রাশিয়ার ছেড়ে যাওয়া আরও অংশের ‘পুনর্দখল নিল’ ইউক্রেইন

উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় খারকিভ থেকে রুশ সেনাদের তাড়িয়ে দেওয়ার পর থেকেই ইউক্রেইনীয় সেনারা লুহানস্কে ঢোকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Sept 2022, 08:47 AM
Updated : 20 Sept 2022, 08:47 AM

ইউক্রেইনের পূর্বাঞ্চলে সম্প্রতি রুশ বাহিনীর ছেড়ে যাওয়া ভূখণ্ডের আরও ভেতরে তাদের সেনারা অগ্রসর হয়েছে বলে দাবি করেছে কিইভ।

এর মাধ্যমে পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে আরও অস্ত্র চাওয়া কিইভ দনবাসে মস্কো ও তার সমর্থনপুষ্ট বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্ভাব্য আক্রমণের পথ করে নিচ্ছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

“দখলদাররা সুস্পষ্টতই আতঙ্কের মধ্যে আছে,” সোমবার রাতে টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ভাষণে এমনটাই বলেছেন ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

মুক্তাঞ্চলে ‘অগ্রগতির’ দিকেই মনোযোগ এখন তার।

“যে গতিতে আমাদের সৈন্যরা এগুচ্ছে, এটি স্বাভাবিক জীবন পুনঃপ্রতিষ্ঠার গতি,” বলেছেন তিনি।

ইউক্রেইনে অস্ত্র ও ত্রাণ সহায়তার গতি বাড়াতে পশ্চিমা দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বুধবার তিনি ভিডিওর মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণ দিতে পারেন বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন।

“প্রতিরক্ষা, আর্থিক, অর্থনৈতিক, কূটনৈতিক সব পর্যায়ে ইউক্রেইনের প্রয়োজন মেটাতে সম্ভব সব কিছু করবো আমরা,” বলেছেন জেলেনস্কি।

লুহানস্কের ইউক্রেইনীয় গভর্নর সের্গেই হাইদাই বলেছেন, ইউক্রেইনের সেনারা বিলোহোরিভকা গ্রামের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে এবং সমগ্র লূহানস্ক প্রদেশ পুনর্দখলে প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিলোহোরিভকা লিসিচ্যাংস্ক শহরের মাত্র ১০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত। কয়েক সপ্তাহের তুমুল লড়াইয়ের পর জুলাইয়ে রাশিয়া ইউক্রেইনীয় সেনাদের কাছ থেকে শহরটির দখল নিয়েছিল।

“প্রতিটি ইঞ্চির জন্য লড়াই হবে। শত্রুরা প্রতিরক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তাই আমরা খুব সহজে সেখানে ঢুকে পড়তে পারবো না,” বলেছেন তিনি।

এই লুহানস্ক এবং দোনেৎস্ক মিলেই শিল্পসমৃদ্ধ দনবাস; এ অঞ্চলকে মুক্ত করাই ইউক্রেইনে তাদের ‘বিশেষ সামরিক অভিযানের’ প্রাথমিক লক্ষ্য, বলছে মস্কো।

চলতি মাসে ‘বজ্রগতিতে’ আক্রমণ চালিয়ে উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় খারকিভ থেকে রুশ সেনাদের তাড়িয়ে দেওয়ার পর থেকেই ইউক্রেইনীয় সেনারা লুহানস্কে ঢোকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

কিইভের এই ‘পাল্টা আক্রমণে বিচলিত বোধ’ করেই সম্ভবত দনবাসের মস্কো-সমর্থিত প্রশাসনের নেতারা অঞ্চলটিকে রাশিয়ার অংশ বানাতে গণভোট আয়োজনের প্রস্তুতি নিতে ডাক দিয়েছেন।

দোনেৎস্কের মস্কো সমর্থিত প্রশাসনের প্রধান ডেনিস পুশিলিন লুহানস্কের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাকে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার গণভোটের প্রস্তুতি একসঙ্গে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন।

এদিকে দক্ষিণে ইউক্রেইনের ‘পাল্টা আক্রমণ’ শম্ভুকগতিতে এগুচ্ছে। ইউক্রেইনের সশস্ত্র বাহিনী বলেছে, তারা খেরসনে নোভা কাখোভকার কাছে একটি নদীতে রুশ সেনা ও সরঞ্জামভর্তি একটি বার্জ ডুবিয়ে দিয়েছে।

“নদী পার হতে ক্রসিং বানাতে তাদের চেষ্টা ইউক্রেইনের গোলার মুখে ব্যর্থ ও স্থগিত হয়ে গেছে। বার্জটি তাদের সাবমেরিন বাহিনীতে সংযোজিত হয়েছে,” ফেইসবুকে দেওয়া বিবৃতিতে এমনটাই বলেছে ইউক্রেইনের সামরিক বাহিনী।

যুদ্ধক্ষেত্রের এসব ভাষ্যের সত্যতা রয়টার্স যাচাই করতে পারেনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক