শাবির ঘটনায় ডিনদের উদ্বেগ

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েক দিনের অনাকাঙ্ক্ষিত বিভিন্ন ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন বিভিন্ন অনুষদের ডিন।

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 Jan 2022, 04:02 PM
Updated : 19 Jan 2022, 04:17 PM

বুধবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত অনুষদের ডিনদের স্বাক্ষর করা এই বিবৃতি সাংবাদিকদেরে ই-মেইলে পাঠানো হয়। তাছাড়া মুদ্রিত কপি অনেকের হাতে হাতে ছড়িয়ে পড়ে এবং ফেইসবুকেও দেখা গেছে।

বিবৃতিতে ডিনরা বলেন, “গত কয়েক দিনে সংঘটিত অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীল হওয়ায় আমরা শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্কুলের ডিনবৃন্দ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি।

“বিভিন্ন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষসহ বিভিন্ন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারী লাঞ্ছিত হওয়ায় আমরা মর্মাহত। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ও মর্যাদা ক্ষুণ্ন হচ্ছে এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থী সম্পর্কের চরম অবনতি হচ্ছে বলে আমরা মনে করছি।”

বিজ্ঞপ্তিতে ডিনরা বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান অগ্রগতি ও মর্যাদা সমুন্নত রাখার স্বার্থে সবার পারস্পরিক সহযোগিতা কামনা করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে গত বৃহস্পতিবার রাতে আন্দোলনে নামেন ওই হলের শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের চতুর্থ দিন বিকালে পুলিশ লাঠিপেটা, কাঁদানে গ্যাস, রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। তাতে শিক্ষার্থী, কর্মকর্তাসহ অন্তত অর্ধশত আহত হন।

এর জেরে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শিক্ষার্থীরা নির্দেশ উপেক্ষা করে হলে অবস্থান করেন। উল্টো তারা উপাচার্যের পদত্যাগ চেয়ে নতুন আন্দোলন শুরু করেন।

তাছাড়া শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালানোর পর পুলিশই শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে। সেখানে অজ্ঞাতপরিচয় ২০০ থেকে ৩০০ শিক্ষার্থীকে আসামি করা হয়। গুলি বর্ষণ ও হত্যার উদ্দেশ্যে মারধরের অভিযোগ আনা হয় শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে।

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে সপ্তম দিনের মতো আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। কয়েক দিন বিক্ষোভের পর তারা অনশন শুরু করেন। বুধবার বিকেল ৩টায় উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অনশন কর্মসূচি শুরু করেন তারা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক