কিশোরগঞ্জে ফুল দেওয়া নিয়ে আওয়ামী লীগের দুপক্ষ মুখোমুখি, লাঠিপেটা

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দুটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নিলে পুলিশ লাঠিপেটা ও কাঁদুনে ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 March 2022, 03:30 PM
Updated : 26 March 2022, 03:50 PM

শনিবার সকালে সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক সোহরাব উদ্দিন এবং বর্তমান সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় কয়েকজন আহত হয়।   

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আল আমিন হোসাইন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ”স্বাধীনতা দিবসে একটি মহল বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চেয়েছিল। পুলিশ তাদের এ প্রচেষ্টা বানচাল করে দিয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।”

এর আগে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসেও শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব হোসেন সমর্থকদের নিয়ে উপজেলা সদরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিতে যাবেন এমন খবরে গত কয়েকদিন ধরে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। তাদের প্রতিরোধ করতে সকাল থেকেই অবস্থান নেয় সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ ও পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুর সমর্থকরা।

তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ প্রথমে লাঠিপেটা করে। পরে পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করলে নেতাকর্মীরা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে এবং পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এদিকে সকাল ১১টার দিকে সোহরাব উদ্দিন পুলিশি নিরাপত্তায় নেতাকর্মীদের নিয়ে শোভাযাত্রার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান।

এ ব্যাপারে চেষ্টা করেও সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক সোহরাব উদ্দিন এবং পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক