নতুন শিক্ষাক্রম নিয়ে অপপ্রচার চলছে: শিক্ষামন্ত্রী

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে নতুন করে ভাবার প্রয়োজনও দেখছেন দীপু মনি।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2022, 05:30 PM
Updated : 24 July 2022, 05:30 PM

নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষা বাদ দেওয়া নিয়ে ‘অপপ্রচার’ চলছে দাবি করে তাতে কান না দিতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

রোববার ঢাকার বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে উত্তরা ইউনিভার্সিটির সপ্তম সমাবর্তনে বক্তব্যে এই আহ্বান জানান তিনি।

দীপু মনি বলেন, “এক শ্রেণির মানুষ ধর্মকে ব্যবহার করে অপরাজনীতি করে। দেড় বছর পরেই জাতীয় নির্বাচন। নতুন শিক্ষাক্রম থেকে ধর্মচর্চা বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে আপরাজনীতি চালানো হচ্ছে। এটি একেবারে নিরেট মিথ্যা কথা। শিক্ষার্থীরা ধর্ম শেখার পাশাপাশি চর্চাও করবে। এরকম অপপ্রচারে আপনারা কান দেবেন না।”

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে নতুন করে ভাবার প্রয়োজনও দেখছেন শিক্ষামন্ত্রী।

“কারণ এখন সারাবিশ্বই মডিউলার এডুকেশনের দিকে যাচ্ছে। নতুন নতুন দক্ষতায় দক্ষ করে তুলতে হবে শিক্ষার্থীদের। আমার একজন গ্রাজুয়েট ফিরে এসে মাস্টার্সের সুযোগ পাবে না? সে যেন কর্মক্ষেত্রে থেকেই ছোট ছোট কোর্স, ডিপ্লোমা কোর্স, সার্টিফিকেট কোর্স করে নিতে পারে, সে ব্যবস্থা করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে। মডিউলার এডুকেশনের সাথে সাথে ব্লেন্ডেড এডুকেশনও রাখতে হবে, যেন সে কর্মক্ষেত্র থেকেও নিজেকে দক্ষ করে তোলার সুযোগ পায়।”

কারিগরি, প্রযুক্তিগত দক্ষতার পাশাপাশি ‘সফট স্কিলসে’ শিক্ষার্থীদের দক্ষ হওয়ার তাগিদ দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “এই সফট স্কিলসগুলোই আমাদের ও আমাদের পাশ্ববর্তী দেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যবধান তৈরি করে। যারা চাকরিদাতা, তারা অনেক সময় আমাদের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাজুয়েট হওয়াদের মধ্যে সফট স্কিলস পাচ্ছেন না। না পাবার ফলে চাকরিপ্রত্যাশীরা অনেকসময় হতাশ হচ্ছেন। চাকরি দাতা ও গ্রহীতাদের প্রত্যাশা মধ্যে তফাত থেকে যাচ্ছে। এজন্যই আমাদর সফট স্কিলিসে দক্ষ হতে হবে।”

মন্ত্রী বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সর্বোচ্চ আসন সংখ্যা নির্দিষ্ট করতে হবে, যেন আসনসংখ্যার অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যেন শিক্ষার্থীদের হয়রানির শিকার হতে না হয়। বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্টি না হয়। শিক্ষার যেন সুষ্ঠু পরিবেশ সেখানে বজায় থাকে।”

প্রাক-প্রাথমিক স্তর থেকেই বয়স অনুযায়ী বিভিন্ন কাজের মধ্য দিয়ে এই ‘সফট স্কিলস’গুলো শেখানোর উদ্যোগ সরকার গ্রহণ করেছে বলে জানান তিনি।

নতুন শিক্ষাক্রমের ‘পাইলটিংয়ের’ ফলাফল খুব আশাব্যঞ্জক উল্লেখ করে দীপু মনি বলেন, “নতুন শিক্ষাক্রমে আছে আনন্দময় শিক্ষা। আনন্দের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীরা শিখবে। তারা প্রশ্ন করবে। আমরা আমাদের সমাজে প্রশ্ন করাকে নিরুৎসাহিত করি। সেটা করা যাবে না।”

অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য বিশ্বজিৎ চন্দ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন উত্তরা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য মো. আজিজুর রহমান, উপ-উপাচার্য ইয়াসমিন আরা লেখা, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আরিয়া আহমেদ এবং আইন বিভাগের শিক্ষার্থী আল-আমিনকে উপাচার্য স্বর্ণপদক দেওয়া হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক