বিশ্বকাপে ভারত স্বাধীনতা নিয়ে খেলেনি: সৌরভ

শিরোপার বড় দাবিদার হিসেবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পা রেখে শুরুতেই পথ হারানো ভারত টানা দুই হারে চলে যায় খাদের কিনারায়। পরে ঘুরে দাঁড়ানোর মরিয়া চেষ্টা করেও বিদায় নেয় সেমি-ফাইনালের আগেই। বৈশ্বিক আসর শেষের পর প্রায় তিন সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও তাদের ব্যর্থতা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার শেষ নেই। বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির মনেও যেন সেই হতাশা এখনও তরতাজা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Dec 2021, 03:41 PM
Updated : 5 Dec 2021, 03:50 PM

ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সফল অধিনায়কের মতে, আইসিসি ইভেন্টে গত ৪-৫ বছরের মধ্যে এটাই তাদের সবচেয়ে খারাপ পারফরম্যান্স।

বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভে নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে ১০ উইকেটে হেরে কক্ষচ্যূত হওয়ার শুরু বিরাট কোহলির দলের। দ্বিতীয় ম্যাচেও হয়নি ভাগ্যের পরিবর্তন; নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে তারা হেরে যায় ৮ উইকেটে।

এরপর টানা তিন ম্যাচে আফগানিস্তান, স্কটল্যান্ড ও নামিবিয়াকে হারালেও শেষ রক্ষা হয়নি ভারতের। তাদের পেছনে ফেলে ওই গ্রুপ থেকে সেমি-ফাইনালে জায়গা করে নেয় পাকিস্তান ও নিউ জিল্যান্ড। গত ৯ বছরে তিন সংস্করণের বৈশ্বিক আসরে প্রথমবারের মতো শেষ চারের আগেই বিদায় নেয় ভারত।

সবশেষ কয়েকটি আইসিসি ইভেন্টে ধারাবাহিকভাবে ফাইনাল বা অন্তত সেমি-ফাইনাল খেলা ভারতের এভাবে বিদায় নেওয়াটা ছিল সমর্থকদের জন্য ভীষণ হতাশাজনক। ২০১৫ ও ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনাল খেলা ভারত ঘরের মাটিতে ২০১৬ সালের টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও ছিল শেষ চারের লড়াইয়ে। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে খেলেছিল দলটি। সেখানে তাদের হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল পাকিস্তান।

শনিবার 'ব্যাকস্টেজ উইথ বরিয়া' শোর এক পর্যায়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে হওয়া টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলেন সৌরভ। তিনি মনে করেন, বৈশ্বিক আসরে গত কয়েক বছরের মধ্যে নিজেদের সবচেয়ে খারাপ খেলার খেসারত দিয়েছে তারা।

“সত্যি বলতে, ২০১৭ (চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি) ও ২০১৯ (ওয়ানডে বিশ্বকাপ) এ আমি মনে করি ভারত ভালো খেলেছিল। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ওভালে আমরা পাকিস্তানের কাছে হেরেছিলাম, আমি তখন একজন ধারাভাষ্যকার ছিলাম। এরপর ইংল্যান্ডে ২০১৯ বিশ্বকাপে আমরা দুর্দান্ত খেলছিলাম, সবাইকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালে নিউ জিল্যান্ডের কাছে হেরেছিলাম- একটি খারাপ দিন এবং দুই মাসের ভালো কাজ শেষ হয়ে গিয়েছিল।”

“এই বিশ্বকাপে আমরা যেভাবে খেলেছি তাতে আমি কিছুটা হতাশ। গত চার-পাঁচ বছরে আমার দেখা এটিই ভারতের সবচেয়ে খারাপ পারফরম্যান্স।”

বিশ্বকাপ থেকে ভারতের আগেভাগেই বিদায়ের পেছনে অনেকেই দুষেছেন টুর্নামেন্টের সূচিকে। ১৯৮৩ বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক কপিল দেব তো সরাসরিই বলেন, ভারতীয় ক্রিকেটারদের দেশের হয়ে খেলার চেয়ে আইপিএলকে বেশি গুরুত্ব দেওয়াটাই তাদের ব্যর্থতার কারণ।

তবে সৌরভ ভাবছেন ভিন্নভাবে। সাবেক অধিনায়কের বিশ্বাস, পাকিস্তান ও নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ দুই ম্যাচে নিজেদের সামর্থ্যের অর্ধেকও দিতে পারেননি তারা। ক্রিকেটাররা খেলতে পারেননি নিজেদের সহজাত খেলাটা।

“আমি জানি না (ভারতের শেষ চারের আগে বিদায়ের) কারণটা কী। তবে আমার মনে হয়েছে, তারা এই বিশ্বকাপে যথেষ্ট স্বাধীনতা নিয়ে খেলেনি। মাঝে মাঝে বড় টুর্নামেন্টে এমনটা হয়, কিছু খেলোয়াড় নিজের সহজাত খেলাটা খেলতে পারে না। পাকিস্তান ও নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের খেলা দেখে আমার মনে হয়েছিল, দলটি তাদের সামর্থ্যের ১৫% দিয়ে খেলছিল। এসব ক্ষেত্রে কখনও কখনও বিষয়টির দিকে আঙুল তুলে বলাও যায় না যে এই কারণেই এমন হয়েছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক