মুন্সীগঞ্জে বিস্ফোরণ: স্বামী-সন্তানের পর চলে গেলেন শান্তাও

মুন্সীগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে স্বামী ও দুই শিশুসন্তানের পর শান্তা খানমও মারা গেছেন বলে পরিবার জানিয়েছে।

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Dec 2021, 11:06 AM
Updated : 9 Dec 2021, 11:06 AM

ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে ২৭ বছর বয়সী শান্তা মারা যান বলে তার দেবর কাইয়ুম খান জানান।

গত বৃহস্পতিবার মুন্সিগঞ্জের চর মুক্তারপুরে শাহ সিমেন্ট রোডে তাদের ভাড়া বাসায় বিস্ফোরণ ঘটে। এতে চার সদস্য ঘুমন্ত অবস্থায় দগ্ধ হন। তাদের শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শান্তার স্বামী কাওসার খান (৩৭), ছেলে ইয়াসিন খান (৬) ও মেয়ে ফাতেমা নোহরা খানম (৩) মারা যায়।

সিলিন্ডার থেকে গ্যাস বের হয়ে তাতে আগুন ধরে ওই বিস্ফোরণ ঘটে বলে পুলিশের প্রাথমিক ধারণা।

কায়সারের ছোট ভাই কাইয়ুম খান বলেন, “ভাই ও ভাতিজা-ভাতিজির মৃত্যুর পর ভাবি শান্তা খানমকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। সকালে তিনিও চলে গেলেন। ভাইয়ের আর কোনো স্মৃতিই থাকল না।”

কাওসার মুন্সিগঞ্জে আবুল খায়ের গ্রুপে ওয়েল্ডার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মুক্তারপুর এলাকায় জয়নাল মিয়া নামে এক ব্যক্তির চারতলা বাড়ির দ্বিতীয় তলায় ভাড়া বাসা থাকতেন তিনি। তাদের বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বয়লা গ্রামে।

কাইয়ুম বলেন, কাওসার ও তাদের দুই সন্তানের মরদেহ বোয়ালিয়া গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে। শান্তা খানমের মরদেহ ওই তিনজনের কবরের পাশে দাফন করা হবে।

শান্তা খানম কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার সাগলি গ্রামের আরজু মিয়ার মেয়ে বলে স্বজনরা জানিয়েছেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক