বার্সেলোনার ভাবনা স্কলারির কৌশল নিয়ে

ক্লাব বিশ্বকাপের তৃতীয় শিরোপা জয়ের মিশনে প্রথম ধাপে লুইস ফেলিপে স্কলারির গুয়াংজো এভারগ্রান্দের বিপক্ষে মাঠে নামতে যাচ্ছে বার্সেলোনা। এই লড়াইয়ে দুবারের চ্যাম্পিয়নদের বড় পরীক্ষায় ফেলতে পারে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ী কোচ স্কলারির কৌশল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Dec 2015, 01:59 PM
Updated : 16 Dec 2015, 01:59 PM

আগামী বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে চারটায় জাপানের ইয়োকোহামায় নিশান স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে মুখোমুখি হবে দল দুটি।

২০০৯ ও ২০১১ সালে ক্লাব বিশ্বকাপ জেতা বার্সেলোনার সাম্প্রতিক সময়টা খুব একটা ভালো না কাটলেও তৃতীয় শিরোপার লড়াইয়ে ‘ফেভারিট’ তারাই। তবে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে চীনের লিগ চ্যাম্পিয়ন ও এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী এভারগ্রান্দে লিওনেল মেসি-লুইস সুয়ারেসদের কাজটা কঠিন করে তুলতে পারে।

চীনা ও ব্রাজিলের খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া দল এভারগ্রান্দের শক্তির উল্লেখযোগ্য উৎস হতে পারে তাদের কোচ। ‘বিগ ফিল’ নামে পরিচিত স্কলারি তো বার্সেলোনাকে চমকে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েই রেখেছেন।

“আমরা জানি, আমরা ছোট দল। কিন্তু আমি মনে করি, আমরা কিছু একটা করতে পারি। আমাকে স্বপ্ন দেখতে হবে এবং খেলোয়াড়দের বিশ্বাস করাতে হবে যে, তারা এটা পারে। কেন স্বপ্ন দেখা নয়, আমরা বার্সেলোনাকে হারাতে পারি, কেন বিশ্বাস করা নয়।”

তাছাড়া স্কলারির দীর্ঘ কোচিং ক্যারিয়ারে বারবারই দেখা গেছে, বড় কোনো লড়াইয়ে ‘আন্ডারডগ’ হিসেবেই ভালো করেছে তার দল। আর নিয়মের মধ্যে থেকে শিষ্যদের দিয়ে ফাউলের পর ফাউল করিয়ে প্রতিপক্ষের খেলায় ছন্দপতন ঘটাতেও তার জুড়ি মেলা ভার।

এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হয়ে আছে ২০১৩ সালের ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের ফাইনাল। সে দিন ওই সময়ের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেনকে ৩-০ গোলে হারানো ম্যাচে মোট ২৬টি ফাউল করে ব্রাজিলের খেলোয়াড়রা। কিন্তু তাদের কোনো খেলোয়াড়ই হলুদ কার্ড দেখেনি।

স্বাভাবিকভাবেই তাই শেষ চারের এই ম্যাচে গত মৌসুমের ইউরোপ চ্যাম্পিয়নদের বড় ভাবনার জায়গা হতে যাচ্ছে স্কলারির কৌশল।

লা লিগা ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মিলে টানা তিন ম্যাচে জয়বঞ্চিত বার্সেলোনা এ ম্যাচে আবার পাচ্ছে না দারুণ ফর্মে থাকা নেইমারকে। গত তিন মাসে ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ডের অসাধারণ নৈপুণ্যেই ঘরোয়া লিগের শীর্ষে উঠে আসে স্পেনের ক্লাবটি। এর অধিকাংশ সময় টানা চারবারের বর্ষসেরা তারকা মেসি না থাকলেও তার অভাব বুঝতেই দেননি ব্রাজিলের অধিনায়ক। তাই তার অনুপস্থিতি একটু হলেও দুর্ভাবনার কারণ হতে পারে গত মৌসুমের ‘ট্রেবল’ জয়ীদের।

কোচ লুইস এনরিকে আগেই দলের বাকি সদস্যদের নেইমারকে ছাড়াই মানিয়ে নেওয়ার আহবান জানিয়েছিলেন। তবে ২৩ বছর বয়সী তারকা ফরোয়ার্ড জাপানে দলের সঙ্গেই আছেন। দল প্রত্যাশিতভাবে ফাইনালে উঠলে কুঁচকির চোট কাটিয়ে খেলার সম্ভাবনা আছে তার।

আর্জেন্টিনার অধিনায়ক মেসি অবশ্য এভারগ্রান্দের বিপক্ষে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। বরং তিনি ফাইনালে স্বদেশের ক্লাব রিভার প্লেটের বিপক্ষে লড়াই নিয়েই চিন্তিত।

বার্সেলোনার মিডফিল্ডার সের্হিও বুসকেতস অবশ্য সতীর্থদের সতর্ক করে দিলেন।

“তারা বিপজ্জনক দল, তাদের স্কলারি আছে, তাদের ব্রাজিলের খেলোয়াড় আছে এবং তারা এরই মধ্যে একটা বিস্ময় ঘটিয়েছে।”

সেমি-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মেক্সিকোর ক্লাব আমেরিকার বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ২-১ গোলে জিতে যায় এভারগ্রান্দে। তাই ২৮ ম্যাচ ধরে অপরাজিত স্কলারির দলটিকে অবহেলা করলে পস্তাতে হতে পারে বার্সেলোনাকে।