ঢাবির ৫৩তম সমাবর্তনের নিবন্ধন শুরু

আগামী ২৬ অক্টোবরের মধ্যে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Oct 2022, 02:05 PM
Updated : 7 Oct 2022, 02:05 PM

আগামী ১৯ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩তম সমাবর্তনের নিবন্ধন শুরু হয়েছে।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ সমাবর্তনে অংশ নিতে ৭ অক্টোবর থেকে আগামী ২৬ অক্টোবর রাত ১১:৫৯টার মধ্যে অনলাইনে (https://convocation.du.ac.bd) আবেদন করতে হবে।

২৬ অগাস্ট ২০১৯ থেকে চলতি বছরের ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও তার অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠান থেকে স্নাতক, স্নাতকোত্তর, এমফিল, ডিবিএ ও পিএইচডি উত্তীর্ণরা এ সমাবর্তনে অংশ নিতে পারবেন।

মহামারীর কারণে প্রায় তিন বছর বিরতির পর সমাবর্তন আয়োজন করতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১৯ নভেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এই সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে।

আর অধিভুক্ত ঢাকা কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, সরকারি বাঙলা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজের জন্য ঢাকা কলেজ ক্যাম্পাস এবং ইডেন মহিলা কলেজ ও বেগম বদরুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজের জন্য ভেন্যু হবে ইডেন মহিলা কলেজ ক্যাম্পাস।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ এ সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন।

সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন নোবেল বিজয়ী ফরাসি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. জ্যাঁ তিরোল।

সমাবর্তনে অংশ নেওয়ার প্রক্রিয়ার বিষয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অনলাইনে ফরম পূরণ করে নির্ধারিত ফি আগামী ২৭ অক্টোবরের মধ্যে বিকাশ অথবা সোনালী ব্যাংকের সোনালী সেবার মাধ্যমে (ব্যাংকিং সময়ের মধ্যে) জমা দিতে হবে।

এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে সমাবর্তনের নিবন্ধন ও সনদ উত্তোলনের আবেদন ফরম আগামী ৩০ অক্টোবর বিকাল ৪টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট হল অফিস এবং অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের গ্র্যাজুয়েটদের নিজ নিজ কলেজে জমা দিতে হবে। পিএইচডি, ডিবিএ, এমফিল ডিগ্রিধারীদের একই প্রক্রিয়ায় নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে আবেদন ফরম জমা দিতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫২তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৯ সালের ৯ ডিসেম্বর। সেখানে ২০ হাজার ৭৯৬ জন গ্র্যাজুয়েট, ৭৯ জন কৃতি শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীকে ৯৮টি স্বর্ণপদক, ৫৭ জনকে পিএইচডি, ৬ জনকে ডিবিএ এবং ১৪ জনকে এমফিল ডিগ্রি দেওয়া হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক