ঘুষ: আমৃত্যু কারাগারে থাকতে হবে চীনের সাবেক বিচারমন্ত্রীকে

কংগ্রেসের আগে দলে শি জিনপিংয়ের অনুগত নন এমন ব্যক্তিদের ওপর দমনপীড়ন ও চাপ বাড়ছে, তারই অংশ হিসেবে এ সাজা বলে ধারণা অনেকের।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Sept 2022, 11:56 AM
Updated : 22 Sept 2022, 11:56 AM

ঘুষ গ্রহণের দায়ে চীনের সাবেক বিচারমন্ত্রী ফু ঝেংহুয়া আমৃত্যু কারাদণ্ডের সাজা ভোগ করতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম।

ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিসি) কংগ্রেসের কয়েক সপ্তাহ আগে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের অনুগত নয় এমন কর্মকর্তাদের ছেঁটে ফেলতে পদক্ষেপ জোরদার করা হয়েছে, এর মধ্যেই তার এ সাজা মিলল।

৬৭ বছর বয়সী ফুকে মূলত স্থগিত মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

তবে অপরাধ স্বীকার করে অনুতপ্ত হওয়ায় এবং অবৈধভাবে অর্জিত অর্থ ফেরতে সহায়তায় তার সাজা কমানোর আবেদনও গৃহীত হয়েছে।

দুই বছর পর তার মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড করা হতে পারে, তবে এক্ষেত্রেও তিনি প্যারোলে মুক্তি পাবেন না, বলেছে চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম।

২০১৮ সালে বিচারমন্ত্রী হওয়ার আগে জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান ছিলেন ফু, তিনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্তের নেতৃত্বে ছিলেন।

প্রায় এক দশক আগে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির প্রভাবশালী নেতা ঝোউ ইয়ংকাংয়ের বিরুদ্ধে ঘুষ লেনদেনের অভিযোগ তদন্তেও নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ফু।

আর এ বছরের জুলাইয়ে তিনি নিজেই ১৬ কোটি ৫০ লাখ ডলারের বেশি ঘুষ নেওয়ার কথা স্বীকার করেন।

উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় শহর চাংচুনের আদালতে ফু-র বিচার হয়, তিনি সান লিজুনের ‘পলিটিকাল গ্যাংয়ের’ সদস্য বলেও অভিযোগ আছে।

২০১৫ সালে ঝোউ সাজা পাওয়ার পর নিরাপত্তা বাহিনীগুলো সিপিসির যে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের পেছনে লাগে, সান তার অন্যতম।

২০২০ সালে তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর সময়ও সান জননিরাপত্তা বিভাগের উপমন্ত্রী ছিলেন; চলতি বছরের জানুয়ারিতে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে ব্যক্তিগত লাভের জন্য কিছু আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশে দুর্নীতি করেছিলেন বলে তিনি স্বীকারও করে নিয়েছিলেন।

তার বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের কর্তৃত্বকে মেনে না নেওয়ারও অভিযোগ আছে।

সানের অপরাধের সাজা এখনও ঘোষণা করা হয়নি। তার প্রভাব দলের ভেতর এতদূর ছড়িয়ে গিয়েছিল যে পরে সিপিসি সেই প্রভাবকে ‘বিষাক্ত’ এবং সানকে ‘ক্যান্সান সমতুল্য’ অ্যাখ্যা দিয়ে এই প্রভাব ছেঁটে ফেলা দরকার বলে মন্তব্য করে।

দুর্নীতির দায়ে বুধবার সাংহাই, চংকিং ও শানজি প্রদেশের তিন সাবেক পুলিশ প্রধানকেও কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। 

ফু’র মতো এই তিনজনের বিরুদ্ধেও তারা সানের উপদলের সদস্য এবং শি-র অনুগত নন বলে অভিযোগ আছে।

তিন সপ্তাহ পর চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি তাদের কংগ্রেস করতে যাচ্ছে। সাধারণত ৫ বছর পরপরই এই কংগ্রেস হয়, যাতে নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত নেওয়ার পাশাপাশি ঠিক হয় নতুন নেতৃত্ব।

এবারের কংগ্রেসেও শি-ই দলের শীর্ষ নেতা হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তার নেতৃত্বে থাকা নিশ্চিত করতে সংবিধানে পরিবর্তন আনা হয়েছে।

কংগ্রেসের আগে দলে শি-র অনুগত নন এমন ব্যক্তিদের ওপর দমনপীড়ন ও চাপ বাড়ছে, তারই অংশ হিসেবে ফু-সহ অন্যদের সাজা মিলছে বলে অনেকের ধারণা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক