‘আমাদেরও সময় আসবে, ওয়েট অ্যান্ড সি’, বাহার প্রসঙ্গে ইসি রাশেদা

‘আইনের কিছু ফাঁক-ফোকরকে ব্যবহার করে’ সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বাধা সত্ত্বেও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এলাকায় অবস্থান করছেন বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা।

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 June 2022, 11:13 AM
Updated : 13 June 2022, 11:35 AM

এলাকা ছাড়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের নির্দেশকে অমান্য করা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই সোমবার কুমিল্লায় নির্বাচন কমিশনার বলেন, “তিনি (এমপি বাহার) আইন অমান্য করে নির্বাচনী এলাকায় আছেন। তবে আইনের কিছু ফাঁক-ফোঁকরকে তিনি ব্যবহার করছেন।“

“আমাদেরও সময় আসবে। ওয়েট অ্যান্ড সি।”

কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য বাহার আইন ভেঙে দলীয় প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের পক্ষে প্রচার চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠলে তাকে সতর্ক করে নির্বাচন কমিশন। তাতে কাজ না হওয়ায় গত বুধবার তাকে এলাকা ছাড়তে নির্দেশ দেয় ইসি।

কিন্তু প্রথম দফা সতর্কবার্তা পেয়েই হাই কোর্টে গিয়েছিলেন বাহার। তাকে নির্বাচনের প্রচারে সুযোগ না দেওয়া কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে না, তা জানতে চেয়ে আদালত থেকে রুলও পান তিনি।

নির্বাচন প্রভাবমুক্ত রাখতে স্থানীয় এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারকে এলাকা ছাড়তে বললেও ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা তাতে কান না দেওয়ায় রোববার দৃশ্যত অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল। বলেন, সংসদ সদস্যের জন্য ইসির অনুরোধই ‘যথেষ্ট’। না মানলে কিছুই করার নেই।

একদিন বাদে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় কুমিল্লা নগরীর বাদুড়তলায় নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা আরও বলেন, “যদি ভোটের পরিস্থিতি ভালো না থাকে তাহলে নির্বাচন স্থগিত করা হবে। নির্বাচন সুষ্ঠু করার জন্য আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা রয়েছে।”

নির্বাচনের ১০৫টি ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তার সঙ্গে মতবিনিময় ও ব্রিফিংয়ের জন্য এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ সময় সেখানে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকরা এই নির্বাচন কমিশনারের কাছেও সংসদ সদস্য বাহাউদ্দিন বাহারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “তিনি একজন জনপ্রতিনিধি। উনারা আইন প্রণয়ন করেন। যদি উনারাই আইন না মানেন, তাহলে আর কী বলব! উনাকে তো আর আমরা টেনে-হিঁচড়ে নামাতে পারি না। এখানে ইজ্জত গেল কার আপনারাই বুঝুন।” 

নির্বাচনে কোনো ধরনের খারাপ পরিস্থিতি এখনও ঘটেনি এবং ভোটের পরিস্থিতি ভালোই আছে উল্লেখ করে আহসান হাবিব খান বলেন, “নির্বাচনের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সুষ্ঠু ভোটের জন্য যা যা করা দরকার সবই করা হয়েছে। তবে ভোটকেন্দ্রে কোনো ধরনের হাঙ্গামা বরদাশত করা হবে না।”

“প্রতিটি বুথে সংশ্লিষ্ট ভোটার ছাড়া আর কারও প্রবেশাধিকার থাকবে না। কমিশন কুমিল্লায় অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট করতে চায়। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত কেউ অনিয়মে জড়িত হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের যুগ্ম সচিব (আইন) মো. মাহবুবার রহমান সরকার, জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ, কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ইভিএম প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কর্নেল সৈয়দ রাকিবুল হাসান, রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে শেষে দুপুরে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা কয়েকটি কেন্দ্রে ইভিএমের মগ ভোটিং কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডে ইভিএমে ভোট হবে। এ নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ২৯ হাজার ৯২০। নারী ভোটার ১ লাখ ১৭ হাজার ৯২ এবং পুরুষ ভোটার ১ লাখ ১২ হাজার ৮২৬ জন। হিজড়া ভোটার দুজন। মোট ১০৫টি ভোটকেন্দ্রের ৬৪০টি কক্ষে ভোট হবে।

আরও পড়ুন:

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক