উঠে আসছেন নাসিম শাহর ভাই হুনাইন শাহ

পাকিস্তানের তরুণ পেস তারকা নাসিম শাহর ছোট ভাই হুনাইন শাহর ঘরোয়া ক্রিকেটে শুরুটা হয়েছে বেশ ভালো।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Sept 2022, 06:34 AM
Updated : 14 Sept 2022, 06:34 AM

পাকিস্তানে পেস প্রতিভার খুব একটা ঘাটতি দেখা যায় না কখনোই। বংশ পরম্পরার ব্যাপারটিও সেখানে বিরল নয়। এই যেমন, পাকিস্তান ক্রিকেট এখন মেতে আছে তরুণ পেস সেনসেশন নাসিম শাহকে নিয়ে। এই পরিবার থেকেই ভবিষ্যতের জন্য তৈরি হয়ে উঠছেন আরেকজন। ঘরোয়া ক্রিকেটে আবির্ভাবে বেশ নজর কেড়েছেন নাসিমের ছোট ভাই হুনাইন শাহ।

পাকিস্তানের ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপের ম্যাচ দিয়ে গত রোববার স্বীকৃত ক্রিকেটে অভিষেক হয় হুনাইনের। সেন্ট্রাল পাঞ্জাবের হয়ে খাইবার পাখতুনখাওয়ার বিপক্ষে ম্যাচে তিনি ৪ ওভারে ২৮ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। দ্বিতীয় ম্যাচে মঙ্গলবার আরেকটু সাউদার্ন পাঞ্জাবের হয়ে তার প্রাপ্তি ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে ২ উইকেট।

শুরুটা বেশ ভালো হলেও এখনই সাড়া জাগানোর মতো অসাধারণ কিছু নয়। তবে আলাদা করে তার দিকে নজর পড়ছে নাসিমের ছোট ভাই বলেই। দুজনের চেহারায় মিল বেশ, মিলটা আছে বোলিং অ্যাকশনেও। নাসিমের মতো হুনাইনও বেশ গতিময়।

১৯ বছর বয়সী নাসিমের চেয়ে ১১ মাস ১৯ দিনের ছোট হুনাইন। স্বীকৃত ক্রিকেটে অভিষেকের হয়ে সেন্ট্রাল পাঞ্জাবের অনূর্ধ্ব-১৯ দলে নিয়মিত ছিলেন তিনি। যুব ক্রিকেটে পারফর্ম করেছেন লাল ও সাদা, দুই বলের ক্রিকেটেই।

নাসিম সম্প্রতি এশিয়া কাপে আলোচনায় উঠে আসেন গতির ঝড় তুলে। এই আসর দিয়েই তার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক। প্রথম ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে আগুনে বোলিং করে তিনি তাক লাগিয়ে দেন। গতি আর সুইংয়ের মিশেলে টুর্নামেন্টে ৫ ম্যাচ খেলে তার প্রাপ্তি ৭ উইকেট। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে ব্যাট হাতে শেষ ওভারে দুটি ছক্কায় ম্যাচ জিতিয়ে পাকিস্তান ক্রিকেটের রূপকথায়ও জায়গা করে নেন তিনি।

গত মাসে তার ওয়ানডে অভিষেক হয় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে। ওই সিরিজে তিন ম্যাচেই ১০ উইকেট নিয়ে এই সংস্করণেও তার শুরুটা হয় দুর্দান্ত।

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অভিষেক সম্প্রতি হলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার পদচারণা প্রায় তিন বছরের। ১৬ বছর বয়সে পাকিস্তানের হয়ে তার টেস্ট অভিষেক। ১৯ বছর বয়সের মধ্যেই খেলে ফেলেছেন ১৩ টেস্ট। সাদা পোশাকে তার হ্যাটট্রিকও আছে বাংলাদেশের বিপক্ষে।

তার পথ অনুসরণ করেই এগিয়ে চলার চেষ্টা করছেন হুনাইন। বেশ কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, বড় ভাইয়ের

“আগে টেপ টেনিস বলে শখ করে ক্রিকেট খেলতাম। বড় ভাই পাকিস্তান দলে খেলার পর থেকে পেশাদার ক্রিকেট নিয়ে সিরিয়াস হই। সে সফরে গেলেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখে আমার সঙ্গে। নিজের অভিজ্ঞতার কথা বলে আমাকে, নানা পরামর্শ দেয়।”

“বিশ্বের সেরা সব ফাস্ট বোলিং কোচের সঙ্গে কাজ করছে সে, অনেক কিছু শিখতে পারছে। আমার মতো একজনের ক্যারিয়ারের শুরুতে তাই অনেক সহায়তা করতে পারে। অনেক সময় ম্যাচের আগেও আমার সঙ্গে কথা বলে সে। তার মতো আউট সুইঙ্গার শেখার চেষ্টা করছি, এটা নিয়েও অনেক সহায়তা করে।”

নাসিম ওই সময়ই একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ভাইকে স্রেফ গতিতে মনোযোগ দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

“আমরা বাড়িতে সিঙ্গেল উইকেট ক্রিকেট খেলতাম। তখন আমার মতোই বোলিং করত। তখন মাথায়ও ছিল না যে একসময় পেশাদার ক্রিকেট খেলব। পরে তো পেশাদার ক্রিকেটে এলাম। একদিন সে বলল, ‘অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ট্রায়াল হচ্ছে, আমি কি দেব?’ বললাম, ‘অবশ্যই।’ ট্রায়ালে সেন্ট্রাল পাঞ্জাবের হয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে সুযোগ পেল। এরপর তো এগিয়ে যাওয়ার পালা।”

“আমি ওকে বলি যে, ‘স্রেফ জোরে বোলিং করতে থাকো। বাকিটা আমি কোচ ও সিনিয়রদের যা কাছ থেকে শিখছি, তোমাকেও শেখাব।’ স্রেফ গতি ধরে রেখে সহজাত বোলিং করে যেতে বলি ওকে।”

হুনাইনের স্বপ্ন, বড় ভাইয়ের মতো তিনিও একদিন জাতীয় দলে খেলবেন।

“আমার আউট সুইঙ্গার বেশ ভালো। ভালো জায়গা থেকে আউট সুইং করাতে পারি। আশা করি, একদিন আমিও খেলব পাকিস্তানের হয়ে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক