ইয়াহুর গোপন আদেশ খতিয়ে দেখছে ইসি

ইয়াহুকে দেওয়া আদালতের গোপন নির্দেশ সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে জানতে চেয়েছে ইউরোপিয়ান কমিশন।

রিয়াদ মোর্শেদবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Nov 2016, 01:06 PM
Updated : 12 Nov 2016, 01:06 PM

সম্প্রতি হাজারো গ্রাহকের ইমেইল স্ক্যান করে সন্ত্রাস এর সন্ধান পাওয়ার জন্য আদালতের এই আদেশ ব্যবহার করেছে মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ইয়াহু। কিন্তু ইয়াহুর এই কার্যক্রম নতুন ডেটা ট্রান্সফার চুক্তি ভঙ্গ করেছে কি না সেটিই জানতে চায় ইউরোপিয়ান কমিশন, তথ্য রয়টার্স-এর।

এর আগে প্রাইভেসি শিল্ড (যুক্তরাষ্ট্রের কমার্স বিভাগ এবং ইউরোপিয়ান কমিশনের যৌথ উদ্যোগ্যে ডেটা প্রতিরক্ষা আইন) এর চুক্তি অনুযায়ী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপিয়ানদের ডেটা স্টোরে প্রবেশ এবং সংগ্রহের জন্য সীমানা রাখার ব্যাপারে সম্মত হয়েছিল। এর কারণ ছিল ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ডেটা গোপনীয়তা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউরোপিয়ানদের ওপর করা নজরদারি নিয়ে সর্তকতা।

পূর্বের চুক্তিতেও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের উচ্চ আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। ফলে হাজারো প্রতিষ্ঠানের আইনি উপায়ে ক্রেডিট কার্ড থেকে শুরু করে পর্যটনের আর্থিক লেনদেন এর ডেটা আদান প্রদান বন্ধ হয়ে যায়। এ ছাড়াও দুই দেশের ই-কর্মাস বাণিজ্য খাতের কোটি কোটি ডলারও হুমকির মুখে পড়ে।

রয়টার্সের পূর্বের প্রতিবেদন অনু্যায়ী ইয়াহু বাইরের দেশ থেকে আসা সকল গ্রাহকের ইমেইল স্ক্যান করে বিদেশি কোনো রাজ্যের সঙ্গে সন্ত্রাসের সম্পৃক্ততা খুঁজতে সরকারকারকে সহায়তা করে। আর ইয়াহুর এই কার্যক্রম চালানো হয় মার্কিন আদালতের গোপন আদেশে। একটি স্বাভাবিকভাবেই এটি মার্কিন গোয়েন্দাদের কার্যত্রম সম্পর্কে প্রশ্নের জন্ম দেয়।

এই সম্পর্কে ইউরোপিয়ান কমিশন এর মুখপাত্র জানায়, “কিছু জবাবদিহিতা চাওয়ার জন্য মার্কিন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে কমিশন সার্ভিস।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক