আউট হওয়া ব্যাটসম্যানের বদলি খেলোয়াড়ও করতে পারবেন ব্যাটিং

সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতে ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নিয়ম চালু করতে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Sept 2022, 04:06 PM
Updated : 17 Sept 2022, 04:06 PM

আগে ব্যাটিংয়ে নেমে কোনো দল শুরুতেই হারিয়ে ফেলল চার-পাঁচটি উইকেট। চ্যালেঞ্জিং পুঁজি গড়তে আউট হওয়া কোনো ব্যাটসম্যানের বদলি হিসেবে একাদশের বাইরে থেকে আনা হলো আরেক জন ব্যাটসম্যানকে। যিনি ব্যাটিংও করতে পারবেন। অবাক হচ্ছেন কিংবা খটকা লাগছে? এমন কিছুই দেখা যাবে ভারতের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতে।       

টুর্নামেন্টটিতে বদলি খেলোয়াড়ের চমকপ্রদ এই নিয়ম চালু করতে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড-বিসিসিআই। যেটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার।’ এই নিয়মে ম্যাচ চলাকালীন দলগুলো তাদের একাদশের একজন খেলোয়াড়কে বদল করতে পারবে। আর বদলি খেলোয়াড় ব্যাটিং-বোলিং সবই করতে পারবেন।

ক্রিকেট ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফোর খবর, সব রাজ্য অ্যাসোসিয়েশনে ইমেইল পাঠিয়ে এই নিয়মের বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেছে বিসিসিআই। প্রতিটি ম্যাচেই দলগুলো একজন বদলি খেলোয়াড় নামাতে পারবে। এই মৌসুম থেকেই নিয়মটি কার্যকর হবে।

বিসিসিআই গত কয়েক বছর ধরে আইপিএলে এই নিয়মটি চালু করতে আগ্রহী ছিল। কিন্তু সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতে প্রথম এটি চালু করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে বলে মনে করছে তারা। এখানে সফল হলে ২০২৩ আইপিএলেও দেখা যেতে পারে নিয়মটি।

এই নিয়ম কৌশলগত দৃষ্টিকোণ থেকে অংশগ্রহণকারী দল ও দর্শকদের জন্য ২০ ওভারের ক্রিকেটকে আরও বেশি আকর্ষণীয় ও উত্তেজনাপূর্ণ করবে বলে মনে করছে ভারতের বোর্ড। ফুটবল, রাগবি, বাস্কেটবলের মতো খেলা থেকে বদলি খেলোয়াড়ের এই নিয়ম প্রবর্তনে উৎসাহ পেয়েছে তারা।

নিয়মটি যেভাবে কাজ করবে

টসের সময় দুই দল তাদের খেলোয়াড় তালিকায় একাদশের সঙ্গে চার জন বদলি খেলোয়াড়ের নাম দেবে। এই চার জনের মধ্যে থেকে একজনকে ম্যাচ চলাকালীন ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

কোনো ইনিংসের ১৪তম ওভার শেষ হওয়ার আগে যেকোনো সময়ে শুরুর একাদশের যে কারও জায়গায় বদলি খেলোয়াড় নামানো যাবে এবং তিনি ব্যাটিং ও বোলিং করতে পারবেন। যেমন, আউট হয়ে যাওয়া একজন ব্যাটসম্যানের বদলি নামানো খেলোয়াড়ও ব্যাটিং করতে পারবেন। তবে দলটির হয়ে ব্যাট করবে শুধু ১১ জনই। আবার একজন বোলার হয়তো কয়েক ওভার বোলিং করে ফেলেছেন, তার বদলি নামা খেলোয়াড় নিজের কোটার চার ওভার বোলিং করতে পারবেন।  

বিগ ব্যাশের এক্স-ফ্যাক্টর ও ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার নিয়মের পার্থক্য 

২০০৫ সালে ওয়ানডে ক্রিকেটে চালু করা হয়েছিল ‘সুপার-সাব।’ সেই পরীক্ষা যদিও সফল হয়নি মোটেও। ওই নিয়মে মূল খেলোয়াড় ব্যাটিংয়ে আউট হয়ে গেলে বদলি খেলোয়াড় ব্যাট করতে পারতেন না এবং যার বদলি নামতেন শুধুমাত্র তার কোটার বাকি ওভার বল করতে পারতেন।

অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট বিগ ব্যাশে ২০২০ সালে চালু করা হয় ‘এক্স-ফ্যাক্টর’ নিয়ম। এই নিয়মে প্রথম ইনিংসের ১০ ওভারের পর বদলি ক্রিকেটার নিতে পারবে দুই দলই। প্রথম ১০ ওভারের মধ্যে যে ক্রিকেটার ব্যাট করেননি কিংবা ১ ওভারের বেশি বল করেননি, কেবল তাদেরই বদলি নেওয়া যাবে।

দলগুলো যেমন সুবিধা পাবে

‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নিয়মে টসের প্রভাব কমে যাবে কিছুটা। যেমন, কোনো দল টসে হারল এবং শিশির ভেজা উইকেটে দ্বিতীয় ইনিংসে তাদের বোলিং করতে হবে। সেই চ্যালেঞ্জের জন্য তারা বোলিং আক্রমণ শক্তিশালী করার সুযোগ পাবে। একইভাবে, ব্যাটসম্যানদের জন্য কঠিন উইকেটে পরে ব্যাট করা দল বাড়তি ব্যাটসম্যান নিয়ে তাদের ব্যাটিং লাইনআপ শক্তিশালী করতে পারবে। ম্যাচের সময় চোট পাওয়া খেলোয়াড়ের প্রভাব কমাতেও সহায়তা করবে এই নিয়ম। 

ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে গেলে কী হবে

ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে গেলেও ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নেওয়া যাবে। তবে কোনো কারণে ম্যাচের দৈর্ঘ্য ১০ ওভারের কম হলে এই নিয়ম কার্যকর হবে না। প্রতি ইনিংস ১০ বা এর বেশি হলে বদলি খেলোয়াড় নামানোর একটি 'কাট অফ' সময় থাকবে। যেমন, ১৭ ওভারের ইনিংস হলে ১৩তম ওভার শেষ হওয়ার আগে বদলি খেলোয়াড় নামানো যাবে। ১১ ওভারের ইনিংস হলে নবম ওভার শেষ হওয়ার আগে খেলোয়াড় বদল করা যাবে। 

পূর্ণাঙ্গ টি-টোয়েন্টি হিসেবে শুরু হওয়া ম্যাচে ওভার কমানোর আগে প্রথমে ব্যাট করা দল যদি অন্তত ১০ ওভার না খেলে বা ইনিংস শেষ হয়ে যায়, তাহলে আরও ওভার কমানো হলেও দুই দলই ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ ব্যবহার করতে পারবে।

আর যদি এমন হয় যে, একটি দল ইতিমধ্যেই ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ ব্যবহার করে ফেলেছে, কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংস ১০ ওভারের কম করা হয়, তারপরও অন্য দলটি ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ ব্যবহার করতে পারবে। যেমন, ৯ ওভারের ইনিংসে সপ্তম ওভার শেষ হওয়ার আগে বা ৫ ওভারের ইনিংসে তৃতীয় ওভার শেষ হওয়ার আগে বদলি নামানো যাবে।

আরও যা কিছু জানা দরকার

‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ শুধুমাত্র ওভার শেষ হওয়ার পর নেওয়া যাবে, ওভারের মাঝখানে নয়। দুটি ক্ষেত্রে অবশ্য ব্যতিক্রম থাকবে। ব্যাটিং দল উইকেট পতনের সময় আর ফিল্ডিং দল চোট পাওয়া খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে ওভারের মাঝে বদলি নামাতে পারবে।

যার বদলি নামানো হবে, তিনি ম্যাচে আর অংশ নিতে পারবেন না, এমনকি বদলি ফিল্ডার হিসেবেও নয়।

আবার কোনো বোলার হয়তো এক ওভারে দুটি ‘বিমার’ মেরে বোলিংয়ে নিষিদ্ধ হলো, তার বদলি হিসেবেও ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নেওয়া যাবে, তবে তিনি বোলিং করতে পারবেন না।    

অধিনায়ক, টিম ম্যানেজার কিংবা প্রধান কোচ চলমান ওভার শেষ হওয়ার আগে ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নামানোর বিষয়ে অনফিল্ড আম্পায়ার অথবা চতুর্থ আম্পায়ারকে অবগত করবেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক