বিটমার্টে সাইবার আক্রমণ: বেহাত ১৫ কোটি ডলারের ক্রিপ্টো মুদ্রা

হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ বিটমার্ট। হ্যাকাররা “হট ওয়ালেট” থেকে ১৫ কোটি ডলার সমমূল্যের ক্রিপ্টো টোকেন চুরি করে নিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে বিটকয়েনসহ অন্যান্য ডিজিটচাল মুদ্রা লেনদেনের প্রতিষ্ঠানটি।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Dec 2021, 11:50 AM
Updated : 7 Dec 2021, 11:50 AM

বিটমার্ট বলছে, হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে মোট দুটি ওয়ালেট। এর মধ্যে একটিতে ছিল ইথেরিয়াম টোকেন, আর দ্বিতীয়টিতে ছিল বাইন্যান্স স্মার্ট চেইন টোকেন। ওয়ালেট দুটিতে “বিটমার্টের মোট সম্পদের ছোট একটি অংশ ছিল” এবং প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য ওয়ালেট “নিরাপদ ও অক্ষত আছে”-- দাবি করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

তবে বিবিসি বলছে, বিটমার্ট আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি সর্বপ্রথম চিহ্নিত করেছিল যে সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান, তাদের অনুমান, চুরি হওয়া টোকেনের বাজারমূল্য ২০ কোটি ডলারের কাছাকাছি।

হ্যাকিংয়ের পর থেকে ডিজিটাল মুদ্রা উত্তোলন বন্ধ রেখেছে বিটমার্ট। “এই মুহুর্তে আমরা এখনও (হ্যাকিংয়ের) সম্ভাব্য উপায় নিয়ে উপসংহার টানার চেষ্টা করছি”-- বলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিটমার্ট বলছে, “আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা বড় পরিসরে বিশ্লেষণ করে দেখছি এবং আমাদের অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে আপডেট জানাবো।” সাইবার আক্রমণের পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার পাশাপাশি “স্বচ্ছতা বজায় রাখার” চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার কথাও বলেছে প্রতিষ্ঠানটি।    

ক্রিপ্টো-এক্সচেঞ্জে হ্যাকিংয়ের ঘটনা আর নতুন কিছু নয়। বিশ্বের বেশিরভাগ বিটকয়েন লেনদেন করতো এমটি গক্স। সাইবার আক্রমণের শিকার হয়ে সাড়ে আট লাখ বিটকয়েন হারিয়ে বিপাকে পড়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। বিবিসি বলছে, তারপর থেকেই ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবসায় বিনিয়োগকারী এবং ক্রিপ্টো-এক্সচেঞ্জচগুলোর জন্য বড় মাথাব্যথা হয়ে দাঁড়িয়েছে সাইবার আক্রমণগুলো।

এমন পরিস্থিতিতে দৈনন্দিন লেনদেনে ব্যবহৃত হচ্ছে না এমন ক্রিপ্টোকারেন্সি বড় অংকের হলে তা ‘কোল্ড ওয়ালেট’-এ সরিয়ে রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে, বিটমার্ট থেকে ঠিক কী পরিমাণ ক্রিপ্টো টোকেন বেহাত হয়েছে, হ্যাকাররা সেবাগ্রাহকদের ওয়ালেটের উপর আক্রমণ চালিয়েছিল নাকি বিটমার্টের কেন্দ্রীয় পট তাদের লক্ষ্য ছিল, প্রতিষ্ঠানটি সেবাগ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দেবে কি না, সেই বিষয়গুলো এখনও পরিষ্কার নয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক