মোদীর বদান্যতা, ভোটের মুখে প্রচুর সুবিধায় খুশি ভারত

ভারতে আর দুমাস পরেই ভোট। তার আগে অন্তর্বর্তী নয় বরং পূর্ণ বাজেটই পেশ করে চমক দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রচুর সুবিধা দিয়ে দেশকে ভাসিয়েছেন খুশির হাওয়ায়।

>>রয়টার্স
Published : 1 Feb 2019, 05:30 PM
Updated : 1 Feb 2019, 06:14 PM

শুক্রবার পেশ করা এ বাজেটে মধ্যবিত্তের মন পেতে আয়করে ব্যাপক ছাড় ঘোষণা করেছে মোদী সরকার। বার্ষিক ৫ লক্ষ টাকা রোজগারের ওপর কোনো আয়কর দিতে হবে না।

এছাড়া বাজেটে প্রান্তিক কৃষক, দরিদ্র  শ্রমিক ও অন্যান্য অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীদেরও মন জয়ের চেষ্টা করেছেন মোদী। যারা ৫ বছরে ক্রমেই সরকারের ওপর ভরসা হারিয়েছে।

নির্বাচনের আগে বর্তমান সরকারের এটিই শেষ বাজেট। নিয়ম মোতাবেক সে বাজেট পূর্ণ বাজেট হয় না। তিনমাসের জন্য ভোট অন অ্যাকাউন্ট পাস করানোই রীতি। নির্বাচনের পরে জুলাইয়ে সাধারণত পূর্ণাঙ্গ বাজেট পাস করে নতুন সরকার। কিন্তু এবার মোদী সরকার রীতি ভেঙে পূর্ণ বাজেটই পেশ করেছে।

ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি অসুস্থ থাকায় তার জায়গায় এবার বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল।

বাজেটে যে যে সুবিধাগুলো দেওয়া হয়েছে সেগুলো হল:

আয়করে ছাড়:

বার্ষিক ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত রোজগেরেরা আয়করের আওতার বাইরে থাকবেন। শুধু তাই নয়, এ সীমার উপরেও ছাড় পাওয়া যাবে। সব মিলিয়ে বছরে কার্যত সাড়ে ছয় লাখ টাকা পর্যন্ত আয়ের ওপর কোনো কর দিতে হবে না। এতদিন এই সীমা ছিল বছরে সাড়ে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত। এর ফলে প্রায় ৩ কোটি চাকরিজীবী, মধ্যবিত্ত, পেনশনভোগীরা উপকৃত হবেন। ব্যাঙ্ক, পোস্ট অফিসে সুদ থেকে চল্লিশ হাজার টাকা পর্যন্তও আয় করমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া, করযুক্ত আয়ের উপর যে ছাড় দেওয়া হয়, তা ৪০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৫০ হাজার করা হয়েছে।

কৃষকদের ক্ষোভ কমাতে নতুন প্রকল্প:

বাজেটে গরিব কৃষকদের সরাসরি টাকা দেওয়ার নতুন প্রকল্প চালু করে বড় ধরনের বোঝা নিয়েছে মোদী সরকার।গরিব কৃষকদের আর্থিক সহায়তার জন্য এ নতুন প্রকল্পকে বলা হচ্ছে ‘পি এম কিষান’। ২ হেক্টরের কম জমিতে চাষ করা ছোট এবং মাঝারি কৃষকদেরকে প্রতি বছর সরাসরি ৬ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা করা হবে।কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে দুই হাজার করে তিনদফায় যাবে এ অর্থ। প্রায় ১২ কোটি কৃষক পরিবার এই প্রকল্পে উপকৃত হবে।

মাসে তিন হাজারের নিশ্চিত পেনশন:

মাসিক ১৫ হাজার টাকা আয় করে এমন অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীদের জন্য নতুন পেনশন প্রকল্প ঘোষণা করা হয়েছে বাজেটে। এর ফলে ৬০ বছরের পর এ কর্মীরা মাসে তিন হাজার টাকা করে নিশ্চিত পেনশন পাবেন। প্রধানমন্ত্রী শ্রমিক বন্ধন নামের এ প্রকল্পে দশ কোটি শ্রমিক উপকৃত হবে।

গো-রক্ষায় নতুন প্রকল্প:

বাজেটে গো-রক্ষায় নতুন প্রকল্পও ঘোষণাও করা হয়েছে। এর লক্ষ্য গো-প্রজনন এবং রক্ষণাবেক্ষণ। ‘রাষ্ট্রীয় গোকুল যোজনা’ নামে এই প্রকল্পে বরাদ্দ করা হয়েছে ৭৫০ কোটি টাকা। এছাড়া মাছ চাষ উৎসাহিত করতে এবং সাহায্য করতে আলাদা দপ্তর গঠন করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে।

অন্যান্য:

অন্য আরো অনেক বিষয়ের মধ্যে তফশিলি জাতি ও উপজাতিদের জন্য বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। প্রতিরক্ষা খাতে বাজেট বরাদ্দ হয়েছে ৩ লাখ কোটি টাকা । আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রামীণ শিল্পোন্নয়নে জোর দেওয়া হয়েছে।আগামী ৫ বছরে ১ লক্ষ ডিজিটাল গ্রাম তৈরির লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে।

এবার মোদী সরকার পূর্ণাঙ্গ বাজেট পাস করতে পারে বলে আগে থেকেই জল্পনা চলছিল এবং এ নিয়ে শাসকদল বনাম বিরোধীদলের প্রবল বাদানুবাদও চলছিল।

এবার বাজেট পেশের পরই এটি নিয়ে কটাক্ষ করেছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। তিনি বলেছেন, একেবারেই ভোটের বাজেট বানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদীর সরকার। শুক্রবার কেন্দ্রীয় বাজেট পেশের পর এটিই তার প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া।

ওদিকে সাবেক কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পালানিয়াপ্পন চিদম্বরম বলেছেন, ‘‘এটি ভোট অন অ্যাকাউন্ট হয়নি। হয়েছে অ্যাকাউন্ট অফ ভোটস। অন্তর্বর্তী বাজেট না বানিয়ে দেওয়া হয়েছে পূর্ণাঙ্গ বাজেট প্রস্তাব।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক