীর জয়ে আবারও উজ্জ্বল লিটন

এক ম্যাচের রান বিরতি শেষে আবার জ্বলে উঠল লিটন দাসের ব্যাট। দারুণ দুটি ইনিংস খেললেন নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিঠুন। রানের পাহাড় গড়ে প্রাইম ব্যাংককে হারাল আবাহনী।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 May 2017, 01:07 PM
Updated : 24 May 2017, 03:05 PM

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সুপার লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবকে ৬০ রানে হারিয়েছে আবাহনী লিমিটেড।

এবারের লিগে দুটি সেঞ্চুরি করা লিটন এবার করেছেন ঝড়ো ৮৫। দুই দফা বৃষ্টির বাঁধায় আবাহনীর ইনিংস শেষ হয় ৪৭ ওভারে, তোলে তারা ৩২১ রান।

ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে প্রাইম ব্যাংকের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৭ ওভারে ৩৩৪। গুটিয়ে যায় তারা ২৭৩ রানে।

আগের ম্যাচে শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন লিটন। এদিন নাজমুল অপুর করা ম্যাচের দ্বিতীয় বলেই চার মেরে ছুটেছেন। অপুর পরের ওভারেই মেরেছেন ছক্কা।

সাদমান ইসলামের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটি থেমেছে ৩৮ রানে। তবে দ্বিতীয় উইকেটে সাইফ হাসানের সঙ্গে লিটন গড়েছেন ১০০ রানের জুটি। এতে লিটনের অবদান ৬২, সাইফের ৩৩।

লিগে লিটনের তৃতীয় সেঞ্চুরিটা মনে হচ্ছিলো সময়ের ব্যাপার। তখনই আউট সেই নাজমুল অপুর বলে। ৮ চার ও ৪ ছক্কায় ৮৫ করেছেন ৭৩ বলে।

লিগের এই নিয়ে লিটনের মোট রান হলো ৬৬৩। দুইয়ে থাকা ইমতিয়াজ হোসেন পিছিয়ে আছেন ১৩০ রানে!

দরুণ ভিত পেয়ে যাওয়া আবাহনীকে বড় স্কোরে নিয়ে যায় নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিঠুনের জুটি। চতুর্থ উইকেটে ৮৬ বলে ১০৭ রান তোলেন দুজন।

৫৭ বলে ৬৫ করে ফেরেন শান্ত, ৫২ বলে ৬০ মিঠুন। দুজনই মেরেছেন তিনটি করে ছক্কা।

শেষ দিকে আফিফ হোসেন করেন ৭ বলে ১৭, মনন শর্মা ৫ বলে ১৫। শেষ ২ ওভারে আবাহনী তোলে ৩৩ রান।

প্রাইম ব্যাংকের রান তাড়ার শুরুটায় ছিল চ্যালেঞ্জ জানানোর ইঙ্গিত। ওপেনিংয়ে তরুণ কিপার-ব্যাটসম্যান জাকির হোসেন করেন ৩৮ বলে ৫৫, অধিনায়ক মেহেদি মারুফ ২৪ বলে ২৮।

তিনে প্রমোশন পেয়ে নাহিদুল ইসলাম খেলেন ২৯ বলে ৪৩ রানের ইনিংস। কিন্তু রানের রানের ধারা ধরে রাখা যায়নি পরে, গড়ে ওঠেনি জুটিও। কজনে টুকটাক রান করলেও জয়ের সম্ভাবনা জাগাতে পারেনি প্রাইম ব্যাংক।

আবাহনীর পাশাপাশি এদিন জিতেছে প্রাইম দোলেশ্বর, হেরেছে গাজী গ্রুপ। সুপার লিগ শুরুর দিনই তাই দারুণ জমে গেল ঢাকা লিগ। তিন দলেরই পয়েন্ট সমান ১৮। প্রাইম ব্যাংকের ১৬।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

আবাহনী: ৪৭ ওভারে ৩২১/৬ (লিটন ৮৫, সাদমান ১৫, সাইফ ৪৬, শান্ত ৬৫, মিঠুন ৬০, শুভাগত ৯, আফিফ ১৭*, মনন ১৫*; অপু ১/৬০, আল আমিন ২/৪৩, আরিফুল ২/৭০, সালমান ০/৩৮, তাইবুর ১/৪৪, নাহিদুল ০/২২, আল আমিন ০/২২)।

প্রাইম ব্যাংক: ৪৩.৩ ওভারে ২৭৩ (লক্ষ্য: ৪৭ ওভারে ৩৩৪) (মারুফ ২৮, জাকির ৫৫, নাহিদুল ৪৩, ইশ্বরন ৪৩, তাইবুর ৭, সালমান ২৪, আল আমিন ১৯, আরিফুল ২, আসিফ ৩২, নাজমুল ৫, আল আমিন ৩*; সাইফুদ্দিন ২/৫৩, আরিফুল ০/৩০, শুভাগত ২/৩৩, সাকলাইন ১/৪৯, মনন ৩/৫৪, আফিফ ২/৪৮)।

ফল: আবাহনী ৬০ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: লিটন কুমার দাস

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক