সংবাদমাধ্যমের সমালোচনায় মাস্ক-এর টুইট ঝড়

বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে নিজের ক্ষোভ ঝেড়েছেন বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা মার্কিন প্রতিষ্ঠান টেসলা’র প্রধান ইলন মাস্ক। মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে রয়টার্স, বিজনেস ইনসাইডার আর সিএনবিসি’র বিরুদ্ধে ক্ষুদ্ধ মত প্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 July 2018, 09:41 AM
Updated : 6 July 2018, 09:41 AM

রয়টার্সআর বিজনেস ইনসাইডার-এর বিরুদ্ধে মার্কিন এই প্রকৌশলী ও ধনকুবেরের অভিযোগ হচ্ছে এই সংবাদমাধ্যমদু’টি মিথ্যা বা ভুল তথ্য বোঝায় এমন খবর প্রকাশ করে। আর সিএনবিসি’র ফিচার বিশ্লেষকরাবাজে পূর্বাভাস দেন বলে দাবি তার।

আগেওসংবাদমাধ্যমগুলোর সঙ্গে মাস্কের বিরোধপূর্ণ সম্পর্কের নজির পাওয়া গিয়েছে। সাংবাদিকদেরসমালোচনা করে নিজেই সংবাদকর্মী ও প্রকাশনাগুলোর মান নিয়ে রেটিং করবেন এমন প্রতিষ্ঠানচালুর পরিকল্পনা জানিয়েছিলেন একাধারে টেসলা, স্পেসএক্স আর বোরিং কোম্পানির প্রধান হিসেবেথাকা এই প্রকৌশলী। সাংবাদিক আর বিনিয়োগকারীরা টেসলার দুর্ঘটনা বা অন্য বিষয়গুলোতে বেশিনজর দেন বলে অভিযোগ করেছিলেন তিনি। এক্ষেত্রে টেসলার বিজ্ঞাপন না দেওয়া আর জীবাশ্মজ্বালানী ও গ্যাস বা ডিজেলচালিত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিজ্ঞাপনে বড় বিনিয়োগকেকারণ হিসেবে দেখিয়েছিলেন তিনি।

টেসলাতাদের গাড়ির ব্রেক পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে এমন সংবাদ আর মডেল ৩ গাড়ি নিয়ে বিশ্লেষকদেরউদ্বেগের কারণে মঙ্গলবার (৩ জুলাই) টেসলার শেয়ারমূল্য পড়ে গেছে- ওইদিনই সংবাদমাধ্যমরয়টার্স তাদের এমন একটি প্রতিবেদন টুইটারে শেয়ার করে। এই খবর থেকেই নতুন এই আলোচনারজন্ম। রয়টার্সের ওই টুইট ৪ জুলাই রিটুইট করে আলেজান্দ্রো পেরেজ নামের এক ব্যবহারকারীজিজ্ঞাসা করেন, “রয়টার্স টেসলার বিপক্ষে কিনা?”। ৫ জুলাই এই টুইটের জবাবে রয়টার্সকেউদ্দেশ্য করেই মাস্ক বলেন, “রয়টার্স টেসলা সম্পর্কে সবসময় একদম নেতিবাচক। তারা মডেলএস-এর উৎপাদন গেল সপ্তাহে আটশ’ কমে গিয়েছে জানিয়ে একটি বাজে প্রতিবেদন লিখেছে। এস বাএক্স-এর বার্ষিক উৎপাদন প্রায় এক লাখ ঠিক করা, মানে সপ্তাহে ১৯০০টি। গেল সপ্তাহে টেসলাআমাদের মান অনুযায়ী ১৯১৩টি গাড়ি বানিয়েছে যেখানে এস আর এক্স-এর অনুপাত প্রায় ৫০/৫০,যা লক্ষ্য অনুযায়ী ঠিক আছে।”

তারপর আলাদা আরেকটি টুইটে সংবাদমাধ্যমটিকে উদ্দেশ্যকরে তিনি জিজ্ঞাসা করেন, “রয়টার্স, আপনারা কেন মানুষকে এই সংখ্যা নিয়ে ভুল তথ্য দিচ্ছেন?”

ওইটুইটের নিচে হ্যানস নামের এক ব্যবহারকারী জানান, রয়টার্স প্রতিবেদক স্যাল রড্রিগুয়েজ“সত্যিই নোংরা” আর তিনি মাস্ক-কে তার জন্মদিনেও “খোঁচা দিয়েছিলেন”। এই ‘খোঁচা দেওয়া’পোস্টের একটি লিঙ্কও টুইটে জুড়ে দেন তিনি।

এরপরক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন মাস্ক। নিজের পরবর্তী টুইটে ওই প্রতিবেদক আর রয়টার্সকে ট্যাগ করেতিনি বলেন, “বাহ, তার মানে রয়টার্সের স্যাল১৯ (ওই প্রতিবেদকের আইডি) এমন প্রতিবেদনলিখেছেন যা মানুষকে মডেল ৩ উৎপাদন নিয়ে ভুল তথ্য দেয় আর এর সঙ্গে আমার জন্মদিনেও আমাকেউদ্দেশ্য করে বাজে টুইট করে। সুন্দর কাজ স্যাল১৯ ও রয়টার্স।” 

এইটুইট ঝড়ে এক পর্যায়ে জেমস স্টিফেনসন নামের এক ব্যবহারকারী জানান, বিশ্লেষণায় টেসলারসর্বনিম্ন শেয়ারমূল্য উল্লেখকারী বিশ্লেষকের রেটিং ১.৫ তারকা (সম্ভবত ৫ তারকার মধ্যে)।“আপনি তাকে এখনও সিএনবিসিতে টেসলা নিয়ে কথা বলতে দেখবেন”- বলেন তিনি।

এইটুইট দেখার পর মাস্ক-এর অভিযোগের তীর ছুটে সিএনবিসির দিকেও। মার্কিন সংবাদমাধ্যমটিকেউদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “অদ্ভুত। সিএনবিসি, এটি কি সত্যি যে আপনারা এত কম রেটিং আরঅত্যন্ত বাজে পূর্বাভাস দেওয়ার রেকর্ড আছে এমন বিশ্লেষকদের রাখছেন? আপনাদের দর্শকরাকি কোনো বিশ্লেষকের মতামত শোনার আগে তাদের আগের রেকর্ড সম্পর্কে জানছেন?”

মাস্ক-এরএই টুইটের জবাবে সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদক ফিল লেবিউ মাস্ক-কে ফোন দিয়ে মন্তব্য করারআমন্ত্রণ জানান। সিএনবিসির’র ‘পাওয়ার লাঞ্চ’ অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “যদি এমন কিছু থাকেযা ভুল বা ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, যে কোনো মাধ্যমে, আজকে কল করুন। আমরা আপনাকেসম্প্রচারে নিয়ে আসতে আনন্দিত হব।” 

টুইটেরজবাব দিলেও মাস্ক ফোন করেননি বলে উল্লেখ করা হয়েছে সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে। মাস্কবলেন, “আমি সব গণমাধ্যম বা পুরো সিএনবিসিকে আক্রমণ করছি না। শুধু জিজ্ঞাসা করছি আপনারাকোনো বিশ্লেষককে আপনাদের অনুষ্ঠানে আনার আগে তার আগের রেকর্ড মানুষকে জানান কিনা।”

সিএনবিসিরপ্রতিবেদন মতে মাস্ক-এর ‘সবচেয়ে কড়া’ সমালোচনা ছিল বিজনেস ইনসাইডার প্রতিবেদক লিনেটেলোপেজ-এর বিরুদ্ধে। এই প্রতিবেদক টেসলা নিয়ে “কয়েকটি মিথ্যা প্রতিবেদন” প্রকাশ করেছেনআর টেসলার এক সাবেক কর্মীকে প্রতিষ্ঠান নিয়ে তার মূল্যবান মেধাসত্ত্ব দিতে অর্থ পরিশোধকরেছেন বলে অভিযোগ মাস্ক-এর।

ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়কমার্কিন প্রকাশনাটির প্রধান সম্পাদক অ্যালিসন শনটেল জবাবে টুইটে জানান, প্রকাশনাটিকোনো সূত্রকে অর্থ পরিশোধ করে না। সেই সঙ্গে লোপেজ-এর প্রতিবেদনের পক্ষে অবস্থান নেনতিনি।  

চীনেবিনিয়োগের বিষয়ে বিনিয়োগ পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান কায়নিকস অ্যাসোসিয়েটস-এর প্রধান জিমচেনোস-এর পরামর্শ নিয়ে লেখা এক প্রতিবেদনে তার সঙ্গে সম্মতি প্রকাশের কারণে লোপেজ-এরনিন্দা করেন মাস্ক। 

মাস্ক-এরএই সমালোচনার জের ধরে মন্তব্যের জন্য মেইল করা হলেও রয়টার্সের পক্ষ থেকে কোনো জবাবপাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করা হয়েছে সিএনবিসি’র প্রতিবেদনে। আর কোনো মন্তব্য করতে সাড়াদেয়নি টেসলাও।

আরও খবর-

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক