গোল পেতে এখন ভাগ্যের দিকে তাকিয়ে ফরোয়ার্ডরা

লাওসের বিপক্ষে গোলের একাধিক সুযোগ নষ্ট করেছেন ফরোয়ার্ডরা। ফিলিপিন্স ম্যাচেও নাবীব নেওয়াজ জীবন, তৌহিদুল আলম সবুজরা সুযোগ কাজে লাগাতে হন ব্যর্থ। গত দুই ম্যাচে গোল না পাওয়ায় ফরোয়ার্ডরা আছেন দুশ্চিন্তায়। আশা, সেমি-ফাইনালে ভাগ্য একটু সহায় হবে তাদের। মিলবে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা।

মোহাম্মদ জুবায়েরসিলেট থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Oct 2018, 10:13 AM
Updated : 6 Oct 2018, 10:13 AM

আগামী বুধবার বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের সেমি-ফাইনালে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়নদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। শনিবার ফিলিস্তিন-নেপাল ম্যাচে নির্ধারিত হবে কোন দল হবে প্রতিপক্ষ।

লাওসের বিপক্ষে মিডফিল্ডার বিপলু আহমেদের একমাত্র গোলে জেতা বাংলাদেশ ফিলিপিন্সের কাছে হারে ১-০ গোলে। দুই ম্যাচে গোলের বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করার হতাশায় ঘুমই ঠিকঠাক হয়নি জীবনের। সেমি-ফাইনালে তাই ভাগ্যকে একটু পাশে পাওয়ার আশা এই ফরোয়ার্ডের।

“ফিলিপিন্স ম্যাচে যে হেডটা করছিলাম, বিশ্বাস ছিল এটা নিশ্চিত গোল। একটু এদিক-ওদিক হলেই গোলটা হতে পারত। দুইটা গোল মিস করেছি আমি। হোটেলে ফিরে ম্যাচের ভিডিও দেখেছি। ওটা দেখার পর রাতে ঘুমাতে পারিনি। খুবই খারাপ লাগছিল। কেননা, হেডে গোলটি করতে পারলে হয়ত দল ড্র করত।”

“সেমি-ফাইনালে প্রতিপক্ষ যেই আসুক না কেন, আমরা সুযোগ পাবই। এ মুহূর্তে আমরা যেভাবে খেলছি, সেমিতেও সুযোগ পাব। কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। ফিলিপিন্স ম্যাচের পর কোচ বলেছেন-তোমরা ভালো খেলেছ; শুধু সুযোগ কাজে লাগাতে পারোনি। সেমিতে সেই সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।”

“ব্যক্তিগতভাবে আমার মধ্যে জেদ কাজ করছে। আসলে খারাপ লাগার জায়গা হচ্ছে-চেষ্টার ত্রুটি রাখছি না কিন্তু গোল পাচ্ছি না। আমার আশা সেমি-ফাইনালে যেন ভাগ্যকে একটু পাশে পাই এবং আমার গোলে যেন দল জেতে।”

ফিলিপিন্স ম্যাচে সুযোগ কাজে লাগাতে না পারা আরেক ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজেরও চাওয়া সেমি-ফাইনালে যেন তারা ভাগ্যকে একটু পাশে পান।

“আসলে সুযোগ পেয়েছিলাম কিন্তু কাজে লাগাতে পারিনি। ম্যাচ জিততে হলে, গোল পেতে হলে ভাগ্যকেও পাশে পাওয়ার দরকার হয়, যেটা আমরা পাইনি। তাছাড়া ফিলিপিন্স আমাদের চেয়ে শক্তিশালী দল ছিল। ওরা দ্বিতীয়ার্ধে রক্ষণাত্মক খেলেছে; এ কারণে আমরা ওদের দেয়ালটা ওভাবে ভাঙতে পারিনি। খেলোয়াড়রা অনেক চেষ্টা করেছে কিন্তু ভাগ্য সহায় হয়নি।”

“ফিলিপিন্স ম্যাচে সুযোগ নষ্ট করে আমাদের মনটাও ভালো নেই। অবশ্যই আক্ষেপ আছে। সেমি-ফাইনালে সুযোগ আরও কম আসবে। তাই যে সুযোগই আমরা পাই না কেন, সেটা কাজে লাগাতে হবে। কোনোভাবেই সুযোগ হাতছাড়া করা যাবে না। এখন শুধু একটু চাওয়া, আমরা যেভাবে খেলছি এর সঙ্গে যেন ভাগ্যকে একটু পাশে পাই।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক