বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে ভালো: তথ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে ভালো বলে দাবি করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সংসদ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 June 2022, 04:52 PM
Updated : 27 June 2022, 04:52 PM

এই দাবির যৌক্তিকতা তুলে ধরতে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “কারণ বাংলাদেশে গুয়ানতানামো বে-র মতো কারাগার নেই, মা-বাবার কাছ থেকে শিশুদের বছরের পর বছর আলাদা করে রাখা হয় না। যুক্তরাষ্ট্রে সাত বছরে পুলিশের গুলিতে সাত হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।”

সোমবার জাতীয় সংসদে আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

পদ্মা সেতু নিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত সংবাদ উদ্ধৃত করে হাছান মাহমুদ বলেন, “বিশ্বের সব পত্রপত্রিকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রশংসা করছে। কিন্তু বিএনপি অভিনন্দন জানাতে পারেনি।

“বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ প্রধানন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন, কিন্তু অভিনন্দন জানাননি। পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপির গায়ে জ্বালা ধরে গেছে। এখন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মুখে কোনো কথা নেই।”

হার্ডিঞ্জ ব্রিজের সঙ্গে পদ্মা সেতুর তুলনা টেনে হাছান মাহমুদ বলেন, “স্বর্ণের মূল্যমান ধরে এখন হার্ডিঞ্জ ব্রিজ করতে হলে ব্যয় হত ৫৮ হাজার কোটি টাকা। আর পদ্মা সেতু করতে লাগত এক লাখ কোটি টাকা।”

ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, তুরস্ক, নেদারল্যান্ডসের চেয়ে বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি কম বলেও সংসদকে জানান তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “টিআইবি, সিপিডিসহ কয়েকটি সংস্থা এবং বিএনপি সবসময় বলে বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য নয়, বাজেট গরীবের কল্যাণে আসবে না। গত ১০–১২ বছর ধরে তারা একই কথা বলে আসছে। কিন্তু প্রতিবছরই বাজেট বাস্তবায়নের হার ৯৫ থেকে ৯৭ শতাংশ।

“এখন দারিদ্রের হার ৪১ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে নেমে এসেছে, মাথাপিছু আয় ৬০০ ডলার থেকে ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উন্নীত হয়েছে। এভাবেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।”

বাথরুম নিয়ে মুগ্ধ রাঙ্গাঁ

বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেন, “সংসদের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। আমাদের থাকার জায়গা, সংসদ সদস্য ভবনের ফ্ল্যাটগুলো এত সুন্দর হয়েছে যে, আমি যে বাড়ি ভাড়া করে থাকি তা ছেড়ে দিয়ে এখানে থাকব।

“বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ হিসেবে প্রাপ্ত আমার রুমটিতে গেলেই লাইট জ্বলে ওঠে। বেরিয়ে এলে লাইট বন্ধ হয়ে যায়। আগে সংসদের কোন বাথরুমে যেতে পারতাম না। এখন দেখি বাথরুম এত সুন্দর যে বসে মনে হয় নাস্তাও করা যাবে।”

বিএনপিকে বিরোধী দল উল্লেখ করে সংসদ সদস্যদের দেওয়া বক্তব্য একপাঞ্জ করার দাবি জানিয়ে রাঙ্গাঁ বলেন, “এই সংসদে আমরাই (জাপা) বৃহত্তর বিরোধী দল। এখানে কোন ভুল নেই। সংসদে অনেক সংসদ সদস্য বিএনপির সমালোচনা করতে গিয়ে সংসদে বিএনপিকে বিরোধী দল বলেন।

“সংসদে আমরা বৃহত্তর বিরোধী দল। আমরা বিরোধী দল এখানে কোন ভুল নেই। সংসদ সদস্যবৃন্দরা বিএনপিকে উদ্দেশ করে বিরোধী দল বলেছেন, তা একপাঞ্জ করার অনুরোধ করছি “

পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রসঙ্গ টেনে রাঙ্গাঁ বলেন, “প্রধানমন্ত্রী অনেক চেষ্টা করে, কষ্ট করে আজকে এই সেতুটি দাঁড় করিয়েছেন। এরকম একটি সম্ভাবনা আমি দেখেছিলাম উনার মধ্যে যে ‘এনি হাউ, এনি কস্ট’ এটা করতে হবে। উনি এটা করেছেন।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক