রাজ পরিবার ছাড়ছেন হ্যারি, মেগান

ব্রিটিশ রাজ পরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্যের দায়িত্ব থেকে সরে এসে আর্থিকভাবে স্বনির্ভর হওয়ার জন্য কাজ করার ঘোষণা দিয়েছেন ডিউক অব সাসেক্স প্রিন্স হ্যারি এবং ডাচেস মেগান মার্কেল।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Jan 2020, 06:14 AM
Updated : 9 Jan 2020, 06:18 AM

বুধবার এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, আগামী দিনগুলোতে তারা বছরের কিছুটা সময় যুক্তরাজ্যে এবং বাকিটা উত্তর আমেরিকায় কাটানোর পরিকল্পনা করেছেন।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হ্যারি ও মেগান এই সিদ্ধান্ত জানানোর আগে রানি বা প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনা করেননি এবং বিষয়টি নিয়ে বাকিংহাম প্যালেস অপ্রস্তুত অবস্থায় পড়েছে। রাজ পরিবারের অন্য জ্যেষ্ঠ সদস্যরাও আহত হয়েছেন ওই ঘোষণায়।      

হ্যারি ও মেগান গত অক্টোবরে বলেছিলেন, রাজ পরিবারের সদস্য হিসেবে সারাক্ষণ গণমাধ্যমের নজরে থাকতে হয় বলে ব্যক্তিগত জীবন কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তার তিন মাসের মাথায় তারা নিজেদের ইনস্টাগ্রাম পাতায় রাজ পরিবার ছাড়ার ঘোষণা দিলেন। 

বিবৃতিতে তারা লিখেছেন, বহু মাস ধরে চিন্তাভাবনা আর নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেই তারা এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন। 

“আমরা রাজ পরিবারের ‘জ্যেষ্ঠ’ সদস্যের দায়িত্ব থেকে সরে আসতে চাইছি। আমরা চাইছি আর্থিকভাবে স্বনির্ভর হওয়ার জন্য কাজ করতে। পাশাপাশি মহামান্য রানির প্রতি আমাদের পূর্ণ সহযোগিতা থাকবে।”

হ্যারি ও মেগান বলেছেন, ‘রানি, কমনওয়েলথ ও অভিভাবকদের প্রতি দায়িত্বের বিষয়ে পূর্ণ সম্মান রেখেই’ তারা তাদের সময় যুক্তরাজ্য ও উত্তর আমেরিকার মধ্যে ভাগ করে নিতে চান।  

সন্তান আর্চির বেড়ে ওঠার পাশাপাশি নতুন একটি দাতব্য সংস্থা খোলার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ‘এই ভৌগলিক ভারসাম্য’ সহায়ক হবে বলে যুক্তি দিয়েছেন তারা।

বিবিসির রয়্যাল করেসপনডেন্ট জনি ডায়মন্ড লিখেছেন, হ্যারি-মেগানের ওই ঘোষণা বাকিংহাম প্রসাদকে বেশ বড় ধাক্কাই দিয়েছে। রাজপরিবার তাদের সিদ্ধান্তের কারণে যতটা না আহত হয়েছে, তার চেয়ে অনেক বেশি আহত হয়েছে তারা যেভাবে আলোচনা না করে ওই ঘোষণা দিয়েছেন- তা নিয়ে।

বাকিংহাম প্রাসাদের একজন মুখপাত্র বিবিসিকে বলেছেন, হ্যারি-মেগান যে আলাদা জীবন চাইছেন, সেটা তারা বুঝতে পারছেন। তবে এখানে জটিল অনেক বিষয় আছে, আর তার সমাধান করা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

বড়দিনের সময় রাজকীয় দায়িত্ব থেকে ছয় সপ্তাহের ছুটি নিয়ে সাত মাসের ছেলে আর্চিকে নিয়ে কানাডায় বেড়াতে গিয়েছিলেন ৩৮ বছর বয়সী মেগান ও ৩৫ বছর বয়সী হ্যারি। সেখান থেকে ফিরে মঙ্গলবার তারা লন্ডনে কানাডার হাই কমিশনে গিয়েছিলেন উষ্ণ আথিথেয়তার জন্য ধন্যবাদ জানাতে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক অভিনেত্রী মেগান তার কাজের সূত্রে এক সময় টরন্টোতে কাটিয়েছেন। সেখানে তার বেশ কয়েকজন বন্ধু-বান্ধবও আছে। আর রাজ পরিবারের জীবনে অনেক কিছুর সঙ্গেই তারা মানিয়ে নিতে পারছেন না। 

অনেক মানুষের মধ্যে এলে হ্যারি ও মেগান- দুজনকেই দারুণ প্রাণবন্ত দেখায়। কিন্তু মিডিয়ার ক্যামেরা আর রাজ পরিবারের গুরুগম্ভীর আচার-অনুষ্ঠানগুলো হ্যারির দারুণ অপছন্দ।

মেগান এর আগে পুরোদস্তর পেশাজীবীর জীবন কাটিয়ে এলেও প্রাসাদের জীবনে প্রতিদিনের ক্লান্তিকর রুটিন মানতে গিয়ে তাকেও মেজাজ হারাতে দেখা গেছে।    

তিনি বলেছেন, তিনি বোবা পুতুলটি হয়ে থাকতে চান না, কিন্তু যখনই উচ্চকণ্ঠ হয়েছেন, তাকে সমালোচনায় পড়তে হয়েছে। 

বিবিসি লিখেছে, এই জুটিকে তাদের অনিশ্চয়তা কাটিয়ে নিজেদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেও নতুন অনেক প্রশ্নের জন্ম হয়েছে। এরপর কোন ভূমিকায় দেখা যাবে তাদের? রাজ পরিবার ছেড়ে তারা কোথায় থাকবেন? টাকা আসবে কোথা থেকে? রাজ পরিবারের বাকি সমস্যদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক এখন কেমন থাকবে?

এবং এর সঙ্গে আরেকটি প্রাতিষ্ঠানিক প্রশ্নও উঠে আসছে। হ্যারি-মেগানের সিদ্ধান্ত রাজ পরিবারের জন্য কী বার্তা দিচ্ছে?

অবশ্য তারাই প্রথম নন, হ্যারির মা প্রিন্সেস ডায়ানাও প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে বিচ্ছেদের আগে ১৯৯৩ সালে রাজকীয় দায়িত্ব কমিয়ে নিজের মত জীবন কাটানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

তার আগে ১৯৩৬ সালে রাজা অষ্টম এডওয়ার্ড তো মার্কিন নারী ওয়ালিস সিম্পসনকে বিয়ে করার জন্য সিংহাসনই ত্যাগ করেছিলেন।

এছাড়া হ্যারির চাচা প্রিন্স অ্যান্ড্রু গতবছর শেষ দিকে এপস্টেইন কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে রাজকীয় দায়িত্ব থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন। আর অ্যান্ড্রুর সাবেক স্ত্রী সারাও তাদের বিচ্ছেদের পর রাজকীয় দায়িত্ব থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক