শেষ ৫ ম্যাচ জিতলেই শিরোপা বার্সার, বিশ্বাস কুমানের

ঠাসা সূচিতে খেলোয়াড়দের ক্লান্তি আর চোটে বিপর্যস্ত প্রতিটি দল। শতভাগ জয়ের ধারা ধরে রাখার অবস্থায় নেই কেউই। আর তাই বার্সেলোনা কোচের বিশ্বাস, পয়েন্ট তালিকায় পিছিয়ে থাকলেও নিজেদের শেষ পাঁচ ম্যাচের সবকটি জিতলে চ্যাম্পিয়ন হবে তারাই।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 May 2021, 03:49 PM
Updated : 1 May 2021, 03:49 PM

লা লিগায় আগের রাউন্ডে ঘরের মাঠে গ্রানাদার বিপক্ষে বার্সেলোনার হেরে যাওয়ায় শিরোপা-ভাগ্য চলে যায় অন্যের হাতে। হিসাবটা এখন এমন, নিজেরা কেবল সব ম্যাচ জিতলেই হবে না, পয়েন্ট হারাতে হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদকেও।

শিরোপা লড়াইয়ে থাকা চার দলের পয়েন্ট ব্যবধান কেবল ৩। ৭৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আতলেতিকো মাদ্রিদ। সমান ৭১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে যথাক্রমে রিয়াল ও বার্সেলোনা। ৭০ পয়েন্ট নিয়ে চারে সেভিয়া। আতলেতিকোর বিপক্ষে একটি ম্যাচ আছে বার্সেলোনার।

রোববার বাংলাদেশ সময় রাত একটায় স্বাগতিক ভালেন্সিয়ার মুখোমুখি হবে কাতালান দলটি। ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতার বাস্তব চিত্র তুলে ধরেন কুমান।

“আমার বিশ্বাস, বাকি পাঁচ ম্যাচ জিতলে আমরা চ্যাম্পিয়ন হব।”

“গ্রানাদার বিপক্ষে পরাজয়টা হতাশার, কারণ আমরা একটা সুযোগ হারিয়েছি। তবে ওই কষ্ট নিয়ে পড়ে থাকার সময় নেই…আমরা এখনও লা লিগার লড়াইয়ে আছি। উন্নতির অনেক জায়গা আছে, আমরা কথা বলেছি এবং আমি মনে করি, দল ভালোমতোই প্রস্তুত।”

একটু ভুলের জন্য চড়া মাশুল দিতে হবে বলে মনে করেন এই ডাচ কোচ। ব্যাপারটা শিরোপা লড়াইয়ের সব দলের ক্ষেত্রে একইরকম বলে মনে করেন তিনি।

“খুব ভালো মানের সব দল নিয়ে এটা তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এক চ্যাম্পিয়নশিপ। লা লিগার শিরোপা দৌড়ে রয়েছে চার দল। তাদের মধ্যে ব্যবধান কেবল ৩ পয়েন্ট। ভালো করতে না পারলে, হোঁচট খেলে কিংবা কোনো কিছুর ঘাটতি থাকলে, এর মূল্য দিতে হবে। এটাই এই মৌসুমের সৌন্দর্য।”

“কোনো দলই বাকিদের চেয়ে সেরা নয়। ভালো করতে না পারলে পয়েন্ট হারাতে হবে। এটাই প্রমাণ করে, এটা খুব কঠিন এক চ্যাম্পিয়নশিপ।”

গেতাফে ম্যাচে লাল কার্ড দেখায় ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে দলের ডাগআউট থাকতে পারবেন না কুমান। আগামী সপ্তাহে আতলেতিকোর বিপক্ষেও তাকে দেখা যাবে না ডাগআউটে। কোচের দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে অবশ্য আপিল করেছে বার্সেলোনা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক