রয়েল-দি সিলভায় আবাহনীর শুভসূচনা

শুরুর দিকে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ লড়ল সমানে সমান। কিন্তু সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নবাগত দলটি হারাতে থাকল ছন্দ। জড়তা কাটিয়ে গুছিয়ে উঠল আবাহনী লিমিটেড। শেষ দিকে নাটকীয়তার ইঙ্গিত মিললেও মেহেদী হাসান রয়েল ও রাফায়েল দি সিলভার নৈপুণ্যে স্বাধীনতা কাপে শুভসূচনা করল প্রতিযোগিতার ২০১৬ সালের রানার্সআপরা।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2021, 01:47 PM
Updated : 29 Nov 2021, 02:23 PM

কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সোমবার ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে মারিও লেমোসের দল।

ঘরোয়া ফুটবলের দ্বিতীয় স্তরের প্রতিযোগিতা বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগের সেরা হয়ে এবারই প্রিমিয়ার লিগের টিকেট পায় স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ। সুবাদে স্বাধীনতা কাপে খেলার সুযোগও মেলে দলটির। শুরুতে চমক দেখানোর আভাস দিলেও অভিজ্ঞতায় এগিয়ে থাকা আবাহনীর বিপক্ষে পেরে ওঠেনি তারা।

চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ খেলেছে টার্ফেই। ফলে এর সঙ্গে মানিয়ে নিতে সমস্যা হয়নি তাদের। কিন্তু দশম মিনিটে তাদের সামনে দূর্ভাগ্য পথ আগলে দাঁড়ায়। নদিরবেক মাভলোনোভের লম্বা ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে বসনিয়া-হার্জেগোভিনার ফরোয়ার্ড নেদো তুর্কোভিচের চিপ শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিলেও দূরের পোস্টে লেগে ফিরে। ছয় মিনিট পর তুর্কোভিচের দূরপাল্লার ভলি পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।

২৪তম মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগ পায় আবাহনী। এক মৌসুম পর বাংলাদেশের ফুটবলে ফেরা দেনিয়েল কলিনদ্রেস সোলেরার ফ্রি কিকে বল বক্সের মধ্যে পেলেও তালগোল পাকিয়ে শট নিতে পারেননি ইরানের ডিফেন্ডার মিলাদ শেখ সোলেমানি।

পাঁচ মিনিট পর এগিয়ে যায় ১৯৯০ সালে প্রথম ও সবশেষ এ প্রতিযোগিতার শিরোপা জেতা আবাহনী। বাঁ দিক থেকে নুরুল নাঈম ফয়সালের ক্রস ফেরাতে ইরানের ডিফেন্ডার সিয়ামাক কোরেশির হেডের চেষ্টা ব্যর্থ হয়। বল তার মাথা ছুঁইয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর হেডেই লক্ষ্যভেদ করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র থেকে এ মৌসুমেই আবাহনীতে আসা ফরোয়ার্ড রয়েল।

শুরু থেকে নিজের ছায়া হয়ে থাকা কলিনদ্রেস প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোল পাননি ভাগ্যের ফেরে। কোস্টা রিকার হয়ে ২০১৮ বিশ্বকাপ খেলা এই ফরোয়ার্ডের বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া জোরালো শট ক্রসবার কাঁপিয়ে ফিরে।

৫৮তম মিনিটে জিল্লুর রহমান জালে বল জড়ালেও অফসাইডের কারণে গোল হয়নি। সমতায় ফেরা হয়নি স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘেরও।

৭৪তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। প্রতিপক্ষের ভুল পাস থেকে বল পেয়ে আক্রমণে ওঠা দি সিলভাকে আটকানোর কোনো চেষ্টাই করেননি স্বাধীনতার ডিফেন্ডাররা। একটু এগিয়ে ডান পায়ের নিখুঁত শটে দূরের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। ঠিকঠাক পজিশনে না থাকায় ঝাঁপিয়ে পড়েও বলের নাগাল পাননি গোলরক্ষক রাজু আহমেদ।

৮৮তম মিনিটে দি সিলভার লম্বা ক্রস রাকিব হোসেন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বক্সে ঢুকে ক্রসবারের উপর দিয়ে উড়িয়ে মারেন। তখন তার সামনে ছিল কেবল স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘের গোলরক্ষক।

দুই মিনিট পর গোল পায় স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ। রাফাল জাবোরোভস্কির ফ্রি কিকের পর এক পর্যায়ে বক্সের ভেতরে বল পেয়ে যান মাভলোনোভ। উজবেকিস্তানের এই মিডফিল্ডার দারুণ সাইড ভলিতে জাল খুঁজে নেন। এই গোল যদিও কেবল হারের ব্যবধানই কমিয়েছে।

গত মৌসুমে টাইব্রেকারে বসুন্ধরা কিংসের কাছে হেরে স্বাধীনতা কাপের সেমি-ফাইনাল থেকে বিদায়ঘণ্টা বেজেছিল আবাহনীর। লিগে তারা হয়েছিল তৃতীয়। নতুন মৌসুমের শুরুতে শঙ্কা জাগলেও শেষ পর্যন্ত অবশ্য স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল লেমোসের দল।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক