ইউরোপে রেকর্ড জরিমানা গুগলকে

সার্চ ফলাফলে ‘নিজেদের পণ্য’ আগে দেখানোর মাধ্যমে বাজারে ‘অন্যায় প্রভাব’ রাখার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলকে রেকর্ড ২৭০ কোটি ডলার জরিমানা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 June 2017, 12:36 PM
Updated : 27 June 2017, 01:50 PM

ইউরোপীয় কমিশনের প্রতিযোগিতা বিষয়ক কমিশন মঙ্গলবার এক রায়ে বলেছে, গুগল যদি আরও জরিমানার মুখোমুখি হতে না চায়, তাহলে ৯০ দিনের মধ্যে তাদের ওই অন্যায় আচরণ বন্ধ করতে হবে।

গুগল এই রায়ের বিরুদ্ধে ‘আপিল করার কথা বিবেচনা করছে’ বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

ছবি- ইউরোপিয়ান কমিশন

আগামী তিন মাসের মধ্যে গুগল তার আচরণে পরিবর্তন না আনলে গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেটের দৈনিক গড় বৈশ্বিক আয়ের পাঁচ শতাংশ করে জরিমানা করা হবে। প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে এই জরিমানা হতে পারে দৈনিক প্রায় এক কোটি ৪০ লাখ ডলার।

প্রতিযোগিতাবিমুখ এই আচরণ গুগল কীভাবে সংশোধন করবে, রায়ে তা ঠিক করার ভার গুগলের ওপরই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এই রায়ের বিষয়ে ইউরোপীয় কমিশনের প্রতিযোগিতাবিষয়ক কমিশনার মারগ্রেথ ভেস্টেজার বলেছেন- “গুগল যা করেছে তা ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইন অনুসারে অবৈধ।”

“প্রতিষ্ঠানটি বাজারে অন্য প্রতিযোগীদের মেধার ভিত্তিতে প্রতিযোগিতার এবং উদ্ভাবনের সুযোগ নষ্ট করেছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি ইউরোপের ভোক্তাদেরকে প্রতিযোগিতামূলক বাজারের সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেছে।”

ছবি- গুগল

গুগল মামলা চলাকালে বলেছে, অ্যামাজন এবং ইবে বরং ভোক্তাদের খরচের ওপর অনেক বেশি প্রভাব রাখে। প্রতিষ্ঠানটি বরবরই দায়ের করা অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে।

রায় বিষয়ে গুগলের এক মুখপাত্র বলেছেন, “আপনি যখন অনলাইনে কেনাকাটা করেন আপনি চাইবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত পণ্যটি সহজে পেতে।”

“বিজ্ঞাপনদাতারাও ওইসব পণ্যেরই প্রচার চায়। যে কারণে গুগল ক্রেতাদের বিজ্ঞাপন দেখায় যা বিজ্ঞাপনদাতা ও ভেক্তাদের সম্মিলন ঘটায়। এটা দু’পক্ষের জন্যই ভাল।”

“আমরা এই রায়ের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেই দ্বিমত পোষণ করছি। আপিল করার লক্ষে আমরা রায়ের পূর্ণ বিশ্লেষণ করব।”

ছবি- গুগল

কোনো ভোক্তা যখন গুগলে কোনে পণ্যের খোঁজ করেন, গুগল তখন সার্চ ফলাফলের ওপরে ‘স্পন্সর্ড’ শিরোনামে সংশ্লিষ্ট পণ্যের ছবি, মূল্য ও ক্রেতা রিভিউ প্রদর্শন করে। এই শ্রেণিতে গুগল সেইসব প্রতিষ্ঠানের পণ্যই প্রদর্শন করে যেগুলোর জন্য উপাদক প্রতিষ্ঠান গুগলকে অর্থ পরিশোধ করেছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় একজন ক্রেতা যখন গুগলে কোনো খেলনার খোঁজ করেন, সার্চ ফলাফলের ওপরে ‘স্পন্সর্ড’ অংশে গুগল নির্দিষ্ট নির্মাতার খেলনাই দেখায় যারা গুগলকে বিজ্ঞাপন দেয়।

গুগলের একচেটিয়া আচরণ নিয়ে ইউরোপীয় কমিশন গত সাত বছর ধরে তদন্ত করছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক