চাঁদপুরে একদিনে দুই ভাইয়ের মৃত্যু, পরিবারে মাতম

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলায় বুধবার সকালে কিছু সময়ের ব্যবধানে দুই ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।

চাঁদপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 May 2022, 08:47 AM
Updated : 4 May 2022, 08:47 AM

নিহতরা হলেন- ফরিদগঞ্জ পৌরসভার ওয়াপদার দক্ষিণ পাশে ডা. ওয়ালীউল্লাহর বাড়ির মৃত বিল্লাল হোসেনের বড় ছেলে রুবেল হোসেন (২৮) ও মেঝ ছেলে সোহেল হোসেন (২৬)। রুবেল দলিল লেখকের কাজ করতেন আর সোহেল ছোটখাট চাকরি করতেন।

নিহতদের ছোটভাই আরিফ হোসেন বলেন, সকালে বৃষ্টির মধ্যে বড় ভাই রুবেল বাড়ির পুকুরপাড়ে উজানের কৈ  মাছ ধরতে যান। দুই ঘণ্টা পরও রুবেল ঘরে ফিরে না আসায় সোহেল রানাও সেখানে যান। পুকুরপাড়ে বড় ভাইকে পড়ে থাকতে দেখে সোহেল চিৎকার শুরু করেন। একপর্যায়ে তারও চিৎকার বন্ধ হয়ে যায়।

“এ সময় বাড়ির অন্যদের নিয়ে দ্রুত ছুটে যাই। দুই ভাইকে একই অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। স্থানীয়দের সহায়তায় তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন।“

ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মোজাম্মেল হোসেন বলেন, “স্থানীয়রা হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই এই দুজন মারা গেছেন। তাদের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন না থাকায় প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দুজন মারা গেছেন।”

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ শহীদ হোসেন বলেন, “নিহত দুজনের শরীরের কোথাও জখম কিংবা আঘাতের চিহ্ন নেই। দুটি মৃতদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।” 

“কী কারণে রুবেলের মৃত্যু হয়েছে তা জানার জন্য লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে এবং সোহেলের লাশ পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।“

এদিকে একসঙ্গে দুই সন্তানকে হারিয়ে তাদের মা জেসমিন আক্তার শোকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। তাকে শান্ত্বনা দিতে এলাকার অনেকেই ছুটে আসেন। 

স্বজনরা জানায়, সন্তানদের ছোট রেখে মারা যান বিল্লাল হোসেন। পরিবারের আর্থিক অবস্থা তেমন ভালো ছিল না। মা তাদের অনেক কষ্ট করে পড়াশোনা করিয়েছেন। তিন ভাই মায়ের সঙ্গেই থাকতেন। তারা বিয়ে করেননি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক