রানের পাহাড় গড়া মোহামেডানের নাটকীয় জয়

তিনশ ছাড়ানো স্কোর গড়েও হারের তিক্ত স্মৃতি এখনও তাজা। সেই স্বাদ আবারও পেতে যাচ্ছিল মোহামেডান। শেষের দিকে ঘুরে দাঁড়িয়ে দারুণ এক জয় পেয়েছে দলটি। তরুণ মুনিম শাহরিয়ারের ব্যাটে জয়ের স্বপ্ন দেখা গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স হেরেছে আবারও।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 May 2017, 02:33 PM
Updated : 24 May 2017, 03:05 PM

৭ রানের জয়ে সুপার লিগ শুরু করেছে মোহামেডান। এনিয়ে টানা তিন ম্যাচে হেরেছে শীর্ষে থেকে প্রথম পর্ব শেষ করা গাজী। সুপার লিগের প্রথম দিনে আবাহনী ও প্রাইম দোলেশ্বরও জেতায় তিন দলের পয়েন্ট এখন সমান ১৮। 

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে বুধবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেটে ৩২৪ রান করে মোহামেডান। জবাবে ৮ উইকেট ৩১৭ রানে থামে গাজী।

১৭ বলে ২৭ রান করে সৈকত আলীর বিদায়ের পর দলকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন শামসুর রহমান ও রনি তালুকদার। আগের ম্যাচে শতক পাওয়া দুই ব্যাটসম্যান এবার তিন অঙ্কে যেতে পারেননি। তবে ১৪৮ রানের দারুণ জুটিতে দলকে ১ উইকেটে ১৮৮ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান তারা।

৮৫ বলে ১ চার আর ৫টি ছক্কায় ৭৪ রান করে শামসুরের বিদায়ে ভাঙে বিপজ্জনক হয়ে উঠা জুটি। কিছুক্ষণ পর বিদায় নেন রনিও। ৯৫ বলে ৮টি চার ও দুটি ছক্কায় গড়া ৯২ রানের ইনিংসে জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

রকিবুল হাসান, বিপুল শর্মারা কাজে লাগাতে পারেননি দৃঢ় ভিত। দুই অঙ্কেই যেতে পারেননি তাইজুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম রাব্বি। দলকে কক্ষপথে রাখেন নাজমুল হোসেন মিলন। দুটি চার আর তিনটি ছক্কায় ৩৩ বলে ফিরেন ৪৭ রান করে।

শেষের দিকে সাজেদুল ইসলাম ও জাবিদ হোসেনের ব্যাটে তিনশ ছাড়ায় মোহামেডানের স্কোর।

আবু হায়দার ও মোহাম্মদ শাহজাদা নেন দুটি করে উইকেট।

এনামুল হকের ঝড়ো ৩৬ রানে গাজীর শুরুটা ছিল উড়ন্ত। মুমিনুলের দ্রুত বিদায়ের কোনো প্রভাব পড়তে দেননি মুনিম ও জহুরুল ইসলাম।

৩৬ রান করে জহুরুল বিদায়ের পর গাজীর জন্য আরও বড় ধাক্কা হয়ে আসে মুনিমের মাঠ ছাড়া। প্রচণ্ড গরমে টিকতে না পেরে ২৬তম মাঠ ছাড়েন এই তরুণ উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান।

পারভেজ রসুল, নাদিফ চৌধুরী ভালো শুরু পেলেও নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেননি। ৩৬তম ওভারে ফিরে আর জ্বলে উঠতে পারেননি মুমিন। ৮৩ বলে ১১টি চারে আউট হন ৮৮ রান করে।

মেহেদীর সঙ্গে সোহরাওয়ার্দী শুভর ৫১ রানের জুটি আশা বাঁচিয়ে রেখেছিল। শেষ ৩ ওভারে দরকার ছিল ৩৩ রান, সতীর্থদের নিয়ে সেই সমীকরণ মেলাতে পারেননি শুভ। এই অলরাউন্ডার ৫৪ বলে দুটি চারে অপরাজিত ছিলেন ৫৭ রানে।

মোহামেডানের রাব্বি, বিপুল ও সাজেদুল নেন দুটি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

মোহামেডান: ৫০ ওভারে ৩২৪/৮ (শামসুর ৭৪, সৈকত ২৭, রনি ৯২, রকিবুল ১১, বিপুল ২৮, নাজমুল ৪৭, তাইজুল ৬, রাব্বি ২, সাজেদুল ১০*, জাবিদ ১৬*; হায়দার ২/৭৮, শাহজাদা ২/৫২, মেহেদী ১/৪৯, হালিম ১/৫৩, মুমিনুল ০/১১, রসুল ১/৫১, শুভ ০/২৫)

গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স: ৫০ ওভারে ৩১৭/৮ (এনামুল ৩৬, মুনিম ৮৮, মুমিনুল ৩, জহুরুল ৩১, রসুল ৪০, নাদিফ ১৭, শুভ ৫৭*, মেহেদী ২৭, হায়দার ১০, শাহজাদা ১*; তাইজুল ১/৬০, সাজেদুল ২/৬৮, শামসুর ০/২৮, বিপুল ২/৬০, রাব্বি ২/৫৯, আজিম ১/৪২)

ফল: মোহামেডান ৭ রানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: রনি তালুকদার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক