আফগানিস্তানকে ৭৫ লাখ ডলারের ত্রাণ দিচ্ছে চীন

দুই দশকের মধ্যে সবচেয়ে প্রাণঘাতী ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত আফগানিস্তানে ৭৫ লাখ মার্কিন ডলার সমমূল্যের মানবিক ত্রাণ পাঠাবে চীন।

>>রয়টার্স
Published : 25 June 2022, 02:13 PM
Updated : 25 June 2022, 02:13 PM

শনিবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ওই ত্রাণ পাঠানোর কথা ঘোষণা করা হয়। মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়, মানবিক ওই ত্রাণের মধ্যে তাঁবু, তোয়ালে, বিছানা এবং নিত্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য সমাগ্রী রয়েছে।

গত বুধবার প্রথম প্রহরের দিকে ৬ দশমিক ১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে দেশটির পূর্বাঞ্চল। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পূর্বের পাকতিকা প্রদেশ।

ভূমিকম্পে এক হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। আহত হয়েছেন দুই হাজারের বেশি মানুষ।

গত বছর অগাস্টে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত সরকারকে হটিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। তালেবান ক্ষমতায় আসার পর দেশটিতে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে বরাদ্দ বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক তহবিল স্থগিত হয়ে যায়।

জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের নানা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আন্তর্জাতিক ব্যাংকগুলো বেশ সতর্ক অবস্থায় থাকায় জাতিসংঘের সংস্থা এবং বিভিন্ন দাতা সংগঠন ত্রাণ কার্যক্রমের জন্য অর্থ পাঠাতে হিমশিম খাচ্ছে।

এদিকে, ভয়াবহ এই দু্র্যোগ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক বিশ্বের কাছে আরো ত্রাণ সহায়তা চেয়েছে তালেবান প্রশাসন।

পাকতিকার প্রাদেশিক সরকারের মুখপাত্র মোহাম্মদ আমেন হোজিফা বলেন, ‘‘আমরা সব মানবিক সংগঠনকে এখানকার মানুষের জন্য সাহায্য পাঠানোর আহ্বান জানাচ্ছি।”

বুধবার ভোররাতের আগে দিকে যখন ভূমিকম্প হয় তখন মানুষ ঘরে ঘুমিয়ে থাকায় হতাহতের ঘটনা বেশি হয়েছে। শুক্রবার ভূমিকম্পের পরাঘাতে আবারও কেঁপে উঠে আফগানিস্তান। এদিনেও পাঁচজন নিহত হয়েছেন বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

দুর্গত এলাকায় খাবার ও পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বাড়িঘর ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের খোলা আকাশের নিচে থাকতে হচ্ছে। সেখানে কলেরা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তালেবান ক্ষমতা দখলের পর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার কারণে আফগানিস্তানে সরাসরি আন্তর্জাতিক সহায়তা আসার পথ আগেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। দুই দশকের যুদ্ধে বিধ্বস্ত দেশটির নাজুক অর্থনীতি ওই চাপ সহ্য করতে না পেয়ে আগেই ভেঙ্গে পড়েছে।

বুধবারের ভূমিকম্প যেনে মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে এসেছে।

জাতিসংঘ এবং আরো বেশ কয়েকটি সংগঠন সেখানে দ্রুত ত্রাণ পাঠানোর ব্যবস্থা করছে।

কিন্তু মানবিক অর্থ সহায়তা পেতে জাতিসংঘের প্রচেষ্টায় তালেবান বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বৈশ্বিক সংস্থাটির ত্রাণ বিষয়ক প্রধান মার্টিন গ্রিফিথস।

গত বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে করা এক অভিযোগে তিনি বলেছিলেন, দেশটির ক্ষমতাসীন তালেবান আফগানিস্তানে ত্রাণ সরবরাহেও হস্তক্ষেপ করছে।

বলেন, “ঝুঁকি এড়াতে নেওয়া অত্যধিক কঠোর পদক্ষেপে আনুষ্ঠানিক ব্যাংকিং ব্যবস্থায় আফগানিস্তানে অর্থ পাঠানোর ক্ষেত্রে বাধা দিয়েই যাচ্ছে, যা পেমেন্ট চ্যানেলে প্রভাব ফেলছে এবং সরবরাহ চেইনে ভাঙ্গন সৃষ্টি করছে।”

এ পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানে অর্থ পৌঁছাতে জাতিসংঘ হিউম্যানিটারিয়ান এক্সচেঞ্জ ফ্যাসিলিটি (এইচইপি) নামে একটি ব্যবস্থা চালুর চেষ্টা করে যাচ্ছে, এর মাধ্যমে নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা তালেবান নেতৃত্বকে পাশ কাটিয়ে আফগানিস্তানে ত্রাণ ও অর্থনৈতিক সংকটের সমস্যা কাটিয়ে ওঠার পরিকল্পনা বৈশ্বিক সংস্থাটির।

“এক্ষেত্রেও খুব সামান্যই অগ্রগতি দেখছি আমরা, কারণ ‘ডি-ফ্যাক্টে’ কর্তৃপক্ষের বাধা। নিজে নিজেই ঠিক হয়ে যাবে, এমন ইস্যুও নয় এটি,” বলেছেন গ্রিফিথস।

যতদিন আনুষ্ঠানিক ব্যাংকিং ব্যবস্থা আফগানিস্তানে ফের সঠিকভাবে কাজ করতে না পারছে জাতিসংঘ ততদিন ‘এইচইপি’ চালু রাখার প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক