কম্পিউটারের কথায়ও 'আসবে' আবেগ!

কম্পিউটার বলবে মানুষের মতো কথা- এ নিয়ে বড় এক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার দাবি করেছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান ডিপমাইন্ড।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Sept 2016, 10:56 AM
Updated : 10 Sept 2016, 10:56 AM

২০১৪ সালে ৫৩কোটি ২০ লাখ মার্কিন ডলারে প্রতিষ্ঠানটিকে কিনে নিয়েছিল গুগল। বুধবার এক ব্লগপোস্টে নিজদের নতুন ওই প্রযুক্তি নিয়ে বর্ণনা দেয় বর্তমানে অ্যালফাবেট-এর অধীনস্তপ্রতিষ্ঠানটি। তারা জানায়, তারা নতুন এমন প্রযুক্তি বানাতে সক্ষম হয়েছেন যারমাধ্যমে কম্পিউটার থেকে তৈরি বক্তব্য আরও স্বাভাবিক শোনাবে। আর এটি গুগলের বর্তমানসমাধান থেকে আরও উন্নত বলে দাবি ডিপমাইন্ড-এর।

ডিপমাইন্ডবলেছে, "মানুষকে যন্ত্রের সঙ্গে আলাপ করার সুযোগ দেওয়াটা মানুষ-কম্পিউটারযোগাযোগের একটি অনেকদিনের স্বপ্ন।"

এখন পর্যন্তকম্পিউটার থেকে উক্তি বের করাটা টেক্সট-টু-স্পিচ (টিটিএস) নামে পরিচিত। এইপ্রক্রিয়া মাইক্রোসফট-এর কর্টানা বা অ্যাপলের সিরি-তে ব্যবহার করা হচ্ছে। এটি এমনএক প্রক্রিয়ার উপর নির্ভর করে বানানো, যেখানে একজন মানুষের বলা অনেকগুলো উক্তিরএকটি বিশাল ডেটাবেইস ধারণ করা হয় আর সেগুলো সমন্বয় করে এক একটি বাক্য তৈরি করা হয়।কিন্তু এর ফলে কম্পিউটার থেকে আসা উক্তিকে পরিবর্তন করা বা এতে আবেগ সংযোজনকষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে, জানিয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি।

ডিপমাইন্ড-এরবানানো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবস্থা ওয়েভনেট তরঙ্গরূপে শব্দ তৈরি করতে সক্ষম। সেইসঙ্গে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মানব মস্তিষ্ক অনুকরণ করার চেষ্টা প্রক্রিয়া নিউরালনেটওয়ার্ক প্রযুক্তির মাধ্যমে যে কোনো ধরনের শব্দ উৎপন্ন করে। 

তরঙ্গরূপে শব্দউৎপন্ন করতে ডিপমাইন্ড-কে ডেটা উৎপন্ন করতে প্রতি সেকেন্ডে ১৬ হাজার নমুনা নিতেহবে। এরপর তা কথায় পরিণত করা যেতে পারে।

নিজেদের বানানোচীনা ও ইংরেজি ভাষায় কথা বলা কম্পিউটার ব্যবস্থা গুগলের চেয়ে উন্নত বলে দাবিডিপমাইন্ড-এর।

এক ব্লগে ডিপমাইন্ড-এরপক্ষ থেকে বলা হয়, "আপনি এই নমুনাগুলো থেকে শুনতে পারবেন, একটি একক ওয়েভনেটঅনেকগুলো স্বরের বৈশিষ্ট্য শিখতে সক্ষম, পুরুষ ও নারীর। দিয়ে দেওয়া কোনো কথায় কোনস্বর ব্যবহার করতে হবে তা নিশ্চিত করতে, আমরা নেটওয়ার্কটি বক্তার পরিচয় দিয়েনিয়ন্ত্রিত করে দিয়েছি।"

প্রতিষ্ঠানটিজানায়, কম্পিউটারের কথাকে "আরও বৈচিত্রময় ও আকর্ষণীয়" করতে এ মডেল-এআবেগ ও বাচভঙ্গির মতো বিষয় যোগ করা হতে পারে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক