‘যে কোনো মূল্যে’ জিততে চেয়েছিল ইতালি

ধারণার চেয়েও কঠিন হবে চ্যালেঞ্জ, দলকে আগেই বার্তা দিয়েছিলেন রবের্তো মানচিনি। অস্ট্রিয়ার চোয়ালবদ্ধ লড়াইয়ে তাই চমকে যায়নি তার দল ইতালি। বরং শেষ পর্যন্ত লড়ে জয়ের দেখা পেতে তারা ছিল বদ্ধ পরিকর। সেই লক্ষ্য পূরণ হওয়ায় ম্যাচ শেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন ইতালি কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 June 2021, 06:53 AM
Updated : 27 June 2021, 10:38 AM

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ ষোলোয় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ম্যাচে অস্ট্রিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পা রাখে ইতালি।

এই জয়ে নিজেদের অপরাজেয় যাত্রা রেকর্ড ৩১ ম্যাচে নিয়ে যায় মানচিনির দল। তবে গ্রুপ পর্বে দুর্দান্ত পারফর্ম করা দলটির এ দিন কঠিন পরীক্ষা নেয় অস্ট্রিয়া।

নির্ধারিত সময় গোলশূন্য থাকার পর অতিরিক্ত সময়ে দুটি গোল করে ইতালি। অস্ট্রিয়া পরে ফিরিয়ে দেয় একটি। উত্তেজনাপূর্ণ শেষ সময়ে ওই ব্যবধান ধরে রেখে মাঠ ছাড়ে ইতালি।

ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে মানচিনি বললেন, এমন কিছুর জন্য তৈরিই ছিল তার দল।

“আমরা জানতাম, এই ম্যাচে বড় পরীক্ষা দিতে হতে পারে আমাদের এবং এটাও ভাবনায় ছিল যে, এই লড়াই কোয়ার্টার-ফাইনালের চেয়েও কঠিন হতে পারে। পরের রাউন্ডে আমরা যেসব দলের মুখোমুখি হব, অস্ট্রিয়া অবশ্যই অতটা ভালো দল নয়। তবে তারা প্রতিপক্ষের কাজ কঠিন করে তোলে। তাদের অনেক ম্যাচ আমরা দেখেছি এবং তারা অনেক ভোগায়।”

“প্রথমার্ধে গোল করতে পারলে ম্যাচ অন্যরকম হতো। সেটা আমরা পারিনি, তাই হাল না ছেড়ে লড়াই চালিয়ে যেতে হয়েছে। আমাদের ছেলেরা যে কোনো মূল্যে জিততে চেয়েছিল।”

ম্যাচে প্রথমবার জালে বল ঢুকেছিল ইতালিরই। ৬৫তম মিনিটে তাদের হতবাক করে দিয়ে হেডে জালে বল পাঠান অস্ট্রিয়ার মার্কো আর্নাউতোভিচ। তবে অল্পের জন্য তিনি অফসাইডে থাকায় রক্ষা পায় ফেভারিটরা।

ওই গোলটি হলেও ইতালি হাল ছাড়ত না, দাবি মানচিনির। তবে হতাশার কথাও জানালেন তিনি।

“ওই গোলটি হলেও বেশ সময় ছিল, আমরা হয়তো ম্যাচে ফিরতে পারতাম। তবে গোল হজম করলে আমি হতাশই হতাম। কারণ, প্রথমার্ধে দাপট দেখিয়েও আমরা গোল করতে পারিনি।”

“দ্বিতীয়ার্ধে আমরা একটু বেশি ভুগেছি, কারণ অস্ট্রিয়ার ওপর ছড়ি ঘোরানো সহজ নয়। তারা প্রতিপক্ষের কাজ কষ্টকর করে তোলে।”

কোয়ার্টার-ফাইনালে ইতালির অপেক্ষায় আরও বড় চ্যালেঞ্জ। তাদেরকে খেলতে হবে পর্তুগাল ও বেলজিয়ামের ম্যাচের বিজয়ী দলের সঙ্গে। সম্ভাব্য দুই প্রতিপক্ষ নিয়ে মানচিনি নিজের কোনো পছন্দ নেই।

“কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠার পর, কাজটা এমনিতেও সহজ নয়। এমনিতে তো আমরা এই দুই দলকেই এড়াতে চাইতাম, কিন্তু তা তো সম্ভব নয়!”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক