সাগর উত্তাল, পর্যটকদের গোসলে নামতে মানা

তলিয়েছে পটুয়াখালী পৌর এলাকার বেশকিছু এলাকা।

পটুয়াখালী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 August 2022, 02:10 PM
Updated : 14 August 2022, 02:10 PM

নিম্নচাপের কারণে সাগর উত্তাল থাকায় পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সৈকতে পর্যটকদের নিরাপদে থাকতে মাইকিং করছে পুলিশ।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে দেশের চার সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত এবং নদীবন্দরকে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলার পর রোববার সকাল থেকেই সৈকতে নজরদারি বাড়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশ।

তবে পুলিশের মাইকিং উপেক্ষা করে উত্তাল ঢেউয়ের মধ্যে শত শত পর্যটক গোসলে নামেন। সকাল থেকেই বৃষ্টিতে ভিজে সৈকতে আসেন পর্যটকরা।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোনের ওসি হাসনাইন পারভেজ বলেন, “আবহাওয়ার পূর্বাভাসে সমুদ্রে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ায় সাগর উত্তাল রয়েছে। তাই পর্যটকদের নিরাপদে থাকার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

“উত্তাল ঢেউ তাই অনেক পর্যটক গোসলে নেমেছেন। সেজন্য আমরা মাইকিং করছি বার বার। তারা যেন সমুদ্রে না নামেন।”

ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে টহল বাড়ানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।

এদিকে পটুয়াখালী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুবা সুখী জানান, রোববার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

“বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। এতে বৃষ্টিধারা অব্যাহত থাকতে পারে। বাতাসের চাপ আরও বাড়তে পারে। উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।”

আবহাওয়ার এই অবস্থা ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলে জানান মাহবুবা সুখী।

কলাপাড়া রাডার স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফিরোজ কিবরিয়া বলেন, “সকাল ৬টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত ৪৯.৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।”

এদিকে বৃষ্টি, পূর্ণিমা আর নিম্নচাপের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকা পানিতে থৈ থৈ করছে।

জোয়ারে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চার থেকে পাঁচ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে বেশকিছু নিম্নাঞ্চল। জোয়ারের পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে গ্রামের পর গ্রামে।

শহর রক্ষা বাঁধ উপচে পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে পটুয়াখালী পৌর শহরের কলেজ রোড, মহিলা কলেজ রোড, পুরান বাজার, আদালত পাড়া, চরপাড়া, নিউমার্কেটসহ বেশকিছু এলাকা।

তলিয়ে গেছে আমনের বীজতলা, রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, পুকুর ও মাছের ঘের। এতে জনজীবন ব্যাহত হচ্ছে। ভোগান্তিতে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক