ফেইসবুকে ‘ধর্ম অবমাননা’: নড়াইলের আকাশ রিমান্ডে

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় ফেইসবুক পোস্টে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ দেওয়ার অভিযোগের মামলায় আকাশ সাহাকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

নড়াইল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 July 2022, 02:01 PM
Updated : 17 July 2022, 02:01 PM

পুলিশ বলছে, কলেজছাত্র আকাশের ফেইসবুক আইডি থেকে একটি পোস্টকে কেন্দ্র করেই গত শুক্রবার হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করা হয়।

শনিবার রাতে খুলনা থেকে তাকে আটক করার কথা জানায় পুলিশ। এরপর ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার’ মামলায় আকাশকে আদালতে হাজির করে রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ।

লোহাগড়া আমলি আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) এএসআই এম এম রাজিব বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাকফুর রহমান আসামির সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. মোরশেদুল আলম তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।”

২০ বছর বয়সী আকাশ লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া সাহাপাড়া গ্রামের অশোক সাহার ছেলে। শুক্রবার রাতেই অশোক সাহাকে থানায় নেওয়া হয়েছিল, তিনি এখনও বাড়ি ফেরেননি। 

স্থানীয়রা জানান, এক ফেইসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে দীঘলিয়ায় শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর থেকে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। আকাশ সাহার গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে তাদের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করে লোকজন।

বিকালে উত্তেজনা আরও বাড়ে এবং সন্ধ্যায় ধর্ম অবমাননার কথিত অভিযোগ তুলে সাহাপাড়ার কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর করে কয়েকটি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। সে সময় মন্দিরে ঢিলও ছোঁড়া হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

শনিবার বিকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজা ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের নিরাপত্তার জন্য সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

উপস্থিত জনতার উদ্দেশে তিনি বলেন, “আপনারা যতক্ষণ সহযোগিতার হাত না বাড়াবেন, ততক্ষণ কেউ কিছু করতে পারবে না। আপনাদের সহযোগিতার হাতটা খুব জরুরি।”

জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারাও এ সময় মাশরাফির সঙ্গে ছিলেন।

এর আগে ফেইসবুকে এক পোস্টে মাফরাফি আক্ষেপ করে বলেন, “ছেলেবেলা থেকে যে নড়াইলকে দেখে এসেছি, যে নড়াইলকে নিয়ে আমরা গর্ব করি, সেই নড়াইলের সঙ্গে এই নড়াইলকে আমি মেলাতে পারছি না।”

এই নড়াইলেই গত মাসে ফেইসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে এক অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনা পুরা দেশকে স্তম্ভিত করে দেয়।

দেশজুড়ে প্রতিবাদের মধ্যে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক