এবার ‘প্রাণ বাঁচালো’ পোকিমন গো

খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে অগমেন্টেড রিয়ালিটি গেইম ‘পোকিমন গো’। চালু হওয়ার পর থেকেই গেইমটি নিয়ে উন্মাদনার কথা যেমন শোনা গিয়েছে তেমনি দূর্ঘটনার খবরও পাওয়া গিয়েছে। এবার গেইমটিই জীবন বাঁচিয়েছে ২২ বছরের এক যুবকের।

ফুয়াদ তানভীর অমিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2016, 02:59 PM
Updated : 24 July 2016, 02:59 PM

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড মিরর জানিয়েছে, জ্যাককিলবোর্ন নামের ওই যুবক গেইমটি খেলা শুরু করার আগে ‘ভেঙ্গে’ পড়েছিলেন। বিষাদময়জীবন থেকে মুক্তি পেতে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেয় সে। চলতি বছরের মার্চেযুক্তরাজ্যের লিস্টার-এর বহুতল গাড়ির পার্কিং থেকে লাফ দিতে গিয়ে শেষ মূহুর্তেফিরে আসেন তিনি।

মানসিক বিষণ্ণতার কারণে ঘর ছেড়ে বের হওয়াবন্ধ করে দেয় জ্যাক। কিন্তু যুক্তরাজ্যে পোকিমন গো গেইমটি চালু হওয়ার পর বেঁচেথাকার জন্য নতুন কিছু পান তিনি। পোকিমন খুঁজতে কয়েক সপ্তাহ পর প্রথমবারের মতো ঘরথেকে বের হন। এমনকি পোকিমন ধরতে তিনি তার নিজের শহর লিস্টার থেকে প্রায় ৭৫ মাইলহেঁটে পার হন।

জ্যাক বলেন, “আমি বাড়ি ছেড়ে বের হতেচাইনি। আমি আমার নিজের চিন্তা ভাবনার মধ্যে বন্দী হয়ে ছিলাম। আমি দুই সপ্তাহ বাড়িরমধ্যে কাটিয়েছি কারণ আমি বাইরে যাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্থ ছিলাম।”

তিনি আরও বলেন, “আমি দুনিয়ার এবং আমার আশাছেড়ে দিয়েছিলাম এবং কয়েক মাস আগে আমি আত্মহত্যা করার জন্য গাড়ি পার্কিং থেকেলাফিয়ে পরতে গিয়েছিলাম। শেষ মূহুর্তে কিছু একটা আমাকে বাধা দেয় এবং আমি নেমে আসি।”

এরপর বিষণ্ণতা কাটিয়ে উঠতে চিকিৎসকের কাছেযান জ্যাক। তিনি এমন কিছু খুঁজছিলেন যেটি তাকে এর থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করবেন।পোকিমন গো উন্মোচন করা হলে তিনি বেঁচে থাকার জন্য নতুন কিছু খুঁজে পান।

তিনি বলেন, “পোকিমন গো উন্মোচন করা হলেআমি অ্যাপটি ডাউনলোড করি এবং এটি আমাকে বাড়ি থেকে বের হতে বাধ্য করে। ১৫০টিপোকিমনের মধ্যে এখন আমার কাছে ৭৫টি আছে এবং আমি সবগুলো ধরতে চাই। পোকিমন আমার জীবনবাঁচিয়েছে। এটি আমাকে আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছে এবং আমাকে সম্পূর্ণভাবে বদলে দিয়েছে।”

পোকিমন গো যাতে তার মতো আরও মানুষকে সহয়তাকরতে পারে সেই লক্ষ্যে হ্যাচ, ক্যাচ, ইভোলভ নামে নতুন প্রকল্প চালু করেছেন জ্যাক।এই প্রকল্প মানুষকে বিষণ্ণতা কাটিয়ে উঠে ভালোভাবে বাঁচতে সাহায্য করবে বলে বিশ্বাসকরেন তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক