ঢাকায় ‘সাদা পোশাকে’ গ্রেপ্তার করতে গিয়ে বাধার মুখে পুলিশ

বাধা পাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ বলছে, সেখানে কিছুটা ‘উত্তেজনা’ তৈরি হয়েছিল।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Jan 2023, 02:37 PM
Updated : 24 Jan 2023, 02:37 PM

ঢাকার মোহাম্মদপুরে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে স্থানীয়দের বাধার মুখে পড়তে হয়েছিল পুলিশকে।

স্থানীয়দের ভাষ্য, পুলিশ সদস্যরা সাদা পোশাকে ছিলেন এবং তারা কোনো পরোয়ানাও দেখাতে পারেননি।

মোহাম্মদপুর থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বাধা পাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, সেখানে কিছুটা ‘উত্তেজনা’ তৈরি হয়েছিল। তখন অতিরিক্ত পুলিশ পাঠিয়ে ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে আনা হয়।

সোমবার বিকালে জেনেভা ক্যাম্পে (আটকে পড়া পাকিস্তানিদের আবাস) শাহ আলম (৪০) নামের একজনকে গ্রেপ্তার করতে গেলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

শাহ আলম জেনেভা ক্যাম্পের বাসিন্দা মোহাম্মদ হাসানের ভাগনি-জামাই।

স্থানীয়রা জানান, কয়েকজন সহকর্মীকে বাইরে রেখে সাদা পোশাকে থাকা এক পুলিশ সদস্য ক্যাম্পের ভেতরে ঢোকেন শাহ আলমকে গ্রেপ্তার করতে। তখন ক্যাম্পের বাসিন্দারা তাকে আটকে ফেলে। পরে থানা থেকে আরও পুলিশ গিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে।

হাসান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সাদা পোশাকে পুলিশ এসে নিজেদের ডিবি পরিচয় দেয়। তারা কোনো গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছাড়াই শাহ আলমকে তুলে নিয়ে যেতে চাইলে স্থানীয় লোকজন বাধা দেয় এবং উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।”

তখন ওই পুলিশ সদস্য প্রায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে জানিয়ে তিনি বলেন, “তার কাছে আমরা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখতে চাইলে তা দেখাতে পারেননি।”

সাদা পোশাকে গ্রেপ্তারি অভিযান না চালাতে পুলিশের উপর আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। কাউকে গ্রেপ্তার করার সময় পুলিশ সদস্যকে তার পরিচয়পত্র দেখাতে হবে, এমন কথাও বলেছে হাই কোর্ট।

ওই পুলিশ সদস্যের সাদা পোশাকে যাওয়ার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মোহাম্মদপুরের ওসি আবুল কালাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ওই পুলিশ কর্মকর্তা সাদা পোশাকে ছিলেন কি না, সে বিষয়টি আমরা যাচাই করে দেখছি।”

তবে সেখানে কোনো পুলিশ সদস্য আটকা পড়েননি দাবি করে তিনি বলেন, “একটু উত্তেজনা হয়েছিল। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠান হয়।”

শাহ আলমকে ‘মাদক বিক্রেতা’ হিসাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানালেও হাসানের দাবি, এটা ঠিক নয়।

হাসান বলেন, তার আত্মীয় শাহ আলম পেশায় কসাই। পুলিশকে ‘ভুল বুঝিয়ে’ কেউ গ্রেপ্তার করিয়েছে।

তবে ওসি আবুল কালাম বলেন, “শাহ আলম একজন মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক