আবারও ইরাকের পার্লামেন্টে আল-সদর সমর্থকদের তাণ্ডব

শিয়া নেতা মুকতাদা আল-সদর ইরাকের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরান উভয় দেশের প্রভাবের অবসান চান।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 July 2022, 04:32 PM
Updated : 30 July 2022, 04:32 PM

এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মত ইরাকের পার্লামেন্টে তাণ্ডব চালিয়েছে দেশটির প্রভাবশালী ধর্মগুরু মুকতাদা আল-সদরের দল ‘সদরিস্ট মুভমেন্ট’র সমর্থকরা।

তারা রাজধানী বাগদাদের উচ্চ নিরাপত্তা অঞ্চল ‘গ্রিন জোন’র সুরক্ষা লঙ্ঘন করে সেখানে ঢুকে বিক্ষোভ দেখিয়েছে।

বিবিসি জানায়, তাদের বিক্ষোভের কারণ দেশটির প্রধানমন্ত্রী পদে মুকতাদা আল-সদরের প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানপন্থি নেতা মোহাম্মদ আল-সুদানি কে মনোনয়ন দেওয়া।

গত বুধবার একই কারণে আল-সদরের সমর্থকরা পার্লামেন্টে বিক্ষোভ করেছিলো।

শনিবারের বিক্ষোভে ১২০ জনের বেশি মানুষ আহত হয়েছেন।

আহতদের মধ্যে প্রায় একশ জন বেসামরিক নাগরিক। আর প্রায় ২৫ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য। আহতদের মধ্যে ছয়জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানায় ইরাকের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

গত বছর অক্টোবরে ইরাকের জাতীয় নির্বাচনে শিয়া নেতা আল-সদরের জোট বেশিরভাগ আসনে জেতে। কিন্তু রাজনৈতিক অচলাবস্থার কারণে তারা এখনো সরকার গঠন করতে পারেনি।

আল-সদর ইরাকের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরান উভয় দেশের প্রভাবের অবসান চান। তাই তিনি প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে জোট গড়তে অস্বীকার করেছেন। যার ফলে নির্বাচনের পর আট মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও নতুন সরকার গড়তে পারছে না কেউ।

শিয়া দলগুলোর জোট ‘দ্য শিয়া-লিড কো-অর্ডিনেশন ফ্রেমওয়ার্ক’ দেশের জনগণকে ‘শান্তিপূর্ণভাবে’ বিক্ষোভ প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছে। কো-অর্ডিনেশন ফ্রেমওয়ার্কই আল-সুদানিকে প্রধানমন্ত্রী পদ মনোনয়ন দিয়েছে।

শনিবার আল-সদরের সমর্থকরা পরবর্তী নোটিস না পাওয়া পর্যন্ত পার্লামেন্টে ভবন দখল করে রাখার প্রতিজ্ঞা করেছে বলে জানায় বিবিসি।

ইরাকের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মুস্তফা আল-কাধিমি নিরাপত্তা বাহিনীকে ‘বিক্ষোভকারীদের সুরক্ষা দিতে’ নির্দেশ দিয়েছেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক