টিকটকার কর্মীকে ছাঁটাইয়ের হুমকি দিয়েছে অ্যাপল

ক্রেতা, সহকর্মী এবং প্রতিষ্ঠানের গোপন তথ্য শেয়ার করা নিয়ে সতর্ক করে দেওয়া হলেও সার্বিক প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করাতে কোনো বিধিনিষেধ নেই অ্যাপলের নীতিমালায়।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 August 2022, 11:00 AM
Updated : 16 August 2022, 11:00 AM

টিকটক ভিডিওতে আইফোন নিরাপত্তা নিয়ে টিপস দেওয়ায় এক কর্মীকে ছাঁটাইয়ের হুমকি দিয়েছে প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল।

প্যারিস ক্যাম্পবেল নামের ওই কর্মীকে অ্যাপল বলেছে, টিকটকে অ্যাপল কর্মী হিসেবে নিজের পরিচয় দিয়ে এবং অ্যাপল পণ্য সংশ্লিষ্ট কনটেন্ট তৈরি করে কোম্পানির নীতিমালা ভেঙেছেন তিনি।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ জানিয়েছে, অ্যাপলে সামাজিক মাধ্যম নীতিমালায় ক্রেতা, সহকর্মী এবং প্রতিষ্ঠানের গোপন তথ্য শেয়ার করার বিষয়ে সতর্ক করে দেওয়া আছে কর্মীদের। তবে, সার্বিক প্রযুক্তি নিয়ে কনটেন্ট পোস্ট করার ওপর কোনো বিধিনিষেধ দেওয়া নেই এতে।

সামাজিক মাধ্যমে কর্মীদের উপস্থিতি নিয়ে কোম্পানির অভ্যন্তরীণ নথিপত্রে বলা আছে, “আমরা চাই, আপনারা নিজের মতোই থাকুন। কিন্তু পোস্ট, টুইট এবং অন্যান্য অনলাইন যোগাযোগে শ্রদ্ধাশীল থাকা উচিত আপনার।”

ভার্জ জানিয়েছে, নিউ ইয়র্কের বাসিন্দা ক্যাম্পবেল অ্যাপলে কাজ করছেন প্রায় ছয় বছর ধরে। গত সপ্তাহে সম্প্রতি আইফোন হারানো আরেক টিকটকারের ভিডিওতে সাড়া দিয়ে নিজে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন তিনি।

আইফোন খোয়ানো ওই টিকটকার মেসেজে হুমকি পাচ্ছিলেন যে আইফোনটি তার অ্যাপল আইডি থেকে বিচ্ছিন্ন না করলে তার সকল ব্যক্তিগত তথ্য কালোবাজারে বেচে দেওয়া হবে। ওই টিকটকারকে দুশ্চিন্তা থেকে রেহাই দিতে নিজের টিকটক ভিডিওতে ক্যাম্পবেল বলেন–

“আমি ঠিক কীভাবে এই তথ্যগুলো জানি সেটা আপনাদের বলতে পারবো না, কিন্তু আমি আপনাকে এটা বলতে পারি যে গত ছয় বছর ধরে আমি একটি বিশেষ কোম্পানির হার্ডওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করছি যেটি কি না একটি ফল নিয়ে কথা বলতে খুব পছন্দ করে। আপনার ফোনটি আসলে তাদের (চোর) কোনো কাজেই আসবে না। কেবল আপনিই তাদের সে সুযোগটি দিতে পারেন এবং আমার পরামর্শ হবে না দেওয়ার।”

ভার্জ জানিয়েছে, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৫০ লাখের বেশি ভিউ পেয়ে ভাইরাল হয়ে যায় ভিডিওটি। কিন্তু শুক্রবারেই নিজের ব্যবস্থাপকের কাছ থেকে কল পান ক্যাম্পবেল; ভিডিওটি মুছে না দিলে শাস্তির মুখে পড়তে পারেন, এমনকি চাকরিও খোয়াতে পারেন বলে ক্যাম্পবেলকে জানান ওই ব্যবস্থাপক।

পরের দিনগুলোতে আরেকটি ভিডিওটি পোস্ট করেছেন ক্যাম্পবেল। দ্বিতীয় ভিডিওতে সরাসরি অ্যাপল কর্মী হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন, তাকে ছাঁটাই করা হচ্ছে কি না জানার জন্য অপেক্ষা করছেন বলে দ্বিতীয় ভিডিওতে জানিয়েছেন ওই অ্যাপল কর্মী।

“আমি আসলে এই ভিডিওটার আগে কখনোই নিজেকে অ্যাপল কর্মী বলে পরিচয় দেইনি। মজার বিষয় হচ্ছে, সামাজিক মাধ্যম নীতিমালা পড়ে দেখলাম… কোথাও বলা নেই যে জনসমক্ষে অ্যাপল কর্মী হিসেবে নিজের পরিচয় দেওয়া যাবে না। কেবল এমন ভাবে নিজের পরিচয় দিতে মানা করা হয়েছে যাতে কোম্পানির মানহানী হয়।”

পেশাগত জীবনে হার্ডওয়্যার প্রকৌশলী হলেও ব্যক্তিগত জীবনে ক্যাম্পবেল একজন স্ট্যান্ড-আপ কমেডিয়ান। সামাজিক মাধ্যমে তার ভক্তকুলও নেহাত ছোট নয়, প্রায় চার লাখ ৪০ হাজার মানুষ টিকটকে ফলো করেন তাকে।

তবে, ক্যাম্পবেলের জনপ্রিয়তা চাকরি হারানোর শঙ্কা দূর করছে না বলে জানিয়েছে ভার্জ। গেল বছরেই দু’জন জনপ্রিয় অধিকারকর্মীকে ছাটাই করেছিল অ্যাপল। তাদের বিরুদ্ধে কোম্পানির গোপন তথ্য ফাঁস করার অভিযোগ উঠেছিল। কিন্তু ক্যাম্পবেল বলছেন, তার ভিডিওতে এমন কোনো তথ্য ছিল না যা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত নয়।

“কোম্পানি হিসেবে আমরা মানুষকে ভিন্ন পথে চিন্তা করতে, উদ্ভাবনী হতে এবং সৃজনশীল সমাধানের খোঁজ করতে বলে যেভাবে নিজেদের উপস্থাপন করি, অ্যাপলের প্রতিক্রিয়া তার বিপরীতমুখী,” ভার্জকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন ক্যাম্পবেল।

“আমি অ্যাপলে কাজ করি বলেই অ্যাপলের তথ্য আমার জানা, বিষয়টাতো এমন নয়। আমার এই জ্ঞান আছে আমার কারিগরি শিক্ষা এবং কাজের ইতিহাসের কারণে। সে কারণেই অ্যাপল আমাকে নিয়োগ দিয়েছিল।”

এ বিষয়ে জানতে অ্যাপলের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাৎক্ষণিক কোনো উত্তর পায়নি ভার্জ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক