আশরাফুলের মন্থর সেঞ্চুরি ছাপিয়ে ঝড়ো সেঞ্চুরিতে নায়ক মিজানুর

নিজের সেঞ্চুরি আর দলের হার, এবারের লিগে এটাই যেন মোহাম্মদ আশরাফুলের নিয়তি। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে করলেন টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি। কিন্তু তিনটিতেই হারল দল। রোববার তার তুলনামূলক মন্থর সেঞ্চুরি ছাপিয়ে ঝড়ো সেঞ্চুরিতে দলকে জিতিয়েছেন মিজানুর রহমান।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 April 2018, 12:19 PM
Updated : 1 April 2018, 12:19 PM

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের রেলিগেশন লিগে কলাবাগান ক্রীড়া চক্রকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন।

কলাবাগানের অবনমন নিশ্চিত হয়ে গেছে আগেই। ব্রাদার্স ও অগ্রণী ব্যাংকের পয়েন্ট ১০। বুধবার এই দুই দলের লড়াই নির্ধারণ করবে, প্রিমিয়ারে টিকে থাকবে কোন দল।

বিকেএসপিতে রোববার ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারে উইকেটে গিয়েও আশরাফুল সেঞ্চুরি ছুঁয়েছেন ইনিংসের শেষ বলে। ১০২ রান করতে লেগেছে ১৩৭ বল। ৫০ ওভারে মাত্র ৩ উইকেট হারালেও কলাবাগান করতে পারে কেবল ২৫২ রান।

রান তাড়ায় ব্রাদার্সকে এগিয়ে নেয় মিজানুরের ১০৪ বলে ১১৫ রানের ইনিংস। পরে ইয়াসির আলি ও নাজমুস সাদাতের দারুণ ফিনিশিংয়ে ম্যাচ শেষ ৩৩ বল আগেই।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা কলাবাগান দ্বিতীয় ওভারে হারায় ওপেনার ফয়সাল আহমেদকে। তিনে নামেন আশরাফুল। ওপেনার ওয়ালিউল করিমের সঙ্গে তার জুটি দলকে টেনে নেয় ৩০ ওভার পর্যন্ত। দুজনে গড়েন ১১৬ রানের জুটি।

৬ চার ও ৫ ছক্কায় ৯৫ বলে ৭৯ রান করে আউট হন ওয়ালিউল। অন্যদিকে আশরাফুলের ব্যাটে ছিল লিগের বেশির ভাগ ম্যাচের মতোই ‘ধীরো চলো’ নীতি। পঞ্চাশ ছুঁতেই লেগে যায় ১০২ বল।

পাঁচে নেমে মুনিম শাহরিয়ার করেন ৪১ বলে ৩৫। অধিনায়ক ফারুক হোসেন ২২ বলে অপরাজিত ২৮। শেষ দিকে গতি পায় আশরাফুলের ইনিংসও। সোহরাওয়ার্দী শুভর করা ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম ও শেষ বলে বাউন্ডারিতে সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন ১৩৭ বলে।

এবারের লিগে আশরাফুলের এটি ৫ম সেঞ্চুরি। চারটিতেই স্ট্রাইক রেট আশির বেশ নিচে। এর তিনটিতেই হেরেছে দল। সব মিলিয়ে তার ৫ সেঞ্চুরির চারটিতেই হেরেছে দল।

এদিনও যেমন, ব্যাটিং উইকেটে আড়াইশ রানের স্কোর চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেনি ব্রাদার্সকে। মিজানুর শুরু থেকেই ছিলেন দারুণ আগ্রাসী। ফিফটি করেন ৪৩ বলেই।

ওপেনিংয়ে মিজানুরের সঙ্গী জুনায়েদ সিদ্দিক ও তিনে নামা মায়শুকুর রহমান ফেরেন ১৬ রান করে। তবে মিজানুর দুর্দান্ত খেলেছেন বলেই প্রথম দুই উইকেটে গড়ে ওঠে ৬৯ ও ৪৯ রানের জুটি।

মিজানুরের সঙ্গে অন্যরাও বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়েছেন বলে কলাবাগানকে চাপে পড়তে হয়নি কখনোই। চারে নেমে অধিনায়ক অলক কাপালি করেছেন ২৯ বলে ২৭।

মিজানুর এবারের লিগে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি স্পর্শ করেছেন ৮৫ বলে। শেষ পর্যন্ত আউট হয়েছেন ১১ চার ও ৬ ছক্কায় ১০৪ বলে ১১৫ রান করে।

বাকি পথটুকু ব্রাদার্স পাড়ি দিয়েছে ইয়াসির আলি ও নাজমুস সাদাতের ব্যাটে। পঞ্চম উইকেটে দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটি ৭৫ রানের। দুটি করে চার ও ছক্কায় ৪৫ রানে অপরাজিত ইয়াসির। সাদাত অপরাজিত ৩২ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

কলাবাগান: ৫০ ওভারে ২৫২/৩ (ওয়ালিউল ৭৯, ফয়সাল ৪, আশরাফুল ১০২*, মুনিম ৩৫, ফারুক ২৮*; শুভ ২/৫৩, খালেদ ১/৪৬, সাখাওয়াত ০/৩২, অলক ০/৪৭, রানা ০/১৯, সাদাত ০/৩২, মায়শুকুর ০/২৩)।

ব্রাদার্স: ৪৪.৩ ওভারে ২৫৩/৪ (মিজানুর ১১৫, জুনায়েদ ১৬, মায়শুকুর ১৬, অলক ২৭, ইয়াসির ৪৫*, সাদাত ৩২*; মুক্তার ১/৪৯, রিয়াজুল ০/২৯, আশরাফুল ০/১৯, সঞ্জিত ০/২৪, জাইমুল ৩/৪৭, আসিফ ০/১৮, ফারুক ০/৬৩, ফয়সাল ০/৪)।

ফল: ব্রাদার্স ইউনিয়ন ৬ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: মিজানুর রহমান

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক