ভাঙল পিএসজি-পচেত্তিনো জুটি

নতুন মৌসুমে পিএসজির ডাগআউটে যে মাওরিসিও পচেত্তিনো থাকছেন না, তা একরকম নিশ্চিতই ছিল। বাকি ছিল স্রেফ আনুষ্ঠানিকতা। সেটিও হয়ে গেল। ফরাসি ক্লাবটির সঙ্গে শেষ হলো আর্জেন্টাইন কোচের ১৮ মাসের পথচলা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 July 2022, 11:35 AM
Updated : 5 July 2022, 12:57 PM

লিগ ওয়ানের ক্লাবটি মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পচেত্তিনোকে বিদায় করার কথা নিশ্চিত করেছে।

২০২১ সালের জানুয়ারিতে পচেত্তিনো পিএসজির দায়িত্ব নেন। তার কোচিংয়ে ৮৪টি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলে তারা। এই সময়ে পচেত্তিনোর হাত ধরে ২০২০ সালে ফরাসি সুপার কাপ, ২০২০-২১ মৌসুমের ফরাসি কাপ এবং সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে দশম লিগ শিরোপা ঘরে তোলে দলটি।

কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দারুণ কিছুর আশা জাগালেও শেষ পর্যন্ত হতাশাই সঙ্গী হয় পিএসজির। শেষ ষোলোর লড়াইয়ে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে ছিটকে যায় তারা।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ব্যর্থতার কারণে পচেত্তিনোর পিএসজি পর্ব শেষের গুঞ্জন উঠেছিল জোরেশোরে; শেষ পর্যন্ত সেটাই সত্যি হলো।

লিগ ওয়ানেরই দল নিসের সাবেক কোচ ক্রিস্তফ গালতিয়ে পিএসজির হাল ধরতে পারেন বলে খবর এসেছে গণমাধ্যমে। 

পচেত্তিনোর কোচিং স্টাফের বাকিদেরও বিদায় জানিয়েছে পিএসজি। 

খেলোয়াড়ি জীবনে দুই বছর পিএসজিতে খেলেন আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডার পচেত্তিনো। পরে সেই দলেই ফেরেন কোচ হিসেবে। তার কোচিংয়ে সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে ঘরের মাঠে অপরাজিত থাকার নতুন রেকর্ড গড়ে পিএসজি। ১৯ ম্যাচের মধ্যে জয় তুলে নেয় ১৬টিতে।

তবে লিগ শিরোপা পেলেও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ব্যর্থতাকেই পচেত্তিনোর বড় ব্যর্থতা হিসেবে দেখা হচ্ছিল। কারণ চ্যাম্পিয়ন্স লিগকে প্রধান লক্ষ্য করেই কাড়িকাড়ি অর্থ ঢেলে যাচ্ছে দলটি। নেইমার, লিওনেল মেসির মতো খেলোয়াড়দের দলে ভিড়িয়েছে। 

পিএসজির দায়িত্ব নেওয়ার আগে পাঁচ বছর টটেনহ্যাম হটস্পারের কোচ ছিলেন পচেত্তিনো। ২০১৯ সালে তার কোচিংয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল খেলে ইংলিশ দলটি। কিন্তু এর কয়েক মাস পরই ছাঁটাই হন তিনি।

পরে ২০২১ সালের জানুয়ারিতে তিনি পিএসজির দায়িত্ব নিলে সেবার টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থেকে লিগ শেষ করে দলটি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমি-ফাইনালে উঠলেও হেরে যায় ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে। 

আর সবশেষ মৌসুমে তো মেসি, নেইমার, কিলিয়ান এমবাপেদের নিয়ে গড়া দুর্দান্ত দল নিয়েও শেষ ষোলোর বাধাই পার হতে পারেননি পিএসজি। তাই পচেত্তিনো অধ্যায়ের এখানেই সমাপ্তি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক