যুক্তরাষ্ট্রে থাই চিংড়ি আমদানি বন্ধের দাবি জোরালো হচ্ছে

থাইল্যান্ডের মৎস শিল্প শ্রমিকদের দাস হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ ওঠায় দেশটি থেকে মাছ ও চিংড়ি আমদানি বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিবিদ ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Dec 2015, 11:58 AM
Updated : 16 Dec 2015, 01:18 PM

একটি বার্তা সংস্থার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের বরাতে বিবিসি জানায়, থাইল্যান্ডের চিংড়ি উৎপাদনকারীরা শ্রমিকদের দিনে ১৬ ঘন্টা কাজ করতে বাধ্য করে, বিনিময়ে খুব অল্প পারিশ্রমিক দেয় কিংবা কোনো পারিশ্রমিকই দেয় না।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও এশিয়ার অন্যান্য দেশে থাইল্যান্ড থেকে রপ্তানি করা খাদ্যপণ্যে এসব চিংড়ি ব্যবহার করা হয়।

ওই বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে, তারা চিংড়ি উৎপাদনের এসব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করার পাশাপাশি রপ্তানির পর বড় বড় খুচরা পণ্য বিক্রিয়কারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে পৌঁছানো ও বিক্রি পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়াটি অনুসরণ করেছে।

সংস্থাটির প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতারণার মাধ্যমে সংগ্রহ করা ও কারখানাগুলিতে বিক্রি করা শ্রমিকদের দিনে ১৬ ঘন্টা কাজ করতে হয়, এদের কোনো অবকাশ দেওয়া হয় না এবং শ্রমের বিনিময়ে কোনো পারিশ্রমিকও দেওয়া হয় না, দেওয়া হলেও তা অত্যন্ত কম।

কোনো শ্রমিককে বছরের পর বছর আটকে রাখা হয় এবং এদের কারো কারোকে কারাখানার ভিতর আটকে রাখা হয়।

এই প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান ও কংগ্রেসের বৈদেশিক সম্পর্ক কমিটির সদস্য ক্রিস স্মিথ বলেন, “কিছু না জেনেই আমরা নিজেদের দাসদের তৈরি পণ্যের ভোক্তা হিসেবে দেখতে পেয়েছি, কিন্তু একবার যখন আমরা এসব জেনেছি, এসব পণ্য বয়কট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।”

এর আগে একই বার্তা সংস্থার অপর একটি প্রতিবেদনে থাই ইউনিয়ন কোম্পানির ব্যবহৃত একটি ইন্দোনেশীয় প্রক্রিয়াজাত প্রকল্পে শ্রমিকদের অধিকার হরণ করার খবর প্রকাশ হলে জুলাইতে থাই ইউনিয়নকে বয়কট করার আহ্বান জানিয়েছিল গ্রিনপিস।

থাই ইউনিয়ন বিশ্বের নেতৃস্থানীয় চিংড়ি উৎপাদনকারীদের মধ্যে অন্যতম। বার্তা সংস্থাটির সর্বশেষ প্রতিবেদনেও প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে দাস শ্রমিক ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনের থাই দূতাবাস জানিয়েছে, তারা সব ধরনের অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে।