ইতালিকে উড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

বছরখানেক আগে যে মাঠে ইউরো জয়ের উৎসব করেছিল ইতালি, সেখানে ফেরাটা রাঙাতে পারল না তারা। আক্রমণাত্মক ফুটবলে পুরোটা সময়ই আধিপত্য করল আর্জেন্টিনা। প্রথমার্ধে জোড়া গোল করে নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধেও চাপ ধরে রাখল কোপা আমেরিকা জয়ীরা। ইউরোপ চ্যাম্পিয়নদের হারানোর মধ্য দিয়ে লিওনেল স্কালোনির দলের মুকুটে যোগ হলো নতুন পালক।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 June 2022, 08:45 PM
Updated : 1 June 2022, 10:58 PM

লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে বুধবার রাতে ফিনালিস্সিমা নামের আলোচিত ম্যাচটি ৩-০ গোলে জিতে এক বছরের মধ্যে দ্বিতীয় শিরোপা জিতল আর্জেন্টিনা। দুটি গোল হয় প্রথমার্ধে। লাউতারো মার্তিনেস দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন আনহেল দি মারিয়া। শেষ দিকে তৃতীয় গোলটি করেন পাওলো দিবালা।

গত ইউরো চ্যাম্পিয়ন ও কোপা আমেরিকা জয়ীর লড়াই ‘ফিনালিস্সিমা’ ম্যাচে ইতালিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা উৎসব করে আর্জেন্টিনা। ছবি: রয়টার্স

গত বছরের জুলাইয়ে ব্রাজিলকে তাদের মাঠে হারিয়েই কোপা আমেরিকায় চ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। তাদের ওই জয়োল্লাসের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিশ্বের আরেক প্রান্তে মাঠে গড়ায় ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। সেই লড়াইয়ে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো ইউরো জয় করে ইতালি।

সেদিনের সেই উৎসবের পর রবের্তো মানচিনির দল যেন হাঁটা ধরেছে পেছন পানে। আচমকা পথ হারিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপে উঠতে ব্যর্থ হয় ইতালি। সেই ব্যর্থতা পেছনে ফেলে ম্যাচের আগের দিন নতুন শুরুর ঘোষণা দেন ইতালি অধিনায়ক লিওনার্দো বোনুচ্চি। আর্জেন্টিনাকে হারিয়েই শক্ত ভিত গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন; কিন্তু মাঠে তার প্রমাণ রাখতে পারলেন না মানচিনির শিষ্যরা।

জর্জো কিয়েল্লিনির শেষটা হলো তাই হতাশায়। এই ম্যাচ দিয়েই ইতালির হয়ে সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন ১১৮ ম্যাচ খেলা এই ডিফেন্ডার।

আর আর্জেন্টিনা, তারা তো ছুটে চলেছে অপ্রতিরোধ্য গতিতে। এই জয়ই তার আরেক প্রমাণ। হতে পারে নামে-ভারে এই শিরোপার ওজন তেমন নয়। তবে বছরখানেক আগেও যেখানে চলছিল একটা শিরোপার জন্য হাহাকার, সেই দলটিই গত বছর কোপা আমেরিকা জিতে কাটায় ২৮ বছরের শিরোপা খরা। আর এবার জিতল বিশেষ এই ট্রফি।

হাইভোল্টেজ ম্যাচটির শুরুটা হয় একটু ঢিমেতালে। তবে খানিক বাদেই মেলে গতি, আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠে ম্যাচ। প্রথম ২০ মিনিটে দুই দল একটি করে হাফ-চান্স পায়, যদিও তার কোনোটিই প্রতিপক্ষ গোলরক্ষকের পরীক্ষা নেওয়ার মতো ছিল না।

২৫তম মিনিটে লিওনেল মেসির শট প্রতিহত হয়। তিন মিনিট পর ডি-বক্সে দারুণ পজিশনে বল পেয়েও গোলরক্ষক বরাবর দুর্বল শট নিয়ে হতাশ করেন পিএসজি তারকা।

পরক্ষণেই অসাধারণ নৈপুণ্যে দলকে এগিয়ে নেন মেসি। তিনি গোলদাতা না হলেও মূল অবদান তারই। সতীর্থের পাস ধরে বাঁ দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন মেসি। পুরোটা সময় সঙ্গে লেগে ছিলেন ডিফেন্ডার জিওভান্নি দি লরেন্সো, কিন্তু কিছুই করতে পারেননি তিনি। আরও খানিকটা এগিয়ে গোলমুখে বল বাড়ান মেসি, সেখানে ছোট্ট টোকায় বাকি কাজ সারেন মার্তিনেস।

দুই মিনিট পর পাল্টা জবাব দেওয়ার সুযোগ পায় ইতালি। কিন্তু নিকোলো বারেল্লা বক্সের বাইরে থেকে শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে দ্বিতীয় গোল করে চালকের আসনে উঠে বসে আর্জেন্টিনা।

মাঝমাঠে বোনুচ্চির বাধা এড়িয়ে বল পায়ে এগিয়ে কোনাকুনি থ্রু বল বাড়ান লাউতারো মার্তিনেস। সেদিকে ছুটে যান আরেক ডিফেন্ডার কিয়েল্লিনি। কিন্তু তাকে কোনো সুযোগই দেননি দি মারিয়া, চোখের পলকে বক্সে ঢুকে প্রথম ছোঁয়ায় চিপ শটে আগুয়ান গোলরক্ষকের ওপর দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন পিএসজিকে বিদায় জানানো এই মিডফিল্ডার।

দ্বিতীয়ার্ধের দশম মিনিটে নিজেদের ভুলে আরেক গোল খেতে বসেছিল ইতালি। ডি-বক্সের মধ্যে থেকে কী বুঝে ব্যকপাস দেন বোনুচ্চি, গোলরক্ষক বরাবরও ছিল না। তবে ভাগ্য ভালো যে গতি ছিল না, একেবারে শেষমুহূর্তে ঠেকান জানলুইজি দোন্নারুম্মা।

খানিক পর দুই মিনিটে দুবার গোলের সুযোগ তৈরি করেন দি মারিয়া। ৬০তম মিনিটে তার জোরাল শট প্রতিপক্ষের একজনের পায়ে লেগে ক্রসবার ঘেঁষে ভেতরে ঢুকতে যাচ্ছিল, কোনোমতে এক হাত দিয়ে ক্রসবারের ওপর দিয়ে পাঠান গোলরক্ষক। মেসির নেওয়া ওই কর্নারেই বক্সের অনেকটা বাইরে থেকে বুলেট গতির ভলি মারেন দি মারিয়া। তবে গোলরক্ষক বরাবর ছিল বলে ইতালির রক্ষা।

প্রবল চাপ ধরে রেখে পরের কয়েক মিনিটে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে আর্জেন্টিনা। সুযোগও আসতে থাকে অনেক। তিন মিনিটের মধ্যে দুই পাশ থেকে নিচু শটে চেষ্টা করেন মেসি, কিন্তু ঠেকিয়ে দেন দোন্নারুম্মা। মাঝে একবার তার বাড়ানো পাস ছয় গজ বক্সে ফাঁকায় পেয়েও পাশের জালে মারেন লাউতারো মার্তিনেস।

৬৯তম মিনিটে আরও একবার মেসিকে হতাশ করেন দোন্নারুম্মা। সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ীর জোরাল শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। পরের ১০ মিনিটে আরও দুটি শট নেন মেসি, কিন্তু মেলেনি তার গোলের দেখা।

পুরো ম্যাচে বল দখলে খুব একটা পিছিয়ে ছিল না ইতালি। তবে আক্রমণে বলা যায় কোনো নিয়ন্ত্রণই ছিল না তাদের। গোলের উদ্দেশ্যে সাতটি শট নিলেও তার অধিকাংশই ছিল এলোপাথাড়ি। বিপরীতে, আর্জেন্টিনা সবসময়ই ছিল বেশ গোছালো। দ্বিতীয়ার্ধে তো তাদের প্রতিটি আক্রমণেই জাগে গোলের সম্ভাবনা।

অবশেষে যোগ করা সময়ের চতুর্থ মিনিটে গিয়ে তৃতীয় গোলের দেখা মেলে। মাঝমাঠ থেকে দারুণ গতিতে আক্রমণে উঠে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে বলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন মেসি। ইতালি পারেনি ক্লিয়ার করতে, পরে আবার তার পা হয়েই যাওয়া বল ধরে ভেতরে ঢুকে নিচু কোনাকুনি শটে জালে পাঠান খানিক আগে জিওভানি লো সেলসোর বদলি নামা দিবালা।

পুরো ম্যাচেই প্রতিপক্ষকে কোণঠাসা করে রাখা আর্জেন্টিনা গোলের উদ্দেশ্যে মোট ১৯টি শট নেয়, যার মধ্যে আটটি ছিল লক্ষ্যে। নিশ্চিত অনেক সুযোগ নষ্ট না হলে ব্যবধান হতে পারত আরও বড়।

স্কোরলাইন আরও বড় না হলেও সেখানে মেসি ও তার সতীর্থদের দাপটের প্রমাণ পরিষ্কার। দারুণ একটি রেকর্ডও গড়া হয়ে গেছে তাদের।

২০১৯ সালের জুলাই থেকে কোনো ম্যাচ না হারা দলটি এই নিয়ে টানা ৩২ ম্যাচ অপরাজিত রইল। নিজেদের ইতিহাসে তাদের আগের রেকর্ড ছিল ৩১ ম্যাচের, ১৯৯১ থেকে ১৯৯৩ সালের মধ্যে করেছিল তারা।

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন ও কোপা আমেরিকা জয়ীর মধ্যে এমন ম্যাচের আয়োজন আগেও দুবার হয়েছে; ১৯৮৫ সালের প্রথম ম্যাচে উরুগুয়ের বিপক্ষে ফ্রান্স জিতেছিল ২-০ গোলে আর ১৯৯৩ সালে ডেনমার্কের বিপক্ষে ১-১ ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে জয়োল্লাস করেছিল আর্জেন্টিনা।

সেই হিসেবে বলা যায়, ২৭ বছর পর হলেও বিশেষ লড়াইয়ের শিরোপা ধরে রাখল আর্জেন্টিনা। সেই সঙ্গে ইতালির সঙ্গে মুখোমুখি লড়াইয়েও সমতা টানল তারা।

সব মিলিয়ে এই নিয়ে ১৬ বার মুখোমুখি হলো ইতালি ও আর্জেন্টিনা। দুই দলেরই জয় ৬ বার করে, বাকি ৪ ম্যাচ ড্র। আর প্রতিযোগিতামূলক ফুটবলে তাদের সবশেষ দেখা হয়েছিল ১৯৯০ বিশ্বকাপ সেমি-ফাইনালে। সেবার ১-১ ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে জিতেছিল আর্জেন্টিনা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক