বাংলা সচেতনতায় জিপি-উইকিপিডিয়া

উইকিপিডিয়াতে বাংলা ভাষার তথ্য বাড়াতে একযোগে প্রচারাভিযান শুরু করেছে বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন এবং উইকিমিডিয়া বাংলাদেশ।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Nov 2014, 12:09 PM
Updated : 24 Nov 2014, 06:51 PM

সোমবার বিশ্ব সাহিত্যকেন্দ্রে ‘উইকিপিডিয়া রিজিওনাল কন্ট্রিবিউটর্স মিট’ শিরোনামে এক সংবাদ সম্মেলনে দুইটি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এই উদ্যোগের কথা জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, নভেম্বরের ২৭ তারিখ থেকে ডিসেম্বরের ১৫ তারিখ পর্যন্ত ৭টি বিভাগীয় শহরে এই প্রচারাভিযান ও প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চলবে। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এক বড় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এর ইতি টানা হবে। বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়া এবং ইন্টারনেটে বাংলা ব্যবহার সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানো এই প্রচারাভিযানের লক্ষ্য।

সম্মেলনে গ্রামীণফোনের মুখ্য প্রচার নির্বাহী মার্কাস এডাকটাসন, ডিজিটাল ও সামাজিক মাধ্যমের প্রধান জাকিয়া জেরিন ও উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের সভাপতি মুনীর হাসান উপস্থিত ছিলেন।

মার্কাস এডাকটাসন বলেন, "গ্রামীণফোনের 'সবার জন্য ইন্টারনেট' কর্মসূচির অংশ হিসেবেই উইকিপিডিয়ার সাথে যুক্ত হয়েছে। আমাদের সামনে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে। আমরা সম্প্রতি ৫ কোটি গ্রাহকের কাছে পৌঁছে গিয়েছি । আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে আগামী ৩/৪ বছরের মধ্যে এদের সবার কাছে ইন্টারনেট পৌছে দেয়া।

“প্রথমটি হচ্ছে বাংলাদেশের জনগণ ইন্টারনেট সম্পর্কে জানে কিন্তু এর ব্যবহার জানে না। দ্বিতীয়টি হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য কম মূল্যের স্মার্ট ফোনের সরবরাহ বাড়ানো । এজন্য আমরা নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে কাজ করছি।”

“তৃতীয়টি হচ্ছে কনটেন্ট। বালাদেশের জন্য উপযোগী কনটেন্ট যা সবাই ব্যবহার করতে পারবে। আর এজন্য আমরা উইকিপিডিয়ার সাথে যুক্ত হয়েছি। আমরা চাই তরুণেরা স্থানীয় ভাষায় কনটেন্ট তৈরিতে আরো উদ্যোগী হবেন। এর ফলে মানুষজন ইন্টারনেট ব্যবহারে আরো উৎসাহিত হবে এবং একই সাথে উপকৃতও হবে," বলেন মার্কাস এডাকটাসন।

তিনি আরো বলেন, ”সন্তানদের ইন্টারনেট ব্যবহার করতে দেবার ব্যাপারে পিতামাতাদের যে ভীতি রয়েছে সে ব্যাপারেও আমরা সচেতন। একারণে আমরা প্রচারাভিযানে ’ইন্টারনেট নিরাপত্তা’ শিরোনামে একটি অধিবেশন রাখতে যাচ্ছি। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে তরুণদের ইন্টারনেটের ভালো ও মন্দ দিকগুলোর ওপর শিক্ষিত করা।”

উইকিপিডিয়ায় বাংলা ভাষায় প্রায় ৩০ হাজারের মত ‘কনটেন্ট’ আছে বলে জানান উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের সভাপতি মুনীর হাসান।

তিনি বলেন, ”আমাদের এখানে যারা এখন আর্টিকেল তৈরি করছেন তারা সবাই চ্যালেঞ্জিং বিষয় নিয়ে আর্টিকেল তৈরিতে ব্যস্ত। কিন্তু রুটিন কিছু কাজ থাকে। ছোট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কনটেন্ট তৈরির আগ্রহ কম। সম্প্রতি মারা যাওয়া জাতীয় স্মৃতি সৌধের স্থপতি মাইনুল হোসেনকে নিয়ে বাংলা উইকিপিডিয়ায় তেমন ভালো কোন কনটেন্ট পাওয়া যায়নি।

“সবার কাছে ইন্টারনেট পৌঁছে দেয়ার সফল হচ্ছে মানুষের ক্ষমতায়ন।”

মানুষকে সংগঠিত করতে হলেও ইন্টারনেট খুব শক্তিশালী উল্লেখ করে মাইনুল হোসেন বলেন, ”ফিলিপাইনে এসএমএস পাঠিয়ে সরকার প্রধান এস্ত্রাদার পতন ঘটিয়েছিল সেদেশের জনগণ।

“ আর মানুষকে ক্ষমতায়িত করতে হলে চাই ভালো কনটেন্ট। না হলে মানুষ আজেবাজে জিনিস পড়বে, বিভ্রান্ত হবে। উইকিপিডিয়ার ভালো কনটেন্ট তৈরি হলে মানুষ আগ্রহী হবে ইন্টারনেট ব্যবহারে। আর সবচেয়ে উপকৃত হবে স্কুলে পড়া ছেলেমেয়েরা ।”

তিনি তরুণ সমাজকে বেশি করে বাংলা কনটেন্ট তৈরির আহ্বান জানিয়ে বলেন, ”উইকিপিডিয়ার যে কেউ সমৃদ্ধ করতে পারে। আপনারা সোশ্যাল মিডিয়াতে ৫ ঘন্টা সময় দেন, এ সময়ের ৫ ভাগের ১ ভাগ উইকিপিডিয়ায় কনটেন্ট তৈরির জন্য ব্যয় করেন। ”

গ্রামীণ ফোনের ডিজিটাল ও সামাজিক মাধ্যম বিভাগের প্রধান জাকিয়া জেরিন বলেন, “ইন্টারনেট ব্যবহার জানেন না এবং অভিবাবকদের ইন্টারনেট সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। তাদের সচেতনতা বাড়ানোও এই আয়োজনের লক্ষ্য।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক