চীন সীমান্তের কাছে যুক্তরাষ্ট্র–ভারতের সামরিক মহড়া অক্টোবরে

প্রতিবেশী চীনের সঙ্গে যে অঞ্চলে সীমান্ত নিয়ে ভারতের দ্বন্দ্ব চলছে সেই লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) থেকে মহড়াস্থল মাত্র ৯৫ কিলোমিটার দূরে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 August 2022, 02:05 PM
Updated : 7 August 2022, 02:05 PM

যুক্তরাষ্ট্র আগামী অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সময়ে ভারতের সঙ্গে বিতর্কিত চীন সীমান্তের কাছে একটি যৌথ সমরিক মহড়ায় অংশ নেবে।

এ বিষয়ে ওয়াকিবহাল নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতীয় এক সেনা কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, ভারতের উত্তরাখণ্ডের আউলিতে ১০ হাজার ফুট উঁচুতে অনুষ্ঠিত হবে এ মহড়া।

প্রতিবেশী চীনের সঙ্গে যে অঞ্চলে সীমান্ত নিয়ে ভারতের দ্বন্দ্ব চলছে সেই লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) থেকে মহড়াস্থল মাত্র ৯৫ কিলোমিটার দূরে।

মহড়ায় মূলত অনেক উঁচু এলাকায় যুদ্ধের প্রশিক্ষণ দেওয়ার উপর বেশি মনোনিবেশ করা হবে বলেও জানান ওই সেনা কর্মকর্তা।

এলএসি দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল, যেখানে ১৯৬২ সালের যুদ্ধের পর ভারত ও চীনের বিতর্কিত সীমান্ত মোটামুটিভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

‘ইয়ুধ অভ্যাস’ বা ‘যুদ্ধ অনুশীলন’ শীর্ষক এ মহড়াটি ভারত-যুক্তরাষ্ট্রের ১৮তম বার্ষিক যৌথ সামরিক মহড়ার অংশ।

২০২০ সালের জুন মাসে হিমালয় অঞ্চলের সীমান্তে চীন ও ভারতের সেনাদের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়। পরে চীন জানায় তাদেরও চার সেনা ওই সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছে।

কোনও আগ্নেয়াস্ত্র ছাড়াই ওই সংঘাতে এত সেনার প্রাণহানি বিশ্ববাসীকে হতবাক করেছিল। ওই সংঘাতের পর থেকে ভারত-চীন সম্পর্কে উত্তেজনা বেড়েছে।

সম্প্রতি চীন সীমান্তের প্যাংগং সো হ্রদের উপর একটি সেতু নির্মাণ কাজ শুরু করার ফলে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা আরও বেড়েছে। চীনের ওই উদ্যোগকে ‘অবৈধ দখলদারিত্ব’ বলে অভিহিত করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ভারত।

এবছর ভারত সফরের সময় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর প্যাসিফিক কমান্ডিং জেনারেল চার্লস ফ্লিন বিতর্কিত সীমান্তের কাছে চীনের সামরিক উপস্থিতি বাড়ানোর ঘটনাকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে মন্তব্য করেন।

যৌথ মহড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র সিএনএন-কে বলেন, ‘‘ভারতের সঙ্গে আমাদের অংশীদারত্বকে আমরা মুক্ত ও অবাধ ইন্দ-প্যাসিফিক মহাসাগরীয় অঞ্চলের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলোর একটি বলে মনে করি।”

‘‘এই বৃহত্তর প্রচেষ্টার একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের মধ্যে রয়েছে অনুশীলন এবং প্রশিক্ষণ কার্যক্রম।”

“ইয়ুধ অভ্যাস এমনই একটি বার্ষিক দ্বিপাক্ষিক অনুশীলন যা আন্তঃকার্যকারিতা উন্নত করতে ও বিভিন্ন আঞ্চলিক নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদের নিজ নিজ সক্ষমতা উন্নত করার লক্ষ্যে পরিকল্পনা করা হয়েছে।”

গত মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরের জেরে ‘কঠোর সামরিক প্রতিক্রিয়া’ দেখাতে তাইওয়ান ঘিরে সমুদ্র ও আকাশে নজিরবিহীন সামরিক মহড়া চালাচ্ছে চীন। রোববার ওই মহড়া শেষ হওয়ার কথা।

এবার নিজেদের সীমান্তের এত কাছে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত আসন্ন যৌথ সামরিক মহড়ায় চীন কী প্রতিক্রিয়া দেখায় সেটিই এখন দেখার বিষয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক