অ্যাশেজের দলে থাকবে অ্যান্ডারসন-ব্রড: ম্যাককালাম

সিরিজের ৯ মাস বাকি থাকতেই অভিজ্ঞ দুই পেসারকে দলে রাখার কথা নিশ্চিত করে দিলেন ইংল্যান্ডের লাল বলের কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Sept 2022, 03:53 PM
Updated : 14 Sept 2022, 03:53 PM

একজনের বয়স পেরিয়ে গেছে ৪০। আরেক জনের ৩৬। আগামী বছর অ্যাশেজ সিরিজের ইংল্যান্ড দলে জেমস অ্যান্ডারসন ও স্টুয়ার্ট ব্রড থাকবেন কি-না, এমন প্রশ্ন ওঠা তাই স্বাভাবিক। তবে সিরিজের ৯ মাস বাকি থাকতেই ইংল্যান্ডের টেস্ট কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম জানিয়ে দিলেন, অ্যাশেজের দলে নিশ্চিতভাবে থাকবেন অভিজ্ঞ দুই পেসার।  

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হওয়া গত অ্যাশেজের দলেও ছিলেন অ্যান্ডারসন ও ব্রড। ৪-০ ব্যবধানে ওই সিরিজ হারের পর দল পুনর্গঠন করে সামনে তাকানোর কথা বলে বাদ দেওয়া হয়েছিল এই দুজনকে। যদিও অ্যাশেজে তিনটি করে টেস্ট খেলে দুজনের কারও পারফরম্যান্সই খারাপ ছিল না। তবে তাদের ক্ষেত্রে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছিল মূলত বয়স আর ভবিষ্যৎ ভাবনা। 

অ্যাশেজের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তাদের দলের বাইরে রাখায় ইংলিশ ক্রিকেট মহলে তখন দেখা গিয়েছিল প্রবল প্রতিক্রিয়া। অ্যান্ডারসন ও ব্রড তাদের বিস্ময় ও অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছিলেন প্রকাশ্যেই। 

ক্যারিবিয়ানেও সিরিজ হারের পর দেশে ফিরে সমালোচনার মধ্যে টেস্ট নেতৃত্ব ছাড়েন জো রুট। গত এপ্রিলে ইংল্যান্ডের টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব পেয়েই বেন স্টোকস বলেন, অ্যান্ডারসন ও ব্রডকে দলে ফেরত চান তিনি। তার সঙ্গে একমত হন নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক রবার্ট কি। পরের মাসে টেস্ট দলের প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় সাবেক নিউ জিল্যান্ড ব্যাটসম্যান ম্যাককালামকে। 

স্টোকস-ম্যাককালাম জুটির প্রথম সিরিজে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে দলে ফেরানো হয় অ্যান্ডারসন ও ব্রডকে। তারা ফেরার পর থেকে এখন পর্যন্ত সাত টেস্ট খেলে ছয়টিই জিতেছে ইংল্যান্ড। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজ তারা জিতেছে ২-১ ব্যবধানে। ওভালে তিন দিনে পরিণত হওয়া তৃতীয় টেস্ট গত সোমবার জিতে নিয়েছে দুই দিনের একটু বেশি সময়ে।   

সবশেষ সিরিজে তিন ম্যাচে ৪০ বছর বয়সী অ্যান্ডারসন উইকেট নেন ১০টি। সমান ম্যাচে ৩৬ বছর বয়সী ব্রডের প্রাপ্তি ১৪ উইকেট। 

অ্যান্ডারসন টেস্ট ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার অনেক দিন আগে থেকেই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে গ্লেন ম্যাকগ্রাকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার হয়ে যান ব্রড। 

টেস্টে ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় প্রথম দুটি স্থানেও আছেন এই দুজন। ১৭৫ টেস্টে অ্যান্ডারসনের উইকেট ৬৬৭টি। ১৫৯ ম্যাচে ব্রডের শিকার ৫৬৬ উইকেট। 

পরের অ্যাশেজ সিরিজ হবে আগামী বছরের জুন-জুলাইয়ে। সেই দলে অ্যান্ডারসন ও ব্রড থাকবেন কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে ম্যাককালাম শুধু তাদের দলে থাকার কথাই নিশ্চিত করলেন না, তুলে ধরলেন দুজনের অন্যান্য দিকও। 

“হ্যাঁ, তারা দলে থাকবে। তারা দুজনই দারুণ খেলছে। এই ছেলেরা অসাধারণ ক্রিকেটার। তারা চাইলে যে কোনো সময় তাদের ক্যারিয়ার শেষ করতে পারে এবং তখনও তারা এই খেলার সেরা হিসেবে বিবেচিত হবে।” 

“তারা যা করছে, তা হলো পরবর্তী প্রজন্মের জন্য লেগ্যাসি তৈরি করে যাচ্ছে। আপনারা পর্দার আড়ালে দেখতে পান না। তারা অন্য ছেলেদের যে সময়, প্রচেষ্টা এবং আত্মবিশ্বাস দিচ্ছে, তা সত্যিই অসাধারণ।" 

অ্যাশেজে ইংলিশ পেস জুটির মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনায় রোমাঞ্চিত অস্ট্রেলিয়ান পেসার মিচেল স্টার্ক। সিডনিতে বুধবার সংবাদমাধ্যমের সামনে অ্যান্ডারসন ও ব্রডকে প্রশংসায় ভাসান তিনি। 

“আমি অবশ্যই ৪০ বছর বয়সে বল করতে পারব না…রেকর্ডই তাদের হয়ে কথা বলে। তারা অবিশ্বাস্য প্রতিভা, অবিশ্বাস্য দক্ষ খেলোয়াড়।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক