ইন্টারকে আবারও হারিয়ে গ্রুপ সেরা রিয়াল

প্রথমার্ধ জুড়ে কেবল আক্রমণই করে গেল ইন্টার মিলান; কিন্তু প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণ ভাঙতে পারল না তারা। আর পাল্টা আক্রমণে এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে তাদের তেমন কোনো সুযোগই দিল রিয়াল মাদ্রিদ। দারুণ পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে গ্রুপ সেরা হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে উঠল কার্লো আনচেলত্তির দল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Dec 2021, 09:52 PM
Updated : 7 Dec 2021, 11:05 PM

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে মঙ্গলবার রাতে ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচে দ্বিতীয়ার্ধের অনেকটা সময় একজন কম নিয়ে খেলা ইন্টারকে ২-০ গোলে হারিয়েছে রিয়াল। টনি ক্রুস দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর শেষ দিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মার্কো আসেনসিও।

আসরে এই নিয়ে টানা চার ও মোট পাঁচ জয় পেল রিয়াল। ১৫ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ সেরা হলো তারা। তিন জয় ও এক ড্রয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ ইন্টার।

গ্রুপের অন্য ম্যাচে শাখতার দোনেৎস্কের মাঠে ১-১ ড্র করেছে শেরিফ তিরাসপুল। ৭ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় হয়ে ইউরোপা লিগে খেলবে শেরিফ।

দারুণ ছন্দে থাকা রিয়ালের ওপর শুরুতে কিছুটা চাপ বাড়ায় ইন্টার। অবশ্য দ্রুত নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে সপ্তদশ মিনিটে ক্রুসের দুর্দান্ত এক গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। রদ্রিগোর পাস ধরে জায়গা বানিয়ে দূর থেকে জোরালো কোনাকুনি শটে ঠিকানা খুঁজে নেন জার্মান মিডফিল্ডার।

গত অক্টোবরে শাখতার দোনেৎস্কের বিপক্ষে ৫-০ ব্যবধানের জয়ে করিম বেনজেমার শেষ গোলটিকে ইউরোপিয়ান কাপে নিজেদের হাজারতম গোল উদযাপন করেছিল রিয়াল। তবে ২০০৪-০৫ আসরের বাছাইপর্বে তারা করেছিল পাঁচ গোল। ওই পাঁচটি ধরেই তখন হিসাব করা হয়েছিল এক হাজার গোল।

এবার সেই জটিলতাও কেটে গেল। বাছাইয়ের গোলগুলো বাদ দিয়েই ইউরোপিয়ান কাপের মূল পর্বে প্রথম ক্লাব হিসেবে এক হাজার গোলের মাইলফলক স্পর্শ করল রেকর্ড ১৩ বারের ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা।

পিছিয়ে পড়ার পর আরও চাপ বাড়ায় ইন্টার, যদিও প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণ ভেঙে নিশ্চিত কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না তারা। প্রথম ৩৫ মিনিটে বল দখলে আধিপত্য করে গোলের উদ্দেশ্যে তারা ১২টি শট নেয়, রিয়ালের তিন গুণ; তবে মাত্র একটিই লক্ষ্যে রাখতে পারে তারা।

বিরতির আগে উল্টো দ্বিতীয় গোল হজম করতে বসেছিল ইন্টার। কিন্তু ডি-বক্সে রদ্রিগোর শরীর ঘুরিয়ে নেওয়া শট বাঁক খেয়ে পোস্টে লাগে। একটু পরই ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ডের শট পাশের জাল কাঁপায়।

বিরতির পর সমানতালে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ চললেও উল্লেখযোগ্য কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না কেউই। এর মাঝেই ৬৪তম মিনিটে বড় থাক্কা খায় ইন্টার। সাইডলাইনে তাদের মিডফিল্ডার নিকোলো বারেল্লাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন এদের মিলিতাও। মেজাজ হারিয়ে ডিগবাজি খেয়ে উঠেই প্রতিপক্ষকে হাত দিয়ে আঘাত করে বসেন বারেল্লা।

এতে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পর ভিএআরের সাহায্যে বারেল্লাকে লাল ও মিলিতাওকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি।

পাসিং ফুটবলে গড়া আক্রমণে ৭৯তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন আসেনসিও। ডান দিক থেকে দানি কারভাহালের ছোট পাস ধরে ডি-বক্সের দাগের ওপর জায়গা বানিয়ে উঁচু শট নেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডারের। বল দূরের পোস্টের ভেতরের দিকে লেগে জালে জড়ায়।  

সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এই নিয়ে টানা ১২ ম্যাচে অপরাজিত রইল রিয়াল, এর ১১টিই জয়। সবশেষ তারা জিততে ব্যর্থ হয়েছিল গত ২৭ অক্টোবর, লা লিগায় ওসাসুনার বিপক্ষে করেছিল গোলশূন্য ড্র।

আগামী রোববার ঘরোয়া লিগে আতলেতিকো মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে রিয়াল। নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের মুখোমুখি হওয়ার আগে ইন্টারকে হারানো নিশ্চিতভাবেই তাদের বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগাবে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক