সাংবাদিকদের ডাকলেন বাহার, শুভেচ্ছা বিনিময়ে এলেন স্ত্রী

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আলোচনার মধ্যে থাকা সরকার দলীয় সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার সাংবাদিকদের শুভেচ্ছা বিনিময়ে ডেকেও শেষ পর্যন্ত দেখা দেননি।

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 June 2022, 04:29 PM
Updated : 14 June 2022, 04:29 PM

মঙ্গলবার নগরীর কান্দিরপাড়ে কুমিল্লা ক্লাবে তিনি সাংবাদিকদের ডেকেছিলেন। তবে সেখানে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন তার স্ত্রী মেহেরুননেছা বাহার।  

রাত পোহালেই কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু। এবারের নির্বাচনে প্রার্থীদের মতোই আলোচনায় রয়েছেন কুমিল্লা-৬ (আদর্শ সদর, সিটি করপোরেশন, সেনানিবাস এলাকা) আসনের এই সংসদ সদস্য।

আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদেও দায়িত্ব পালন করছেন। 

আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে ওঠার পর বাহারকে নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। তবে তিনি এলাকা ছাড়েননি। এরপর তিনি তুমুল আলোচায় আসেন।

এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের আমন্ত্রণ জানানো হয় এমপি বাহারের পক্ষ থেকে।

সন্ধ্যা ৭টায় কুমিল্লা ক্লাবে গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে উপস্থিত হন বাহারের স্ত্রী মেহেরুননেছা বাহার।

মেহেরুননেছা সাংবাদিকদের বলেন, “আপনাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে চেয়েছিলেন আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি সাহেব। এজন্য সকলকে কুমিল্লা ক্লাবে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তিনি। পরবর্তীতে তিনি চিন্তা করেছেন নির্বাচনের বিষয়টি। কারণ এখন পর্যন্ত তিনি নির্বাচনী সকল কাজ থেকে নিজেকে বিরত রেখেছেন। কারণ তিনি নিজে চান না আচরণবিধি লঙ্ঘন করতে।”

ওই সময় সাংবাদিকরা বাহারের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে জানতে বারবার যোগাযোগ করেও তার সঙ্গে কথা বলতে পারছেন না বলে জানান। সাংবাদিকরা বাহারকে দেওয়া ইসির এলাকা ছাড়ার চিঠির বিষয়ে জানতে চান।

এ সময় মেহেরুননেছা বাহার বলেন, “এমপি বাহার কুমিল্লার অভিভাবক। তিনি একজন জনপ্রতিনিধি। তিনি তার বাড়ি ছেড়ে কোথায় যাবেন। আর তিনি কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে যাবেন না? এগুলো কেমন কথা! আমাদের তো মনে হয় ইসির এমন চিঠি দেওয়া উচিত হয়নি। এটি প্রশ্নবিদ্ধ একটি চিঠি। তিনি কোনো আচরণবিধি লঙ্ঘন করেননি।”

আরও পড়ুন:

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক