প্রজাপতির মেলায়

প্রকৃতির অসীম বর্ণিলতা আর চাঞ্চল্যের প্রকাশ যেন প্রজাপতি। আঙিনা ও আকাশ রাঙানো এই পতঙ্গটি ঘিরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে হয়ে গেল প্রজাপতি উৎসব।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Dec 2021, 02:17 PM
Updated : 10 Dec 2021, 05:52 PM

প্রাণিবিদ্যা বিভাগের কীটতত্ত্ব শাখার উদ্যোগে একাদশতম এই মেলা শুরু হয় শুক্রবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান অডিটরিয়ামের সামনে। সন্ধ্যায় শেষ হওয়ার আগে দিনভর চলে প্রাণের কোলাহল।

উদ্বোধনী বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক রাশেদা আখতার ‘সুন্দর দেশ গড়ার জন্য প্রকৃতির যত্ন নেওয়ার আহ্বান’ জানান।

তিনি শৈশবের স্মৃতি হাতড়ে বলেন, “ছোটবেলায় প্রজাপতি ধরে বাক্সে আটকে রাখতাম। মা বলতেন, এটা ঠিক না। এখন আর আগের মত প্রজাপতি দেখা যায় না। এটি শুধু বাংলাদেশের সমস্যা না, বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে গোটা বিশ্বেই এই সমস্যা।”

সবাইকে সচেতন হওয়ারও আহ্বান জানান তিনি।

এবার মেলার স্লোগান ছিল ‘উড়লে আকাশে প্রজাপতি, প্রকৃতি পায় নতুন গতি’।

মেলায় প্রতিবারের মত এবারও ছিল প্রজাপতির হাট দর্শন, শিশু-কিশোরদের জন্য প্রজাপতি বিষয়ক ছবি আঁকা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি বিষয়ক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী, প্রজাপতি চেনা প্রতিযোগিতা, প্রজাপতির আদলে তৈরি ঘুড়ি ওড়ানোর প্রতিযোগিতা, বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি বিষয়ক তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান।

এবার প্রজাপতি বিষয়ক গবেষণায় বিশেষ অবদানের জন্য আলহাজ ফরহাদ আলী মেমোরিয়াল ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক হাসমত আলীকে ‘বাটারফ্লাই অ্যাওয়ার্ড-২০২১’ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান সমীকে ‘বাটারফ্লাই ইয়াং এনথুসিয়াস্ট-২০২১’ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়।

মেলার আহ্বায়ক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন বলেন, বাংলাদেশে প্রজাপতির ৩০০টি প্রজাতি রয়েছে। এর মধ্যে কেবল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েই রয়েছে ৫০ থেকে ৬০টি।

প্রাণ-প্রকৃতির প্রতি গণসচেতনতা বৃদ্ধি করা এবারের প্রজাপতি মেলার অন্যতম উদ্দেশ্য জানিয়ে তিনি বলেন, “করোনাভাইরাস প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্যহীনতার একটি বিরূপ ফল। সেই জায়গা থেকেও মানুষের প্রকৃতির প্রতি, প্রজাপতির প্রতি সচেতন হওয়া উচিত।”

প্রজাপতি মেলা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা বাড়াচ্ছে বলে মনে করেন অধ্যাপক মনোয়ার।

তিনি বলেন, “প্রজাপতি মেলা ঘিরে প্রকৃতিপিয়াসীদের তীর্থক্ষেত্র হয়ে উঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা উঁচুতে তুলে ধরবে।”

২০১০ সাল থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজাপতি মেলা হয়ে আসছে। তবে গত বছর হয়নি। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে গত বছর মেলার আয়োজন সম্ভব হয়নি বলে জানান অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন।

করোনাভাইরাসের কারণে মেলাজুড়ে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা হয়। প্রতিবারের মত এবার বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়নি বলে জানান আয়োজনকরা।
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক