জয়পুরহাটে ডাকাতি-চোরাকারবারির পৃথক মামলায় ৭ জনের দণ্ড

জয়পুরহাটে ডাকাতি মামলায় ছয়জনকে ১৫ বছরের ও চোরাকারবারি মামলায় একজনকে দশ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জয়পুরহাট প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 April 2022, 11:57 AM
Updated : 5 April 2022, 11:57 AM

মঙ্গলবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক গোলাম সরোয়ার আসামিদের অনুপস্থিতে এ আদেশ দেন।

ডাকাতির মামলান আসামিরা হলে- সদর উপজেলার পূরানাপৈল এলাকার আজাহার আলীর ছেলে ছানোয়ার, মৃত ধনবর আলীর ছেলে ফরহাদ, মৃত হাফিজার রহমানের ছেলে সাজ্জাদ, ওমর আলীর ছেলে দুদু মিয়া, পারুলিয়ার সামাদের ছেলে মনোয়ার হোসেন ও পাঁচবিবি উপজেলার গুদইল গ্রামের গাহ পাগলার ছেলে মাবুদ। 

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি ছিলেন নৃপেন্দ্রনাথ মণ্ডল জানান, ১৫ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের ৩০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়েছেন বিচারক। অনাদায়ে তাদের আরও পাঁচ মাসের দণ্ড ভোগ করতে হবে।

এদিকে চোরাকারবারির মামলার আসামি হলেন- পাঁচবিবি উপজেলার আটাপাড়া গ্রামের মৃত ভোলা মিয়ার ছেলে বিটল।

বিটলকে ১০ বছরের দণ্ডের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাসের দণ্ড দেওয়া হয়েছে।

মামলার বরাতে নৃপেন্দ্রনাথ বলেন, ২০০৪ সালের ১৭ মার্চ হিলি থেকে একটি প্রাইভেটকারে কয়েকজন ব্যক্তি জয়পুরহাট শহরে যাচ্ছিল। পথে সদর থানার বনখুর এলাকায় একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দল তাদের পথ আটকে মারধর করে সোনার চেইন, মোবাইল ফোন ও টাকা লুট করে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ১৮ মার্চ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে প্রাইভেটকারের চালক আজিজার রহমান সদর থানায় একটি মামলা করেন।

তদন্ত শেষে ওই বছরের ১৭ অক্টোবর পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে এ মামলার বিচারকাজ শুরু হয়।

তাছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এ মামলা থেকে ছয়জনকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের এ আইনজীবী।

এদিকে ২০০৪ সালের ২৯ অগাস্ট পাঁচবিবি উপজেলার আটাপাড়া এলাকায় শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে আনা ৪০০ প্যাকেট ফাইভ স্টার মেহেন্দী ও এক হাজার ৮০০টি কলমের শিষ জব্দ করে বিজিবি। এ ঘটনায় বিটনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বিজিবি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক