রেললাইন ভাঙা, লাল গামছা উড়িয়ে থামানো হল ট্রেন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকাগামী বনলতা এক্সপ্রেস স্থানীয়দের বুদ্ধিমত্তায় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে।

রাজশাহী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Feb 2022, 09:21 AM
Updated : 15 Feb 2022, 09:31 AM

মঙ্গলবার সকালে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার রামচন্দ্রপুর এলাকায় রেললাইন ভাঙা দেখে লাল গামছা টাঙিয়ে ট্রেনটিকে দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা করেন স্থানীয় দুই ব্যক্তি।

স্থানীয় বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম বলেন, “চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনটিতে প্রায় সাড়ে আট’শ যাত্রী ছিল। মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৮টার দিকে জিয়াউর রহমান ও হাবলু মিয়া নামে স্থানীয় দুই ব্যক্তি রেললাইনের পথ দিয়ে কৃষি কাজে যাচ্ছিলেন।

“এ সময় তারা লাইনের এক অংশে ভাঙা দেখতে পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে লাল গামছা টাঙিয়ে দেন। এই লাল কাপড় দেখে বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনটি থেমে যায়।”

প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা পর রেললাইন মেরামত করার পর ট্রেন চলাচল আবার স্বাভাবিক হয় বলে জানান সাইফুল।

তিনি বলেন, “রাজশাহীর চারঘাট ও বাঘা উপজেলার রেললাইনগুলো ব্রিটিশ আমলে তৈরি। এই লাইনে সারা দিনে ৩২ বার ট্রেন চলাচল করে। বেশি চাপ পড়ায় লাইনগুলোর বিভিন্ন স্থান ভেঙে গেছে। বড় ধরনের প্রাণঘাতী দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে রেল লাইনগুলো দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।”

পশ্চিমাঞ্চল রেলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার জানান, সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে বনলতা এক্সপ্রেস রাজশাহী স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়। ৭টা ৫০ মিটিটে ট্রেনটি চারঘাটের রামচন্দ্রপুরে থেমে যায়। পরে সকাল ৯টায় লাইন মেরামত কাজ শেষ করে ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

প্রায় সোয়া ঘণ্টা এ লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে। এসময় সিল্কসিটি ও মধুমতি ট্রেনও আটকা পড়ে।

রাজশাহী রেলওয়ের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী (আইএন) আবু জাফর বলেন, “এ এলাকার লাইনগুলো অনেক পুরনো। স্টিলের ও কাঠের স্লিপারের কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। কংক্রিটের স্লিপার হলে দুর্ঘটনা কমে আসবে। আমরা নতুন লাইন স্থাপনের জন্য প্রস্তাবনা পাঠিয়েছে। বরাদ্দ পেলে বাস্তবায়ন করা হবে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক