কলকাতার মহারণে ভারত-বধের স্বপ্ন

প্রত্যাশা আকাশচুম্বী। কিন্তু অতীত পরিসংখ্যান, বর্তমান বাস্তবতা বলছে ভিন্ন কথা। তাই বাংলাদেশ দলে চলছে অদ্ভুত এক টানাপোড়েন। অধিনায়ক জামাল ভূইয়া প্রত্যয়ী কণ্ঠে জানিয়ে দিয়েছেন, মন ভাঙতে চান ভারতীয়দের। কোচ জেমি ডের সুর অবশ্য অতটা চড়া না। তবে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ভারতের বিপক্ষে পয়েন্ট পাওয়ার লক্ষ্যটা ঠিকই থাকছে।

মোহাম্মদ জুবায়েরকলকাতা থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Oct 2019, 03:43 PM
Updated : 14 Oct 2019, 03:43 PM

লড়াইয়ের মঞ্চ তৈরি, কলকাতার ঐতিহ্যবাহী সল্ট লেক স্টেডিয়ামে। বিবেকানন্দযুবভারতী ক্রীড়াঙ্গণ নামেও পরিচিত ফুটবলের এই আঙিনা। কেউ কেউ বলেন ভারতের ফুটবলের তীর্থস্থান'মক্কা'। যেমনি তার জৌলুস, তেমনি আলাদা পরিচিতি আছে গ্যালারিতে ফুটবল পাগলদের তর্জন-গর্জনেরজন্যও। জামাল-জীবনদের প্রতিপক্ষ তাই শুধু মাঠের ১১ জন নয়, দর্শকও!

মুখোমুখি ২৪ ম্যাচের পরিসংখ্যানে ভারতের জয় ১১টি, বাংলাদেশের ৩টি।বাকি ১০ ম্যাচ ড্র। ভারতের বিপক্ষে সবশেষ জয়ের স্বাদ বাংলাদেশ পেয়েছিল ২০০৩ সালে, সাফচ্যাম্পিয়নশিপে। এরপর পেরিয়ে গেছে ১৬টি বছর! ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ভারত এখন ১০৪তম, বাংলাদেশ১৮৭তম।

২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয়রাউন্ডে ভারতের শুরুটা ওমানের কাছে হেরে। তবে পরের ম্যাচে এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন কাতারকেরুখে দেয় ইগর ইস্তিমাচের দল। এবার উন্মুখ হয়ে আছে বাছাইয়ে প্রথম জয়ের জন্য।

অন্যদিকে, প্রথম দুই ম্যাচে আফগানিস্তান ও কাতারের কাছে হেরেছে বাংলাদেশ।‘ই’ গ্রুপে এখন পর্যন্ত একমাত্র দল হিসেবে পয়েন্টের খাতায় আঁচড় কাঁটতে পারেনি তারা।ভারতের বিপক্ষে সবশেষ দুই মুখোমুখি লড়াইয়ের ফল অবশ্য আশা দেখায়। ১-১ ও ২-২। ধারাবাহিকতাধরে রাখতে পারলে মিলবে কাঙ্ক্ষিত পয়েন্ট।

অভিজ্ঞ গোলমেশিন সুনীল ছেত্রী, তরুণ আশিক কুরুনিয়ান-মানবীর সিংদেরনিয়ে ভারত কোচ কষছেন আক্রমণাত্মক ছক। তবে কাতার ম্যাচে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স দেখেসতর্ক এই ক্রোয়াট।

“আগামীকাল আমাদের প্রমাণ করতে হবে যে বল দখলে রেখে আধিপত্য বিস্তারেএবং টানা আক্রমণ করে যেতে সক্ষম আমরা। একই সঙ্গে আমরা রক্ষণে গোছালো থাকতে এবং বাংলাদেশকেবেশি সুযোগ না দিতে সক্ষম। বাংলাদেশ এরই মধ্যে প্রমাণ করেছে প্রতিআক্রমণে তারা দারুণ।”

গত বছর মে মাসে ডে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বাংলাদেশ প্রতিআক্রমণনির্ভর ফুটবল খেলছে। ভারত ম্যাচের কৌশল নিয়ে ওঠা সব প্রশ্নে মুখে ছিপি এই ইংলিশ কোচের।সেরা একাদশ তো দূরের কথা, রক্ষণে রায়হান হাসান নাকি বিশ্বনাথ ঘোষ-এ প্রশ্নের উত্তরেওবললেন, "এখনও জানি না"।

পয়েন্ট পাওয়ার লক্ষ্য পূরণে কোচের চাওয়া রক্ষণ থাকতে হবে জমাট, গোলখাওয়া যাবে না এবং সুযোগ পেলে কাজে লাগাতে হবে।

ইয়াসিন খান, রহমত মিয়াদের ওপর ভার থাকবে সুনীলকে বোতলবন্দী করে রাখার।কাতারের বিপক্ষে অসুস্থতার কারণে না খেলা ভারতের সর্বোচ্চ গোলদাতা ফিরছেন বাংলাদেশেরবিপক্ষে।

বাংলাদেশের কড়া পাহারায় থাকা নিয়ে মোটেও ভাবছেন না ৩৫ বছর বয়সী এইফরোয়ার্ড। বরং মজা বরে বললেন, “যদি তাদের ৪/৫ জন আমাকে পাহারায় রাখে, আমি খুশি হব।আমরা একসঙ্গে চাও খেতে পারি! ওরা যদি এটাই করে, তাহলে আমরা সংখ্যার দিক থেকে সুবিধাপাব, মাঠে ১০ বনাম ৬ থাকবে।”

ওমানের বিপক্ষে সুনীলের গোলেই এগিয়ে গিয়েছিল ভারত। শেষ দিকে জোড়াগোল হজম করে হারে তারা। তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক জামালের মনে হচ্ছে প্রতিপক্ষের আক্রমণভাগেরশক্তির চেয়ে মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণের ওপর নির্ভর করবে ম্যাচের ভাগ্য।

“আমি মনে করি, যারা মাঝমাঠে ভালো করবে, এগিয়ে থাকবে, তাদের ম্যাচেভালো করার এবং জয়ের সুযোগ তুলনামূলকভাবে বেশি থাকবে। কারণ সুযোগগুলো মাঝমাঠ থেকেই তৈরিহয়।”

স্কোরিংয়ের সমস্যা বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের। প্রীতি ম্যাচে ভুটানেরজালে জোড়া গোল করে খরা কাঁটানো নাবীব নেওয়াজ জীবন সবশেষ কাতার ম্যাচে সুযোগ নষ্ট করেছেন।ব্যর্থতার মিছিলে ছিলেন বিপলু আহমেদ, মাহবুবুর রহমান সুফিলরাও। তবে ভারতের বিপক্ষেসতীর্থ ফরোয়ার্ডদের সুযোগ আছে বলে মনে করেন জামাল।

“ভারতের বিপক্ষে আমাদের ভালো সুযোগ আছে। কেননা, আমার মনে হয়েছে ওদেররক্ষণ একটু দুর্বল, বিশেষ করে ওদের রাইট ব্যক ও লেফট ব্যাকে।”

সল্ট লেকে জামাল ছাড়াও ইয়াসিন, মামুনুল, সোহেল রানাদের খেলার অভিজ্ঞতাআছে। ইশারা-ইঙ্গিতে অধিনায়ক বুঝিয়ে দিলেন মাঠে নামলে গ্যালারির শোরগোল কানে ওঠে না।সমর্থকের চাপ থাকবে ভারতের ওপর, বললেন এমনটাও।

“আমি শুধু সতীর্থদের বলতে চাই, মাঠে যাও, উপভোগ করো। কেননা এত দর্শকেরসামনে তোমরা খেলার সুযোগ খুবই কম পাবে। স্রেফ মাঠে যাও, মুহূর্তটা উপভোগ করো এবং ভারতেরমতো ভালো একটি দলের বিপক্ষে তিন পয়েন্ট নিয়ে এসো।”

শক্তিশালী ভারত বধে উপভোগই বাংলাদেশের জন্য বড় মন্ত্রণা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক