ডিলিট ফেইসবুক-এ শামিল টেসলা, স্পেসএক্স

মহাকাশযান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স ও বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলা’র ভেরিফাইড ফেইসবুক পেইজ মুছে ফেলেছেন প্রতিষ্ঠান প্রধান ইলন মাস্ক।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 March 2018, 08:30 AM
Updated : 24 March 2018, 08:30 AM

শুক্রবার প্রতিষ্ঠানগুলোর ফেইসবুক পেইজ মুছতে মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটার-এ মাস্ক-কে চ্যালেঞ্জ করেন এক গ্রাহক। এর কয়েক মিনিটের মধ্যে প্রতিষ্ঠান দু’টির ভেরিভাইড পেইজ মুছে ফেলা হয়-- খবর রয়টার্স-এর।

শুরুটা ছিল হোয়াটসঅ্যাপ সহ-প্রতিষ্ঠাতা ব্রায়ান অ্যাকটন-এর ‘ডিলিটফেইসবুক’ হ্যাশট্যাগ দেওয়া টুইট থেকেই। অ্যাকটন-এর ওই টুইটের বিপরীতে মাস্ক প্রশ্ন করেন, “ফেইসবুক কী?”। তখন মাস্ককে উদ্দেশ্য করে এক টুইটার ব্যবহারকারী বলেন, “আপনি যদি পুরুষ হন তবে ফেইসবুকে স্পেসএক্স-এর পেইজ মুছে ফেলুন।” জবাবে মাস্ক বলেন, “আমি খেয়াল করিনি সেখানে একটি পেইজ আছে। করে ফেলবো।”

 

এই টুইট বিবাদে এসে যুক্ত হন বাজফিড নিউজ-এর প্রযুক্তি প্রতিবেদক রায়ান ম্যাক। স্পেসএক্স-এর ফেইসবুকের একটি স্ক্রিনশট দিয়ে টুইটে করেন তিনি, সঙ্গে লিখে দেন- “আমরা অপেক্ষা করছি।” সঙ্গে সঙ্গে উদ্বিগ্ন এক ব্যক্তির চেহারাযুক্ত জিফ পোস্ট করে তা “স্পেসএক্স-এর সামাজিক মাধ্যমের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তির অবস্থা” বলে ঠাট্টা করেন ম্যাক।

 

পরবর্তীতে দ্য ওয়ার-এর প্রতিবেদক ব্রাইসন এর নিচে জুড়ে দেন টেসলা’র ফেইসবুক পেইজের স্ক্রিনশট, এতে তিনি বলেন, “এটিও মুছে ফেলা উচিত, তাই না?”। এরপর মাস্ক ফিরতি টুইটে বলেন, “অবশ্যই, তবে এটি গুরুত্বহীন।”  পরবর্তী টুইটেই স্পেসএক্স-এর মুছে ফেলা ফেইসবুক পেইজের স্ক্রিনশট টুইট করে উচ্ছাস প্রকাশ করেন ম্যাক।

 

স্পেসএক্স ও টেসলা’র এই পেইজগুলোতে কয়েক লাখ অনুসারী ছিল। এখন আর সেগুলোতে প্রবেশ করতে পারছেন না এসব গ্রাহক।

সম্প্রতি ফেইসবুক গ্রাহকের তথ্য অপব্যবহার করার বিষয়টি সামনে আসে। গ্রাহকের তথ্য যায় রাজনৈতিক উপদেষ্টা প্রতিষ্ঠান কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা’র কাছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ২০১৬ নির্বাচনের সময় তার প্রচারণায় কাজ করেছিল প্রতিষ্ঠানটি।

টেসলা ও স্পেসএক্স-এর ফটো-শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলতেও মাস্ক-কে বলেছেন অনেক গ্রাহক।

জবাবে মাস্ক বলেন, “সম্ভবত ইনস্টাগ্রাম ঠিক আছে। যতক্ষণ পর্যন্ত এটি মোটামুটি স্বাধীন থাকে।”

“আমি এফবি ব্যবহার করি না এবং কখনোই করিনি, তাই মনে করবেন না আমরা শহিদ হয়ে গেলাম বা আমার প্রতিষ্ঠানগুলো (এর মাধ্যমে) বিশাল কিছু করে ফেলছে। এ ছাড়াও আমরা এখানে বিজ্ঞাপন দেইনা বা সমর্থনের জন্য খরচ করিনা, তাই আমরা পাত্তা দিচ্ছি না।”

অতীতেও ফেইসবুক প্রধান মার্ক জাকারবার্গ-এর সঙ্গে দ্বন্দ্ব দেখা গেছে মাস্ক-এর।

আগের বছর মাস্ক ও জাকারবার্গ-এর মধ্যে রোবট নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা গেছে। রোবট তাদের মানব স্রষ্টাকে হত্যা করার মতো যথেষ্ট স্মার্ট হবে কিনা এ নিয়ে দ্বন্দ্ব হয় তাদের মাঝে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক