নাটোর কারাগারের ২ বন্দির মৃত্যু, নির্যাতনের অভিযোগ

নাটোর কারাগারের দুই বন্দির মৃত্যু হয়েছে; যাদের একজনকে মারধর করা হয় বলে পরিবারের অভিযোগ।

নাটোর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 March 2022, 02:45 PM
Updated : 18 March 2022, 02:45 PM

কারাগারের ডেপুটি জেলার জাহিদ হাসান জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওসমান আলী (৩৩) আর শুক্রবার ভোরের দিকে আনছের আলী (৪৬) নামে এই দুইজন মারা যান।

ওসমান নাটোর সদর উপজেলার পশ্চিম হাগুড়িয়া গ্রামের নুরু শেখের ছেলে। আর আনছের পাবনা সদর উপজেলার চকভানুরা গ্রামের ভানু প্রামাণিকের ছেলে।

মাদক মামলার আসামি ওসমান আলীকে মারধর করা হয় বলে পরিবারের অভিযোগ।

তবে কারা কর্তৃপক্ষ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ডেপুটি জেলার জাহিদ হাসান বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে ওসমান আলী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয়। আর আনছের আলী শুক্রবার ভোর ৩টা ৫ মিনিটে বুকে ব্যথার কথা বললে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর ৩টা ৫৮মিনিটে তিনি মারা যান।

“দুজনই অসুস্থতার কারণে মারা গেছেন।”

তারা দুইজনই জানুয়ারি থেকে কারাগারে ছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, ওসমানকে ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক মামলায় সাজা দিয়েছিল। আর অনছেরের বিচার চলছিল হত্যা মামলায়।

নাটোর সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা এম এ মোমিন বলেন, “বৃহস্পতিবার রাতে ওসমান আলীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়।

“আর আনছেরকে আনা হয় শেষ রাতে। তাকে রাত ৩টা ২৫ মিনিটে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩টা ৫৮ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।”

মৃতদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ময়নাতদন্তের ফল পাওয়া গেলে তাদের মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

ওসমান আলীর ভগ্নিপতি মুকুল হোসেনের অভিযোগ, “আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরেছি, ওসমানের কাছে গাঁজা থাকায় কারারক্ষীরা সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাকে মারপিট করেন। এ কারণে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাত পৌনে ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয়।”

জেল সুপার আব্দুর রহিম মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

তিনি বলেন, “ওসমানের কাছে গাঁজা পাওয়া গেছে এটা সত্য। তবে এ জন্য তাকে মারপিট করা হয়নি। তিনি অসুস্থতার কারণেই মারা গেছেন।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক