শুভাগতর সেঞ্চুরি, রাহাতুলের ৭ উইকেট

জাতীয় ক্রিকেট লিগে প্রত্যাশিত সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন শুভাগত হোম চৌধুরি। তবে রাহাতুল ফেরদৌসের দুর্দান্ত বোলিংয়ে তিনশর আগেই গুটিয়ে গেছে ঢাকা বিভাগের প্রথম ইনিংস। দ্বিতীয় ইনিংসে আসাদুল্লাহ আল গালিবের ব্যাটে লড়াইয়ের পুঁজি গড়ছে সিলেট বিভাগ।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 March 2021, 01:05 PM
Updated : 31 March 2021, 01:56 PM

প্রথম স্তরের ম্যাচে বুধবার দ্বিতীয় ইনিংসে সিলেটের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮৩ রান। তৃতীয় দিন শেষে হাতে চার উইকেট নিয়ে তারা ২৭৩ রানে এগিয়ে।

৭৪ রানে ব্যাট করছেন আসাদুল্লাহ, ২৪ রানে অভিষিক্ত তানজিম হাসান। অবিচ্ছিন্ন সপ্তম উইকেট জুটিতে তারা যোগ করেছেন ৬১ রান।

প্রথম ইনিংসে ঢাকা করে ২৮০ রান।

আগের দিন ৮৯ রানে অপরাজিত থাকা শুভাগত তুলে নেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে নিজের ত্রয়োদশ সেঞ্চুরি (১১৪)।

রাহাতুল ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৭৫ রানে নেন ৭ উইকেট। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ২৫ বছর বয়সী বাঁহাতি স্পিনার আগের সেরা ৫/৪৮। এদিন ঢাকার শেষ চার উইকেটই নেন তিনি।

কক্সবাজারের শেখ কামাল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম একাডেমি মাঠে ৬ উইকেটে ২৩৯ রান নিয়ে দিন শুরু করে প্রথম রাউন্ডে রংপুরকে হারানো ঢাকা। আগের দিনের শুভাগত ও আরাফাত সানি জুনিয়রের ৬৯ রানের জুটি এদিন যোগ করে আরও ৩১ রান।

এদিন ৩ রান যোগ করে ৩৭ রানে মিড উইকেটে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সানি জুনিয়র। ভাঙে সপ্তম উইকেটে ১০০ রানের জুটি।

এর আগেই ফাইন লেগ দিয়ে তানজিমকে ছক্কা হাঁকিয়ে তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন শুভাগত। এজন্য তার লাগে কেবল ১০৭ বল। এরপর অবশ্য বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। তাকে বোল্ড করে ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো রাহাতুল পূর্ণ করেন ৫ উইকেট।

১৩৩ বলে ১৩ চার ও দুই ছক্কায় ১১৪ রান করা শুভাগতর পর নাজমুল ইসলাম অপু ও সালাউদ্দিন শাকিলকেও বোল্ড করে দ্রুত ঢাকার ইনিংস গুটিয়ে দেন রাহাতুল।

ঢাকা এদিন যোগ করতে পারে ৪১ রান।

৯০ রানে এগিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা সিলেটের শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় ৯ রানে শানাজ আহমেদকে কট বিহাইন্ড করেন তরুণ বাঁহাতি পেসার সুমন খান।

অমিত হাসানকে এলবিডব্লিউ করে দ্বিতীয় উইকেটে ৩৩ রানের সম্ভাবনাময় জুটি ভাঙেন তাইবুর রহমান। এরপর জোড়া আঘাত হানেন শুভাগত। তার পরপর দুই ওভারে ওপেনার সায়েম আলম মিড অফে ক্যাচ দেওয়ার পর এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন জাকের আলি।

এরপর দেখা মেলে দিনের সবচেয়ে বড় জুটির। জাকির হাসান ও আসাদুল্লাহ যোগ করেন ৬৪ রান।

প্রথম ইনিংসে ১৫৯ রান করা জাকিরকে বোল্ড করে ১৫২ বল স্থায়ী জুটি ভাঙেন ডান হাতি অফ স্পিনার সাইফ হাসান। পরের বলে তিনি রাহাতুলকে ক্যাচ বানান শর্ট পয়েন্টে।

এরপর বিপদ বাড়তে দেননি আসাদুল্লাহ ও তানজিম। প্রথম ইনিংসের ক্যারিয়ার সেরা ৬৭ ছাড়িয়ে ১৩৭ বলে ৭ চার ও এক ছক্কায় ৭৪ রানে অপরাজিত আছেন আসাদুল্লাহ। গত বছরের যুব বিশ্বকাপের ফাইনালের পর প্রথম খেলতে নামা তানজিম অপরাজিত ২৪ রানে।

আলোকস্বল্পতার কারণে আগেভাগেই শেষ হয় দিনের খেলা।

১২ ওভারে ১৯ রানে ২ উইকেট নিয়ে ঢাকার সেরা বোলার সাইফ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

সিলেট প্রথম ইনিংস: ১১৪.৪ ওভারে ৩৭০ রান।

ঢাকা প্রথম ইনিংস: (আগের দিন ২৩৯/৬) ৭৯.১ ওভারে ২৮০ (শুভাগত ১১৪, সানি জুনিয়র ৩৭, সুমন ৬, অপু ০, সালাউদ্দিন ২; আবু জায়েদ ১৭-২-৪৭-০, রুয়েল ১৫-২-৪৪-১, তানজিম ১৬-১-৬৩-২, রাহাতুল ২২.১-৩-৭৫-৭, এনামুল জুনিয়র ৯-২-৪৫-০)

সিলেট দ্বিতীয় ইনিংস: ৬৪.৪ ওভারে ১৮৩/৬ (সায়েম ৩১, শানাজ ১, অমিত ১১, জাকির ৩৩, জাকের ২, আসাদুল্লাহ ৭৪*, রাহাতুল ০, তানজিম ২৪*; সুমন ১২-৫-২৩-১, শাকিল ৩-১-৫-০, অপু ১৩-১-৪১-০, সানি জুনিয়র ৫-০-২৫-০, তাইবুর ৭-০-১৮-১, শুভাগত ১২.৪-১-৩৯-২,  সাইফ ১২-৪-১৯-২)

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক